নাগরিক শক্তিঃ সংগঠন

দলের নাম: নাগরিক শক্তি

প্রতীক: বই

মূলমন্ত্র: “জ্ঞানের আলোয় উন্নত বাংলাদেশ”

মূলনীতি

1. সবকিছুর উপর জাতীয় স্বার্থ

2. মুক্তিযুদ্ধের চেতনা

3. জাতি ধর্ম বর্ণ শ্রেণী পেশা নির্বিশেষে সবার একতা, সবার স্বার্থ সংরক্ষণ; সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্নে সবাই ঐক্যবদ্ধ

4. গণতন্ত্রমনা – দলের প্রতিটি কর্মকাণ্ডে জনগণের মতামত, আশা আকাঙ্ক্ষা প্রতিফলিত হবে, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হবে

5. সকল অন্যায়, অপকর্ম, অত্যাচার, দুর্নীতির বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান

সাংগঠনিক কাঠামো

প্রেসিডেন্ট

এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট

ভাইস প্রেসিডেন্ট – ৮ জন

জেনেরাল সেক্রেটারি এবং কো-জেনেরাল সেক্রেটারি – ২ জন

জয়েন্ট জেনেরাল সেক্রেটারি – ১২ জন (আরও কয়েকজন যুক্ত হবেন)



দলে সিধান্ত নিতে গণতন্ত্রের চর্চা থাকবে। গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট, এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট, ভাইস প্রেসিডেন্ট, জেনেরাল সেক্রেটারি এবং কো-জেনেরাল সেক্রেটারি – এর মতামতের ভিত্তিতে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে। দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকলে প্রেসিডেন্ট, প্রেসিডেন্ট এর অনুপস্থিতিতে (ফিসিকালি বা ডিজিটালি) এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট এবং এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট এর অনুপস্থিতিতে (ফিসিকালি বা ডিজিটালি) প্রেসিডেন্ট কর্তৃক মনোনীত অ্যাক্টিং এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট এর সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে।

সেক্রেটারিয়েট – Secretariat

জেনেরাল সেক্রেটারি, কো-জেনেরাল সেক্রেটারি এবং জয়েন্ট জেনেরাল সেক্রেটারি এর দায়িত্বে যারা থাকবেন তারা পুরো দলটিকে গোছাবেন। দলের মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করবেন।

Energetic, enthusiastic (স্বপ্নের বাংলাদেশ, দল গড়ে তোলা এসব ব্যাপারে অনেক enthusiasm; আমরা visionary ব্যক্তিদের দেখতে চাই), সবার সাথে ভাল সম্পর্ক – রিপ্রেসেন্টেটিভ হিসেবে সবাই মেনে নেবেন, convince করার ক্ষমতা ভাল, অতীতে কোন সংগঠনকে কাছ থেকে দেখেছেন, এমন বেক্তিরা স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে জনগণকে সংগঠিত করার দায়িত্ব নিয়ে নাগরিক শক্তির সেক্রেটারিয়েটের সাথে যুক্ত হবেন।

গীতা সেনদের, দরিদ্র রিকশাচালকদের, বঞ্চিত স্রমিকদের, অসহায় কৃষকদের, কতিপয় দুর্নীতিবাজের কারসাজির কাছে সর্বস্ব হারানো শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারিদের পাশে গিয়ে দাঁড়াতে হবে। নীরব সংখ্যাগরিষ্ঠ তথা সাইলেন্ট মেজরিটি কে সংগঠিত করতে হবে।

কেউ বিরোধিতা করলে সবাই পাল্টা aggressive হয়ে আরও দূরে সরিয়ে দেয়। আমরা করবো উল্টো – তাকে আরও ভালমত বোঝার চেষ্টা করবো – তার কি কি ভুল ধারণা আছে বোঝার চেষ্টা করবো। প্রথমে যেসব ব্যাপারে একমত সেসব ব্যাপার দিয়ে এক হব। তারপর দূরত্বের ব্যাপারগুলো। আমাদের প্রত্যেককে মনে রাখতে হবে – নিজের সব ধারণা ঠিক নাও হতে পারে – অন্যের যুক্তিযুক্ত মতামত গ্রহণ করার মানসিকতা থাকতে হবে। অপরের চোখ দিয়ে অপরের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখার গুনটি চর্চা করতে হবে।

আমরা যোগ্য ব্যক্তিদের মূল্যায়ন করে তাদের মন জয় করবো। এতে তাদের কাজে উৎসাহও বাড়বে।

জয়েন্ট জেনেরাল সেক্রেটারি নিয়োগ

  • বিজনেস পারসোনালিটি (ব্যবসায়িদের প্রতিনিধি) – ২ জন (একজন সিনিয়র জয়েন্ট জেনেরাল সেক্রেটারি)
  • নারী প্রতিনিধি – ১ জন 
  • জাতিগত এবং ধর্মীয় জনগোষ্ঠীদের প্রতিনিধি – ২ জন (১ জন পাহাড়ি জাতি গোষ্ঠীদের প্রতিনিধিত্ব করবেন, অপরজন সনাতনী এবং অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের প্রতিনিধিত্ব করবেন) 
  • তরুণদের এবং যুব সমাজকে সংগঠিত করার অভিজ্ঞতা আছে, করছেন; দেশের কল্যাণে কাজ করছেন, আরও করতে ইচ্ছুক – ১ জন 
  • দেশের স্বার্থ রক্ষায়, দেশের সম্পদ রক্ষায় জনগণকে সংগঠিত করছেন – ১ জন
  • আদর্শ গ্রামীণ কৃষক, কৃষক সমাজের প্রতিনিধি – ১ জন 

জেনেরাল সেক্রেটারি সাহেব কো-জেনেরাল সেক্রেটারি সাহেবদের পরামর্শের ভিত্তিতে প্রেসিডেন্ট এবং এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট সাহেবের এর অনুমোদন সাপেক্ষে নিয়োগ দেবেন।

স্বপ্ন নিয়ে, enthusiasm নিয়ে যারা দলের সাথে যুক্ত হতে চান প্রত্যেকে যাতে দলে পদ নিয়ে (হতে পারে গ্রাম বা মফস্বল পর্যায়ে জয়েন্ট সেক্রেটারি বা মেম্বার) যুক্ত হতে পারেন তা নিশ্চিত করা হবে। এতে সবার উৎসাহ বাড়বে। প্রতিটি কর্মকান্ডে আমাদের মনে রাখতে হবে আমরা জনগণের দল। নাগরিক শক্তির প্রত্যেক স্থানীয় মেম্বার গুরুত্বপূর্ণ। প্রত্যেকের দলের প্রতি আনুগত্য থাকবে। দলের প্রত্যেক নেতা এবং সদস্য নাগরিক শক্তির মূলনীতিগুলোর উপর আস্থা এবং বিশ্বাস রাখবেন। প্রত্যেকের দায়িত্ব হবে নিজের এলাকায়, পরিচিতদের মাঝে নাগরিক শক্তিকে ছড়িয়ে দেওয়া।

ব্যক্তির চেয়ে দল বড় এবং দলের চেয়ে দেশ বড় – এটি প্রতিষ্ঠিত হবে। আমাদের ক্ষেত্রে কোন নেতার চেয়ে “নাগরিক শক্তি” বড় এবং “নাগরিক শক্তি”র চেয়ে বাংলাদেশ বড়।

দলের প্রতিটি পর্যায়ে ক্ষমতার ভারসাম্য থাকবে। দলে গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা প্রত্যেকের জনগণের কাছে জবাবদিহিতা থাকবে।

সবার কাজ কেন্দ্রিয়ভাবে সমন্বয় করা হবে – নেটওয়ার্ক ম্যাপ করা (আমাদের নেটওয়ার্কে কারা আছেন, কিভাবে বাড়ানো যায়), দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া। [1]

নাগরিক শক্তি হবে জনগণের দল। আমরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে জনগণের হাতে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেব। তৃনমূল পর্যায় থেকে নেতৃত্ব গড়ে উঠবে এবং কাউকে নেতা হতে হলে জনগণের কাছে মান্ডেট নিয়ে, জনগণের মন জয় করে নেতা হয়ে উঠতে হবে – নেতারা হবেন আক্ষরিক অর্থেই জনগণের প্রতিনিধি।

নাগরিক শক্তির নেতা কর্মীদের মাঝে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন, স্নেহের বন্ধন, ভালবাসা এবং স্রদ্ধার বন্ধন থাকবে। নাগরিক শক্তি হবে একটা কমিউনিটির মত।

জনগণের আশা আকাঙ্খা সমস্যা প্রত্যাশা লিপিবদ্ধ করতে হবে। আমরা এ লক্ষ্যে নিজস্ব ডেটাবেইস গড়ে তুলব। ডেটাবেইসে বাংলাদেশ বিষয়ক সব তথ্য, জনগণের আশা আকাঙ্খা সমস্যা মতামত, বিভিন্ন সার্ভেই রেসাল্ট, আমাদের বিভিন্ন নেটওয়ার্ক, প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় দলীয় অবস্থান, প্রার্থীর অবস্থান ইত্যাদি থাকবে। এসব ডেটা এর উপর ডেটা অ্যানালাইসিস, স্ট্যাটিস্টিক্যাল অ্যানালাইসিস হবে, সার্চ করার বাবস্থা থাকবে।

নাগরিক শক্তি জনগণের অন্তর্নিহিত শক্তিতে বিশ্বাসী দল। বাংলাদেশের প্রত্যেকটা মানুষের মাঝে যে বিশাল অন্তর্নিহিত শক্তি লুকিয়ে আছে নাগরিক শক্তি তাকে জাগ্রত করবে।

নাগরিক শক্তির গ্র্যান্ড ভিশনঃ সারা দেশের ১৬ কোটি বাংলাদেশীকে ঐক্যবদ্ধ করা।




ন্যাশনাল কাউন্সিল – National Council

রাজনৈতিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত বা সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত বেক্তিরা, দেশের নাগরিক সমাজের সদস্যরা যারা দেশের জন্য, জনগণের জন্য, দলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে কাজ করবেন, তারা Member of National Council এবং Associate of National Council হিসেবে যুক্ত হবেন।

ন্যাশনাল কাউন্সিলের Members এবং Associates এর দায়িত্বে যারা থাকবেন তারা নিজ নিজ জেলা সংগঠনের দায়িত্বও পালন করবেন।



অ্যাডভাইসারি কাউন্সিল – Advisory Council

সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত সম্মানিত বেক্তিরা, দেশের নাগরিক সমাজের সদস্যরা যারা দেশ গঠনে গুরুত্ব পূর্ণ ভূমিকা রাখতে ইচ্ছুক এবং দলকে সঠিক পরামর্শ দিয়ে দলের পাশে থাকতে চান, তারা Advisory CouncilAdviser হিসেবে যুক্ত হবেন।

National Council এর Members, Associates এবং Advisory Council এর Advisers রা প্রত্যেকে নিজ নিজ দক্ষতা অনুযায়ী, নিজের পছন্দ অনুসারে কাজের ক্ষেত্র বেছে নেবেন। এতে কাজের ফোকাস থাকবে, কর্মপরিকল্পনা থাকবে। দল এ ব্যাপারে সর্বাত্মক সহায়তা করবে।



জনকল্যাণের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে নাগরিক শক্তি

নাগরিক শক্তি জনকল্যাণের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে।

নাগরিক শক্তি দেশের তরুণদের জন্য বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম গড়ে দেবে। এ লক্ষ্যে নাগরিক শক্তি দেশের নাগরিক সমাজ ও ব্যবসায়ী সমাজ এবং তরুণদের মাঝে সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করবে।

নাগরিক শক্তির সাথে যুক্ত যে কেউ এক একটা জনকল্যাণমূলক উদ্যোগ লক্ষ্য হিসেবে নিয়ে কেন্দ্রকে জানাতে পারেন। দেশের জন্য কল্যাণকর মনে হলে কেন্দ্র থেকে সব ধরণের সহায়তা করা হবে। নাগরিক শক্তির নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে দেশের প্রতিটা অঞ্চলে পৌঁছা যাবে।

কেউ লক্ষ্য হিসেবে নেবেন দেশের প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে কোন একটা প্রকল্প – হতে পারে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোকে ঢেলে সাজানো। কেউ একটি এলাকার নারী অধিকার নিয়ে কাজ করবেন। কেউ যৌতুক প্রথার বিরুদ্ধে দেশব্যাপী গণসচেতনতা সৃষ্টি করবেন – সারা দেশের মানুষ তার সাথে যোগ দেবেন। সনাতনী ধর্মাবলম্বীদের নিরাপত্তার জন্য জনগণকে সংগঠিত করবেন কেউ। কেউ তরুণ উদ্যোক্তাদের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে নাগরিক শক্তির সহায়তায় সমাধানে কাজ করবেন। শিল্প বিকাশের পথে সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে সমাধানে নাগরিক শক্তির পুরো নেটওয়ার্ক ব্যবহার করবেন কোন শিল্প ব্যবসায়ী।

পুরো লক্ষ্যটাকে নাগরিক শক্তির পক্ষ থেকে কয়েক ভাগে ভাগ করে বাস্তবায়ন করা হবে। অগ্রগতি নির্দিষ্ট সময় অন্তর পর্যালোচনা করা হবে। সমস্যা, বাঁধাগুলো চিহ্নিত করা হবে এবং সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া হবে।

তরুণ নেতৃত্ব

তরুণরাই নাগরিক শক্তির প্রাণ।

তরুণ প্রজন্মকে ভবিষ্যৎ নির্বাচনগুলোকে সামনে রেখে জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে জনকল্যাণমূলক রাজনীতি করার লক্ষ্যে গড়ে তোলা হবে। এই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে সৎ, জনপ্রিয়, মেধাবী, যোগ্য কয়েকজন তরুণ-তরুণীকে আগামী সংসদ নির্বাচনে নাগরিক শক্তির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হবে।

দলে তরুণদের উপযুক্ত দায়িত্ব দেওয়া হবে। জনকল্যাণমূলক উদ্যোগে সম্পৃক্তকরণের পাশাপাশি পাবলিক রিলেশান্সঃ সোশ্যাল মিডিয়া, যোগাযোগ প্রযুক্তি মাধ্যম (বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মূলত সেলফোন প্রযুক্তি), প্রিন্ট মিডিয়া, টিভি মিডিয়া; সারভেয়িং; বিভিন্ন কর্মসূচী ইত্যাদি।

তরুণরা সকল অন্যায় অবিচার দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর হিসেবে ভূমিকা পালন করবেন। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সারা দেশের মানুষের চাওয়া পাওয়া তুলে ধরবেন।

আমরা চাই তরুণ তরুণীরা নতুন নতুন আইডিয়া, সৃজনশীল কর্ম পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে আসুক।




স্বচ্ছতা – ট্রান্সপারেন্সি

দলের প্রতিটি কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা থাকবে। দলের আয় বায়ের হিসাব (ফান্ড রেইজিং এর হিসাবসহ) নির্দিষ্ট সময় অন্তর জনসমক্ষে প্রকাশ করা হবে

ট্রেসারার হিসেবে একজন গ্রহণযোগ্য বেক্তিকে দায়িত্ব দেওয়া হবে এবং তিনি দলের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করবেন।


পার্টি উইংগস – দলীয় অঙ্গসংগঠন

এসব পার্টি উইংগস এর শীর্ষপদধারীরা সেক্রেটারিয়েটের মাধ্যমে দলের সাথে যুক্ত হবেন

  • নাগরিক তরুণ শক্তি
  • নাগরিক নারী শক্তি
  • নাগরিক কৃষক শক্তি
  • নাগরিক শ্রমিক শক্তি
  • নাগরিক ছাত্র শক্তি
  • নাগরিক ওলামা শক্তি
  • নাগরিক পাহাড়ি শক্তি
  • নাগরিক হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য শক্তি
  • নাগরিক গণজাগরণ মঞ্চ
  • নাগরিক উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারি শক্তি
  • নাগরিক প্রবাসী কর্মী শক্তি 
উৎসাহী এবং যোগ্য হলে একই ব্যক্তি একাধিক পার্টি উইংগস এর সদস্য হতে পারেন। সবার মাঝে যত বেশি ইন্টারেকশান হবে তত ভাল।  

এসব পার্টি উইংগস এর শীর্ষপদধারীরা ন্যাশনাল কাউন্সিলের মাধ্যমে দলের সাথে যুক্ত হবেন
  • নাগরিক মুক্তিযোদ্ধা শক্তি
  • নাগরিক শিল্প ব্যবসায়ি শক্তি
  • নাগরিক ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ি শক্তি
  • নাগরিক আইনজীবী শক্তি
  • নাগরিক চিকিৎসক শক্তি
  • নাগরিক প্রকৌশলী শক্তি
  • নাগরিক সাংবাদিক শক্তি
সারা দেশের আইনজীবীদের সংগঠিত করার কাজ শুরু করতে হবে। একইভাবে সারা দেশের চিকিৎসকদের, প্রকৌশলীদের, ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়িদের, উদ্যোক্তাদের মাঝে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলে সংগঠিত করতে হবে।

অ্যাডভাইসারি কাউন্সিলের মাধ্যমে দলের সাথে যুক্ত হবেনঃ:
  • নাগরিক অর্থনীতি ফোরাম 
  • নাগরিক বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও শিক্ষা ফোরাম
  • নাগরিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ফোরাম
  • নাগরিক সামাজিক ব্যবসা ফোরাম
  • নাগরিক কৃষি ফোরাম
  • নাগরিক নগর পরিকল্পনা ফোরাম 
  • নাগরিক জাতীয় সম্পদ রক্ষা ফোরাম 
  • নাগরিক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা ফোরাম
  • নাগরিক নারী অধিকার রক্ষা ফোরাম 
  • নাগরিক ফরেইন পলিসি এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক ফোরাম 
  • নাগরিক শিল্প, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ফোরাম 

সর্বজন সম্মানিত ব্যক্তিদের আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত করে পার্টি উইংগসগুলো সংগঠিত করার কাজ শুরু করতে হবে। 



নাগরিক শক্তির এলাকাভিত্তিক সংগঠকদের দায়িত্ব নির্ধারণ করে দিতে হবে। 


যেমন –

জেলা পর্যায়ে

  • নারায়ণগঞ্জ জেলা নাগরিক শক্তি আহ্বায়ক কমিটি 
  • কক্সবাজার জেলা নাগরিক শক্তি আহ্বায়ক কমিটি
  • টাঙ্গাইল জেলা নাগরিক শক্তি আহ্বায়ক কমিটি
  • মুন্সিগঞ্জ জেলা নাগরিক শক্তি আহ্বায়ক কমিটি

সিটি কর্পোরেশান পর্যায়ে 

  • ঢাকা সিটি কর্পোরেশান নাগরিক শক্তি আহ্বায়ক কমিটি
  • চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশান নাগরিক শক্তি আহ্বায়ক কমিটি


এভাবে জেলা, উপজেলা, সিটি কর্পোরেশান, গ্রাম পর্যায়ের আহ্বায়ক কমিটি।


আহ্বায়ক মনোনয়ন 

  • নাগরিক তরুণ শক্তি

রাজনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত, তরুণ রাজনীতিবিদদের রোল মডেল, রাজনীতি এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় তরুণদের সংগঠিত করেছেন – ১ জন

তরুণদের এবং যুব সমাজকে সংগঠিত করার অভিজ্ঞতা আছে, করছেন; দেশের কল্যাণে কাজ করছেন, আরও করতে ইচ্ছুক – ১ জন

শিক্ষাগত যোগ্যতায় এবং কর্মক্ষেত্রে দেশের তরুণদের রোল মডেল – ১০ জন

দেশের তরুণদের সংগঠনের অংশ হিসেবে তরুণদের সংগঠিত করেছেন, নতুন বাংলাদেশের স্বপ্ন ঘরে ঘরে পৌঁছে  দিতে চান  – কয়েকজন 

  • নাগরিক ছাত্র শক্তি

প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়-কলেজ-মাদ্রাসায় সবার পছন্দের কয়েকজন আদর্শ ছাত্রছাত্রী। 

আমরা শিক্ষাঙ্গনে

  • জ্ঞান চর্চা 
  • জ্ঞানের আদান প্রদান 
  • ভবিষ্যৎ কর্মজীবনের জন্য নিজেকে তৈরি করা 
  • সুস্থ রাজনীতির চর্চা, শিক্ষাঙ্গনের বিভিন্ন সমস্যা নিজেরা সমাধান করা 
  • উদ্ভাবনী উদ্যোগ 

দেখতে চাই।

ছাত্রছাত্রীরা কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে, দেশের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে এবং সবকিছুর উপরে নিজেদের যোগ্য সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে দল বেঁধে কাজ করবে।

  • নাগরিক ওলামা শক্তি

দেশের আলেম ওলামাদের কাছে শ্রদ্ধেয় সম্মানিত বয়োজোষ্ঠ ব্যক্তি – ১ জন

সম্মানিত আলেম, দেশের আলেম ওলামাদের সংগঠিত করেছেন – ৬ জন

  • নাগরিক গণজাগরণ মঞ্চ

দেশের তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে অগ্রগণ্য ভূমিকা পালন করেছেন – ৭ জন

  • নাগরিক উদ্যোক্তা ও ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারি শক্তি

দেশে একটা ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিভলিউশান এর সূচনায় তরুণ প্রজন্মকে সংগঠিত করতে চান, উদ্যোক্তা বা ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী হিসেবে কাজ করছেন – ১০ জন

সম্মানিত সিনিয়ার মুক্তিযোদ্ধাদের আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত করে নাগরিক মুক্তিযোদ্ধা শক্তি সংগঠন।
সম্মানিত সিনিয়ার আইনজীবীদের আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত করে নাগরিক আইনজীবী শক্তি সংগঠন।
সম্মানিত সিনিয়ার চিকিৎসকদের আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত করে নাগরিক চিকিৎসক শক্তি সংগঠন।
সম্মানিত সিনিয়ার প্রকৌশলীদের আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত করে নাগরিক প্রকৌশলী শক্তি সংগঠন।
সম্মানিত সিনিয়ার শিল্প ব্যবসায়িদের আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত করে নাগরিক শিল্প ব্যবসায়ি শক্তি সংগঠন।
সম্মানিত সিনিয়ার সাংবাদিকদের আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত করে নাগরিক সাংবাদিক শক্তি সংগঠন।

আহ্বায়ক মনোনয়ন
জেনেরাল সেক্রেটারি সাহেব কো-জেনেরাল সেক্রেটারি সাহেবদের পরামর্শের ভিত্তিতে প্রেসিডেন্ট এবং এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট সাহেবের অনুমোদন সাপেক্ষে মনোনয়ন দেবেন।

 

দলীয় কর্মসূচী 

জরুরি বিষয় বাদে দলীয় রাজনৈতিক কর্মসূচী ছুটির দিনগুলোতে দেওয়া হবে। এতে অর্থনীতির উপর, জনগণের উপর ক্ষতিকর প্রভাবও পড়বে না, জনসমাগমও বেশি হবে। নাগরিক শক্তি সব দলকে একই পথ অনুসরণ করতে আহ্বান জানাবে।

রেফরেন্স
[1] আদর্শ রাজনৈতিক দলের নির্বাচনী পরিকল্পনা – ২
[2] আদর্শ রাজনৈতিক দলের নির্বাচনী পরিকল্পনা – ১

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে স্বৈরতান্ত্রিক চেতনা

বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের ন্যায্য অধিকার ছিল না বলে, গনতান্ত্রিক অধিকার ছিল না বলে, ৭০ এর নির্বাচনে জয়ী হয়েও আমরা সরকার গঠন করতে পারিনি বলে, ৭১ এ “ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে” তুলে আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম। আজ যে দলটি জনগণের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা তো দূরের কথা – ন্যায্য অধিকার কেড়ে নিয়েছে এবং একটি তামাশার নির্বাচনের মাধ্যমে গনতন্ত্রকে ভূলুণ্ঠিত করেছে, সেই দলটি কিভাবে দাবি করে, তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করছে?

আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুন্নত রাখার মত যে প্রশংসনীয় কাজটি করেছে তা হল মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মুখোমুখি করিয়েছে। কিন্তু এই আওয়ামী লীগকে এবং আওয়ামী লীগ সভানেত্রীকে আমরা ৯৬ এর নির্বাচনের আগে জামায়াতে ইসলামী এবং মানবতাবিরধী যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজমের সাথে দহরম মহরম দেখেছিলাম।

বিদেশী শক্তিকে তুষ্ট করতে যারা দেশের স্বার্থ বিরোধী চুক্তি করতে দ্বিধা করে না তাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দাবি আজ বড় হাস্যকর শোনায়। (জনসমর্থনহীন একদলীয় স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করতে বিদেশী শক্তির সমর্থনের মুখাপেক্ষী হতে হয়।)

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার দাবি এবং আওয়ামী লীগের বিরোধিতাকারি সবাইকে যুদ্ধাপরাধীদের দোসর এবং সাম্প্রদায়িক হিসেবে মিথ্যা প্রোপাগান্ডা চালানো ভোটার টানতে আওয়ামী লীগের মার্কেটিং স্ট্রাটেজি ছাড়া কিছুই না। যিনি এমন ব্যবসা চালু করেছেন যেখান থেকে মালিক শুধুমাত্র প্রাথমিক বিনিয়োগ তুলে নেওয়া ছাড়া কোন লভ্যাংশ নেবেন না এমন আদর্শ ব্যক্তিকেও “ঘুষখোর” হিসেবে আওয়ামী লীগ মিথ্যা প্রোপাগান্ডা চালিয়েছে।

ক্ষমতার লোভে দেশ বিকিয়ে দিয়ে আসবেন না – এতটুকু আস্থাও আমরা রাখতে পারছি না।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দাবিদার দলটি আজ আইন শৃঙ্খলা বাহিনী, বিচার বিভাগ তথা সমগ্র প্রশাসনকে সম্পূর্ণভাবে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করে স্বৈরতান্ত্রিক চেতনাকে ধারণ করছে।

“মুক্তিযুদ্ধ নামাবলী গায়ে দিলেই যা খুশি তাই করবার এখতিয়ার তৈরি হয় না। ১৯৭১ এ মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলো স্বৈরতন্ত্র সাম্প্রদায়িকতা আধিপত্য আর বৈষম্যের বিরুদ্ধে, মানুষের মুক্ত একটি ভূখন্ডের জন্য। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা তাই কখনোই চোর ডাকাত আর সন্ত্রাসীদের কাছে জিম্মি হতে পারে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা মানে কখনোই মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার বিসর্জন দেওয়া হতে পারে না। গণতন্ত্রের সঙ্গে কখনো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা-র বিরোধিতা হতে পারে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কখনোই নিপীড়ন, প্রতারণা, বর্বরতা, বৈষম্য, আধিপত্য সমর্থন করতে পারে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কখনোই অপরাধীদের অপরাধের বর্ম হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের চিহ্ন ব্যবহার অনুমোদন করতে পারে না।”

– আনু মুহাম্মদ, অর্থনীতিবিদ ও অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

আরওঃ

রেফরেন্স
১. ৭০ এর সাধারণ নির্বাচন
২. Autocracy বা স্বৈরতন্ত্র
৩. Jamaat-e-Islami Pakistan

ফলোআপ
দেশ বিকিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া কি তবে শুরু হয়ে গেছে?
ক্ষমতার লোভে কি আমরা কি টেস্ট খেলার অধিকার হারাবো?
“The reality for the BCB is that we cannot afford to go against the BCCI,” the BCB director said. “..majority in the board believe that favouring India would be the best option for us.”
আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহ্বান সাবেরের

আওয়ামী লীগ জানে, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে তারা কখনই ক্ষমতায় আসতে পারবে না। কাজেই মরিয়া হয়ে ক্ষমতা ধরে রাখতে বিদেশী শক্তিকে তুষ্ট করতে একদিকে তারা দেশ বিকিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া আরও চরমভাবে শুরু করবে এবং অন্যদিকে জনগণের মৌলিক অধিকার লঙ্ঘনসহ সংবিধান লঙ্ঘন করবে।

নাগরিক শক্তি জনগণকে নিয়ে দেশের জনগণ, সম্পদ এবং সর্বোপরি সার্বভৌমত্ব রক্ষা করবে।  

প্রোগ্রামিং এ হাতেখড়ি

কম্পিউটারের সবচেয়ে মজার ব্যাপার কি জানো?

আরে নাহ, গেইমিং না। গান শোনাও না। আর কিছু? ইন্টারনেট ব্রাউজিং? বলতে পারো। তবে এর চেয়েও মজার ব্যাপার কম্পিউটারকে প্রোগ্রামিং করা।

প্রোগ্রামিং জানলে গেইম শুধু খেলা না, নিজের মত গেইম বানিয়েও নিতে পারবে। পারবে নিজের মত মিউসিক প্লেয়ার বানিয়ে নিতে। এমনকি বিক্রয়.কম এর মত একটা ই-কমার্স প্লাটফর্মও বানিয়ে ফেলবে। ফেইসবুকে তো অ্যাকাউন্ট আছে, তাই না? প্রোগ্রামিং জানলে সেই ফেইসবুকের জন্য একটা অ্যাপ্লিকেশান বানিয়ে নিতে পারবে। তারপর বন্ধুরা মিলে অ্যাপ্লিকেশানটা ব্যবহার করবে! অ্যান্ড্রয়েড ফোনটার জন্য অ্যাপ্লিকেশান তৈরি করতে ইচ্ছে করেছে কখনও? আর দেরি না করে প্রোগ্রামিং এ দক্ষ হয়ে ওঠ!

এগুলো কয়েকটা উদাহরণ। কম্পিউটারকে দিয়ে প্রায় যে কোন কিছু করিয়ে নেওয়া যায়। আর কি করিয়ে নেওয়া যায় তা শুধুমাত্র আমাদের প্রোগ্রামিং ক্ষমতা দিয়ে সীমাবদ্ধ। আরও কিছু ব্যাপার আছে অবশ্য। যেমন, অনেক কাজ করিয়ে নিতে কম্পিউটারের সাথে যন্ত্র সংযোগ দিতে হয়। আবার কিছু কাজ প্রোগ্রামিং দিয়ে করিয়ে নিতে এত বেশি সময় লাগে (আমরা বলি Computational Complexity বেশি) যে একদম সঠিক সমাধান না বের করে বিকল্প পথ খুঁজতে হয়।

প্রোগ্রামিং এর মূল আকর্ষণ – “তৎক্ষণাৎ ফিডব্যাক” (Instant Feedback)। মানে তুমি একটা প্রোগ্রাম লিখে সাথে সাথে রান করে তোমার প্রোগ্রামের কাজ দেখতে পাবে। একটা ইলেক্ট্রনিক সার্কিট বানিয়ে কাজ দেখতে সময় লাগে। কিন্তু প্রোগ্রামিং এ ব্যাপারটা তৎক্ষণাৎ – তুমি কম্পিউটারে বসে প্রোগ্রাম লিখবে আর সাথে সাথে রান করিয়ে কাজের ফলাফল দেখবে!

তা, সবকিছু যখন এই প্রোগ্রামিং দিয়ে করিয়ে নেয়া যায়, প্রোগ্রামিং করে কিভাবে?

দারুণ প্রশ্ন!

তুমি যদি কাউকে দিয়ে একটা কাজ করিয়ে নিতে চাও, কিভাবে করাও? তাকে কাজের নির্দেশ দিয়ে দাও আর সে নির্দেশ মত কাজ করে। তাই না? প্রোগ্রামিং এও ব্যাপারটা একইরকম। তুমি কম্পিউটারকে দিয়ে একটা কাজ করিয়ে নিতে চাও। কাজেই প্রোগ্রামিং করার সময় কম্পিউটারকে নির্দেশ দিবে আর কম্পিউটার তোমার নির্দেশ মত কাজটা করবে।

একটা সুনির্দিষ্ট কাজ করার জন্য নির্দেশমালার সমষ্টি হল এক একটা প্রোগ্রাম।

এখানে একটা সমস্যা আছে – কম্পিউটার তো তোমার-আমার ভাষা বোঝে না। বুঝলে কি যে মজা হত! আমরা বাংলা বা ইংরেজিতে চটপট সব বলে দিতাম আর কম্পিউটার ঝটপট সব করে ফেলত!

তাহলে?

কম্পিউটার আমাদের ভাষা না বুঝলেও ‘সুনির্দিষ্ট কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলে’ এমন ভাষা বোঝে। সেই ভাষাগুলো একেবারে বাংলা-ইংরেজির মত না হলেও, কাছাকাছি। কম্পিউটারকে প্রোগ্রামিং করতে সেই সব সুনির্দিষ্ট নিয়ম কানুন মেনে চলা ভাষায় (কম্পিউটার বিজ্ঞানীরা ভাষাগুলোকে বলেন Context Free Language) নির্দেশ দিতে হয়।

বাস্তব উদাহরণে আসি।

একটা সাধারণ ক্যালকুলেটরকে আমরা কিভাবে ব্যবহার করি? আমরা ইনপুট হিসেবে কিছু ডেটা (এখানে সংখ্যা) আর ডেটার উপর কোন অপারেটার (যেমন যোগ, গুণ ইত্যাদি) প্রয়োগ করা হবে তা নির্ধারণ করে দেই। ক্যালকুলেটর ডেটার উপর অপারেটার প্রয়োগ করে ফলাফল আউটপুট হিসেবে দেখায়।

এখন আমরা নিজেরাই যদি অপারেটার বানিয়ে দিতে পারতাম তাহলে অনেক মজা হত না? আমরা একটা অপারেটার বানাতাম কয়েকটা সংখ্যা ইনপুট হিসেবে দিলে তাদের গড় বের করার জন্য। আরেকটা বানাতাম নির্দিষ্ট সংখ্যক মৌলিক সংখ্যা আউটপুট হিসেবে দেখানোর জন্য। আরও কত কত আইডিয়া বের করতাম!

প্রোগ্রামিং এর দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে প্রোগ্রামাররা নির্দেশ দিয়ে অপারেটারগুলো বানায়। অন্যদিকে, ব্যবহারকারী ডেটা আর ডেটার উপর কোন অপারেটার প্রয়োগ করা হবে তা ইনপুট হিসেবে দেয়। আর ফলাফল আউটপুট হিসেবে দেখে।

 

যেমন মাইক্রোসফট আমাদের জন্য মাইক্রোসফট ওয়ার্ড সফটওয়্যারটা বানিয়েছে। আমরা কিছু অক্ষর ইনপুট দেই। আবার কিছু অপারেটার (যেমন অক্ষর বোল্ড বা ইটালিক করা) নির্দিষ্ট করে দেই। ওয়ার্ড আমাদেরকে ফলাফল স্ক্রীনে দেখায়।

আমরা বুঝলাম, প্রোগ্রামিং করা বলতে বোঝায় কম্পিউটার বোঝে এমন ভাষায় কম্পিউটারকে কিছু করতে নির্দেশ দেওয়া।

এখন প্রশ্ন হল, এ নির্দেশগুলো কিরকম?

আমরা নিজেরাই একটু ভাবি।

ধরা যাক, আমরা কয়েকটি সংখ্যার গড় বের করতে চাইছি। এর জন্য নির্দেশমালা কেমন হতে পারে?

উপরের ফ্লো চার্টের মতই কম্পিউটারকে তার নিজস্ব ভাষায় নির্দেশ দিতে হয়।

প্রতিটা নির্দেশই কি বলে দিতে হয়?

হুম।

তাহলে ছোটখাট কাজ করতেও তো অনেক বড় প্রোগ্রাম লিখতে হবে – এমনটা ভাবছ?

প্রোগ্রামিং সহজ এবং ছোট করার জন্য কম্পিউটার বিজ্ঞানীরা সমাধান বের করেছেন এবং এই বিষয়ে এখনও কাজ চলছে। মূল আইডিয়াটা হল অ্যাবস্ট্রাকশান (Abstraction) তৈরি করা।

ধর, তুমি কাউকে ঢাকা থেকে চিটাগং যাওয়ার নির্দেশ দিচ্ছ। এখন তাকে যদি প্রতিটা ধাপ বলে দিতে হয়, তাহলে তো লক্ষ লক্ষ নির্দেশ লাগবে।

প্রথমে ডান পা টা ফেলবে। তারপর বাম পা টা। এভাবে ১০ ধাপ। তারপর ডানদিকে। …… তারপর ডান পা উপরে তুলে বাসে উঠবে। ………

এই লক্ষ লক্ষ নির্দেশ দেওয়ার কাজটা সহজ করার উপায় কি?

সহজ করার উপায় হচ্ছে – পুরো ব্যাপারটাকে ছোট ছোট কাজে ভাগ করে ফেলা। তারপর ছোট ছোট কাজগুলো প্রত্যেকটার ডিটেইলস লেখা আর নাম দিয়ে দেওয়া।

এরপর কাজের নাম বলে দিলেই হল – সে কাজটা করে দিতে পারবে।

উদাহরণে ফিরে আসি।

ওই যে একটা লোককে ঢাকা থেকে চিটাগং যাওয়ার নির্দেশ দিচ্ছিলে না, এবার অ্যাবস্ট্রাকশান ব্যবহার করে তুমি তাকে শুধু কাজের নাম বলে দিবে।

প্রথমে একটা রিকশা নিয়ে বাসস্টান্ডে। (লক্ষ লক্ষ নির্দেশ দিয়ে এই অ্যাবস্ট্রাকশানটা তুমি তৈরি করেছ বা কেউ তোমাকে তৈরি করে দিয়েছে। )

বাস নিয়ে চিটাগং। (এটাও একটা অ্যাবস্ট্রাকশান। একইভাবে তৈরি করা। )

চিটাগং পৌঁছে রিকশা নিয়ে বাড়িতে। (এটা আরেকটা অ্যাবস্ট্রাকশান। এটাও লক্ষ নির্দেশের সমষ্টি।)

এবার অনেক সহজ হয়ে গেছে না?

ছোট কাজগুলো আলাদা আলাদা ভাবে ভাগ করে নাম দিয়ে দেওয়াই অ্যাবস্ট্রাকশান (Abstraction) তৈরি করা। অ্যাবস্ট্রাকশান তৈরি করে নিতে পারলে শুধু কাজের নাম জানলেই হবে, ভেতরের ডিটেইলস জানা লাগবে না।

কাজের পাশাপাশি আরও অনেক ব্যাপার অ্যাবস্ট্রাকট করা যায়। কম্পিউটার কিভাবে ডেটা গুছিয়ে রাখবে তারও অ্যাবস্ট্রাকশান আছে।

আমাদের সংখ্যার গড় বের করার প্রোগ্রামেও একইভাবে অ্যাবস্ট্রাকশান ব্যবহার করা যায়। কেউ যদি এমন একটা অ্যাবস্ট্রাকশান তৈরি করে দেয় যা কয়েকটি সংখ্যা নিয়ে তাদের গড় বের করে দেবে এবং তার নাম দেয় “গড়”, তবে তুমি তোমার প্রোগ্রামে “গড়” অ্যাবস্ট্রাকশানটির কাছে কিছু সংখ্যা পাঠিয়ে দেবে আর “গড়” অ্যাবস্ট্রাকশানটি সংখ্যাগুলোর গড় বের করে তোমাকে দেবে। এভাবে তোমার কাজ সহজ হয়ে গেল।

এভাবে অ্যাবস্ট্রাকশান ব্যবহার করে প্রোগ্রামিং সহজ এবং ছোট করা যায়।

মজার না?

এবার আমরা আমাদের ধারণাগুলো কম্পিউটারে কিভাবে প্রয়োগ করা যায় তা দেখবো।

কয়েকটি সংখ্যার গড় বের করার নির্দেশগুলো আমরা লিখেছিলাম।

এই নির্দেশগুলোকে কম্পিউটারে প্রোগ্রাম হিসেবে কিভাবে লিখে?

একটা ব্যাপার আমরা ইতিমধ্যেই জেনেছি – প্রোগ্রাম লেখার জন্য কম্পিউটারের ভাষা আছে। একটা দুইটা না – অনেক। একটু ভাল প্রোগ্রামার হয়ে উঠলে তুমি নিজেও একটা ভাষা বানিয়ে নিতে পারবে। তারপর সেই ভাষায় কম্পিউটারকে নির্দেশ দিতে পারবে।

ব্যাপারটা কিভাবে সম্ভব – ভাবছ?

ক্যালকুলেটারে যেভাবে যোগবিয়োগ করা যায়, সেভাবে কম্পিউটারের ইলেকট্রনিক্স অনেক কিছু করতে পারে। আমরা করি কি নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলে এমন একটা ভাষায় আমাদের প্রোগ্রাম লিখি। তারপর যে ভাষায় প্রোগ্রাম লিখেছি সেই ভাষার কম্পাইলার বা ইন্টারপ্রেটার আমাদের প্রোগ্রামটাকে কম্পিউটারের ইলেক্ট্রনিকস যন্ত্রাংশ বোঝে এমন ভাষায় রুপান্তর করে। আর কম্পিউটারের ইলেকট্রনিক্স নির্দেশগুলো পালন করে।

 

তুমি নিজে একটা ভাষা বানিয়ে সেই ভাষায় কম্পিউটারকে নির্দেশ দিতে চাইলে তোমার সৃষ্টি ভাষাটার জন্য একটা কম্পাইলার বা ইন্টারপ্রেটার বানাতে হবে।

ব্যাপারটা অনেকটা বাস্তব “ইন্টারপ্রেটার” এর মতই। ধর, তুমি চায়নায় গিয়েছ। তুমি ওদের ভাষা “ম্যান্ডারিন” পারো না। একজন ইন্টারপ্রেটার জোগাড় করতে পারলে, সে তোমার বাংলাকে ম্যান্ডারিনে রূপান্তর করে দেবে।

বোঝা যাচ্ছে, এবার আমাদের কম্পিউটারের ভাষাগুলো কেমন তা বুঝতে হবে।

অনেকগুলো নির্দেশ নিয়েই তো আমাদের প্রোগ্রাম।

এক একটা প্রোগ্রামিং ভাষা বলে দেয় –

১. এক একটা নির্দেশ কিভাবে লিখতে হয়।

২. নির্দেশগুলো কিভাবে সাজিয়ে রাখতে হয় যাতে একটার পর একটা নির্দেশ পালিত হয়।

৩. অ্যাবস্ট্রাকশান কিভাবে তৈরি করতে হয়।

প্রথমে দেখি, এক একটা নির্দেশ কিভাবে লিখতে হয়

এক একটা নির্দেশকে ধরি এক একটা বাক্য।

ধরি, একরকম বাক্য গঠিত হয় Noun Phrase এর পর Verb Phrase বসিয়ে।

বাপারটাকে আমরা লিখি এভাবে-

বাক্য -> Noun Phrase + Verb Phrase

Noun Phrase গঠিত হয় Noun দিয়ে।

Noun Phrase -> Noun

Noun হতে পারে তাহসিন, আলিফ, রাইসা এসব।

Noun -> তাহসিন অথবা আলিফ অথবা রাইসা

একইভাবে আমরা সংক্ষেপে লিখি –

Verb Phrase -> Adjective + Verb Phrase অথবা Verb

Adjective -> দশপা অথবা সামনে

Verb -> এগুবে

এই ভাষা ব্যবহার করে আমরা লিখতে পারিঃ

তাহসিন দশপা সামনে এগুবে।

কিভাবে?

বাক্য -> Noun Phrase + Verb Phrase ->

Noun + Adjective + Verb Phrase ->

Noun + Adjective + Adjective + Verb Phrase ->

Noun + Adjective + Adjective + Verb ->

তাহসিন দশপা সামনে এগুবে।

একটা প্রোগ্রামিং ভাষায় সম্ভাব্য সবরকম বাক্য কিভাবে লেখা যায় তা নির্ধারিত থাকে। আর প্রত্যেক রকম বাক্য কিভাবে কম্পিউটার ইলেকট্রনিক্স বোঝে এমন ভাষায় রূপান্তরিত করা যায় তার উপায় থাকে কম্পাইলার বা ইন্টারপ্রেটারে।

কম্পাইলার বা ইন্টারপ্রেটার করে কি

  • বাক্যটা কি ধরণের তা বোঝার চেষ্টা করে। এই ধাপটাকে বলে Parsing
  • চেনার পর, এই ধরণের বাক্যকে কিভাবে কম্পিউটার ইলেকট্রনিক্স বোঝে এমন ভাষায় রূপান্তরিত করা যায় তার যে নিয়ম আছে, সেই নিয়ম অনুসারে বাক্যটাকে অনুবাদ করে।  

তারপর কম্পিউটার ইলেকট্রনিক্স নিজেই বোঝে বাক্যটা দিয়ে প্রোগ্রামার কি বোঝাতে চেয়েছিল।
ওই যে বলেছিলাম, ব্যাপারটা অনেকটা বাস্তব “ইন্টারপ্রেটার” এর মতই।

কাজেই আমরা দেখলাম, এক একটা নির্দেশ কিভাবে লিখতে হয়।

এবার দেখবো, নির্দেশগুলো কিভাবে সাজিয়ে রাখতে হয় যাতে একটার পর একটা নির্দেশ পালিত হয়

নির্দেশ সাজানোর অনেক উপায় আছে। ভিন্ন ভিন্ন ধাঁচের প্রোগ্রামিং ভাষায় ব্যাপারটা ভিন্ন ভিন্ন।

আমাদের দেখবো Structured Programming এ কিভাবে নির্দেশগুলো সাজিয়ে রাখে।

নির্দেশ সাজানোর একটা উপায় বোঝা যাচ্ছে – কাজের কোন ধাপের পর কোন ধাপ পালন করতে হবে তা একটার পর একটা লিখব। এভাবে আমরা একটার পর একটা নির্দেশ লিখব।

প্রথমে ক কাজটা করবে,

তারপর করবে খ কাজটা,

এভাবে।

মাঝে মাঝে অবস্থার উপর নির্ভর করে তাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এমন ক্ষেত্রে নির্দেশ দিতে হবে, কখন কি করতে হবে।

যদি ক ঘটে

       তবে খ করতে হবে,

আর যদি গ ঘটে

তবে ঘ করতে হবে,

এভাবে।

আবার কখনও একই কাজ বেশ কয়েকবার করতে হবে। এমন ক্ষেত্রে নির্দেশ দিতে হবে কোন কাজগুলো বারবার করতে হবে।

যতক্ষণ ক হচ্ছে

ততক্ষণ খ করতে থাকো।

Structured Programming মডেলে এই তিনরকম নির্দেশ এর সমাবেশ এর মাধ্যমে কম্পিউটারকে দিয়ে বিভিন্ন কাজ করিয়ে নেওয়া হয়।

১. একটার পর একটা ধারাবাহিক নির্দেশগুলোকে Structured Programming এর ভাষায় বলে Sequential instructions.

২. অবস্থার সাপেক্ষে সিদ্ধান্ত নেওয়া ব্যাপারটাকে Structured Programming এ বলে Branching

৩. একই কাজ বারবার করাকে বলে লুপিং (Looping)

প্রোগ্রামিং ভাষায় আর যে ব্যাপারটা থাকে তা হল বিভিন্ন রকম অ্যাবস্ট্রাকশান কিভাবে তৈরি করা যায়। অ্যাবস্ট্রাকশান অনেক রকম হতে পারে। কাজ অ্যাবস্ট্রাকট (Functional Abstraction) করা যায়। ডেটাও অ্যাবস্ট্রাকট (Data Abstraction) করা যায়। আবার ওই যে লুপিং দেখলাম – লুপ একরকম কন্ট্রোল অ্যাবস্ট্রাকশান (Control Abstraction)

মোটামুটিভাবে, এগুলোই হল প্রোগ্রামিং এর মূল ব্যাপার।

কি? এখনও বসে? দেরি না করে নিজে প্রোগ্রাম লেখা শুরু কর। নিজের একটা গেইম বানাতে ইচ্ছে করে না বুঝি!

দেখতে পারো

 

Healthcare Reform

The initiative to make sure more people get health-care insurance coverage – the Affordable Care Act, popularly known as the Obama-care, should be seen as positive. 


Ensuring health-care of citizens is a duty of the government. Who else will come forward to take the responsibility of ensuring healthcare of citizens who need it most?

But why do we have so little enrollment? One reason is surely the failure of the website to respond. With the best and brightest Software Engineers in our country, it can’t be a big problem.

Are there other reasons? It’s a new system all together. Is the website too difficult to navigate and use, especially to the people (who are economically lagging and thus technologically lagging) for whom the whole reform is targeted? Why don’t we educate people on how to use the site? We can extend the time of getting insured in the marketplace and let people spend more time to familiarize themselves with the new system.

We can make necessary changes so that those who want to keep their previous insurances can do so.

It’s a new system – we have to solve problems as we face them along the way.

In the meantime, we can come up with creative solutions that solve problems our health-care system face, solutions that minimize costs but are still more effective and reach more people. American Healthcare System is under-performing and a lot more expensive compared to other developed countries.

Why not prioritize disease prevention programs and motivational programs that encourage healthy lifestyle choices so that we have less sick people to start with? Obesity and poor lifestyle choices are surely among causes of diseases. Less sick people translates into less visits to doctors and less visits to doctors translate into less health insurance prices. If health insurance prices go down, more people would have health insurances.

Let’s try to understand it through an example.

Suppose, visits to doctor cost a person say, “A” $100 a month and another person say, “B” $50 a month. Now, the insurance company that sells healthcare insurances to “A” and “B”, sells each of the monthly insurances for $80. So, “A” and “B” together spend $80 + $80 = $160 to buy their insurances and the insurance company has to spend $100 + $50 = $150 to bear the cost of visits to doctor. Now, suppose “A” and “B” learned to take better care of their health. As a result, they have monthly healthcare costs of $60 and $40 respectively. Now, the insurance company has no way but to reduce their insurance fees. Thus, by taking better care of their health, “A” and “B” forced the insurance companies to reduce prices for insurance.


There can be so many different solutions to different inter-related problems if only we are wise enough to “define” the “problem” we want to solve creatively!

Iran – Western Relation: Win-win, Positive-Sum Outcome?

[December 26, 2013]

#TowardsWorldPeace  #TowardsNuclearWeaponFreeWorld

The deal between P5 + 1 and Iran should prove to be revolutionary.


Years of opposition and suspicion from both sides. 

A lot of conflicts arise between people who have closed dependent minds. They divide the world into black and white, right and wrong with nothing in between. They view their way as the only right one and others’ as wrong ones. They never try to be themselves, instead following the path others have shown them without much consideration or reflection.

People in general categorize everything they see around them into different predefined categories. It helps them make quick decisions because they know what to do with a certain category.

But how can we be so sure that the categories and the knowledge associated with each category, that our society and culture has taught us, is correct? Why not think for ourselves?

Just because your co-workers or friends taught you that an Idea or Concept, say “A”, is bad, does not necessarily make “A” bad. It’s your duty to think earnestly – with your own judgement and find out the true nature of the Concept “A” and judge its merits and demerits.

In the age of Globalization, in the age of open and interdependent economies, we would like to see a more connected world.

People in Iran elected moderate Rouhani as their President this year. They wanted to see change. It’s evident that President Barack Obama wants to see change as well.

We would like to see peaceful use of Nuclear Energy by Iran and gradual and careful withdrawal of sanctions by Westerners.


American companies should make the most of it. 
Win-win, Non zero-sum.
A game where a player wins 5 points and his opponent loses 5 points is Zero-sum. 5+(-5) = 0. In a zero-sum game, the more a player wins, the more his opponent loses.
On the other hand, in a Non Zero-sum game, the outcome is not zero. For example, if a player wins 5 points and his opponent wins 4 points, the overall outcome is 5 + 4 = 9. If the outcome of the Game is a Positive number, then it’s a Positive-sum Game. [Game Theory]
It’s win-win – both wins.

And that’s what we are looking for: Win-win, Positive-Sum Outcome!  #TowardsWorldPeace

Progress towards Deal

[Edited: 04.03.15 (Friday) ]

Immigration Reform

Looks positive for the American Economy.


More tax from legalized immigrants (currently undocumented).
More “Brains”. Bright foreign students with American Education and Smart Entrepreneurs joining the American economy (rather than leaving for his / her emerging country). As is evident from FWD.US, high tech companies enthusiastically support the immigration reform. They want to turn more of smart foreign Engineers into American Engineers.

America is a country of immigrants. Our immigrants have added to the diversity and to the economy, won awards and prizes for us, brought about changes for good and made us proud.

But we gotta look out for Border security.

নাগরিক শক্তির নির্বাচনী ইশতেহারের রূপরেখা

নাগরিক শক্তির নির্বাচনী ইশতেহারে যেসব বিষয় থাকবেঃ

  1. শিক্ষা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। প্রত্যেকটা মানুষ তার সুপ্ত ক্ষমতাকে জাগিয়ে তুলে এক একটা বিশাল শক্তি হয়ে উঠতে পারে শিক্ষার মাধ্যমে। জ্ঞান আর মেধা দিয়ে জীবনে সবকিছু অর্জন করা যায়। যে কেউ প্রায় যে কোন বয়সে সঠিকভাবে চেষ্টা করলে যে কোন কিছু হয়ে উঠতে পারে – এই বিশ্বাসটা সবার মধ্যে জাগিয়ে তুলতে হবে। মানুষগুলোকে জাগিয়ে তুলতে পারলে আর কিছু লাগবে না। (শিক্ষা শুধুমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় সীমাবদ্ধ না, আমরা চাইলে জীবনের প্রতিটা মুহূর্তে চারপাশ থেকে শিখতে পারি।) ইতিহাসের যে কোন সময়ের তুলনায় নিজেকে উপরে তোলার সুযোগও সবচেয়ে বেশি আমাদের প্রজন্মের। আধুনিক প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন আমাদের হাতে দিয়েছে অনন্য সব আবিষ্কার – মানুষ এখন যে কোন প্রান্তে বসে যে কোন কিছু শিখতে পারে, যে কারও সাথে যোগাযোগ করতে পারে, কোটি মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারে, কাজ করতে পারে, পারে আয় রোজগার করতে।
  2. দেশের ৫০ ভাগ মানুষের বয়স ২৩ বা তার কম। এই বিশাল তরুণ প্রজন্মকে, যারা কর্মক্ষেত্রের জন্য নিজেদের তৈরি করছে, তাদের অগ্রাধিকার দিয়ে গড়ে তোলা হবে (এবং সাথে বাবসা বান্ধব, বিনিয়োগ বান্ধব, উদ্যোক্তা বান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলা লক্ষ লক্ষ তরুনের জন্য) যাতে তারা নিজেদেরকে এবং দেশকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারে। (একটা সামগ্রিক পরিকল্পনা – কত হাজার তরুনের শিক্ষা, দক্ষতা কোথায়, তাদের কর্মসংস্থান / উদ্যোগ কিরকম হতে পারে।)
  3. বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সূচকে (মাথাপিছু আয়, জিডিপি প্রবৃদ্ধি, দুর্নীতি হ্রাস ইত্যাদি) উন্নতিকে লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে নেওয়া হবে। কিছু সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রার উল্লেখ থাকবে ইশতেহারে। বিভিন্ন সূচকে উন্নতিকে লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে নিয়ে কর্ম পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হবে – 
    • জিডিপি প্রবৃদ্ধির হারকে যত দ্রুত সম্ভব ৮% এ উন্নীত করা হবে এবং লক্ষ্য অর্জিত হলে ১০% কে লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে নেওয়া হবে।
    • মাথাপিছু আয়ের দিক দিয়ে প্রতিবেশী দেশগুলোকে ছাড়িয়ে যাওয়ার লক্ষ্য থাকবে।
    • দুর্নীতি দমন সূচকে ব্যাপক উন্নতি আনা হবে।
    • অপরাধ শক্তভাবে দমন করে বিভিন্ন অপরাধ দমন সূচকে উন্নতি ঘটানো হবে।
    • বিভিন্ন সামাজিক সূচকে (যেমন শিক্ষা, শিশু মৃত্যু হার, আয়ুষ্কাল ইত্যাদি) লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা হবে।
    • নিজেদের মানদণ্ডে নিজেদের সাফল্য, অপরের বার্থতার প্রচার নয়, বরং আন্তর্জাতিক মানদণ্ডই সাফল্য – বার্থতার মূল্যায়ন করবে।
  4. বাবসা বান্ধব, বিনিয়োগ বান্ধব, উদ্যোক্তা বান্ধব, শিল্প বান্ধব নীতিমালা প্রনয়ন এবং বাস্তবায়ন।
    • অর্থনীতিবিদদের নেতৃত্বে “ন্যাশনাল ইকোনমিক অ্যান্ড প্ল্যানিং কাউন্সিল” গঠন। অর্থনীতিবিদদের নেতৃত্বে এই কাউন্সিলে যোগ দেবেন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, শিল্প বাবসায়ি, ক্ষুদ্র ও মাঝারি বাবসায়ি, প্রকৌশলী, নগর পরিকল্পনাবিদ, স্থপতি, পরিসংখ্যানবিদ, কৃষক এবং শ্রমিক সমাজের প্রতিনিধিরা।
    • উন্নত অবকাঠামো তৈরি + জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিতকরণ + রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা > অধিকতর বিনিয়োগ > জিডিপি প্রবৃদ্ধি।
    • দেশের জনগণকে ভয় দেখিয়ে, “জ্বালাও – পোড়াও” চালিয়ে, জানমালের ক্ষতি করে অর্থনীতির জন্য চরমভাবে ক্ষতিকর হরতাল পালনে কেউ যাতে বাধ্য করতে না পারে – সে লক্ষ্যে কঠোর বাবস্থা।
    • উদ্যোক্তাদের নতুন বাবসা শুরু করার প্রক্রিয়া সহজ করার জন্য বাবস্থা গ্রহণ – সমস্যাগুলো সমাধান করা। উদ্যোক্তাদের জন্য ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, ইঙ্কিউবেটার ফার্ম প্রতিষ্ঠায় সহায়তা
    • আইসিটি খাতকে অগ্রাধিকার দিয়ে এই খাতের বিকাশে সামগ্রিক পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন। দক্ষ আইসিটি পেশাজীবী, উদ্যোক্তা গড়ে তোলা, সারা দেশে দ্রুতগতির ইন্টারনেট ছড়িয়ে দেওয়া, আইসিটি ভিত্তিক শিল্প গড়ে তুলতে দূরদর্শী পরিকল্পনা হাতে নেওয়া।
    • বিভিন্ন সম্ভাবনাময় শিল্প (শিপ বিল্ডিং, পর্যটন শিল্প প্রভৃতি) কে চিহ্নিতকরণ, অগ্রাধিকার দিয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ, ক্ষেত্র সংশ্লিষ্ট সমস্যা সমাধান এবং বাস্তবায়ন।
    • বাংলাদেশকে বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির অফশোরিং এর কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন – অবকাঠামো, জ্বালানি, দক্ষ কর্মী, কূটনৈতিক উদ্যোগ, বিশ্বব্যাপী মার্কেটিং।
    • ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্পের বাবসায়িদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া
    • শেয়ারবাজার নিয়ে কেউ যাতে কারসাজি করতে না পারে সেই লক্ষ্যে বাবস্থা গ্রহণ। শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারিদের আস্থা ফিরিয়ে আনা। কোম্পানির মূল্যমান নির্ধারণে আন্তর্জাতিক মান নিশ্চিত করা।
    • ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে কঠোর বাবস্থা। ব্যাংক পরিচালনায় স্বচ্ছতা আনা। দেশের ফাইনান্সিয়াল সিস্টেমকে ঢেলে সাজানো।
    • বিভিন্ন সমস্যা (যেমন ঢাকার যানজট সমস্যা) নিরসনে সৃজনশীল কার্যকরী উদ্যোগ নেওয়া।
    • শিল্পের বিকাশে (যেমন – শুল্ক মুক্ত প্রবেশাধিকার ইত্যাদি) কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করা, কূটনৈতিক উদ্যোগ নেওয়া।
    • দেশের প্রকৌশলীরা বিভিন্ন শিল্পে উদ্ভাবনী কর্মকাণ্ডে আত্মনিয়োগ করবেন। তাদের উন্নত প্রশিক্ষনের বাবস্থা করা।
  5. দীর্ঘ মেয়াদি এবং স্বল্প মেয়াদি পরিকল্পনা হাতে নিয়ে বাজেট এ বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ দেওয়া এবং বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণ – বিভিন্ন মন্ত্রনালয়, স্থানীয় সরকারের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা। কর আদায়ে স্বচ্ছতা আনা। শুল্ক নির্ধারণে বেক্তি স্বার্থ নয়, বরং জাতীয় স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়া। যেমন সিগারেট আমদানির উপর শুল্ক বাড়ানো, কম্পিউটার এবং অন্যান্য তথ্যপ্রযুক্তি পণ্যের আমদানির উপর শুল্ক কমানো ইত্যাদি। কাস্টমসের দুর্নীতি বন্ধ করা। 
  6. বিভিন্ন মন্ত্রানলয় এবং স্থানিয় সরকারে বরাদ্দকৃত অর্থ পরিকল্পনা মাফিক ব্যয় নিশ্চিত করার জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া, প্রশিক্ষণ দেওয়া। অনিয়ম তদারক করতে দুর্নীতি দমন কমিশনকে সর্বাত্মক সহায়তা। পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সচিবালয়ের আধুনিকায়ন, কার্যকারিতা বাড়ানো।   
  7. শিক্ষাবিদদের পরামর্শের ভিত্তিতে শিক্ষার্থী – অভিভাবকদের মতামত নিয়ে প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত শিক্ষাবাবস্থার প্রতিটি পর্যায়ে আমূল সংস্কার আনা হবে। 
    • শিক্ষার্থীরা আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে নিজেরা শিখবে। 
    • পরীক্ষা পদ্ধতি, মূল্যায়ন পদ্ধতিতে সংস্কার আনা হবে। সৃজনশীল এবং বাস্তব জীবনে প্রয়োগ নির্ভর শিক্ষাবাবস্থা গড়ে তোলা হবে। 
    • শিক্ষার্থীরা মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে। বিভিন্ন অলিম্পিয়াড, প্রতিযোগিতা এবং অন্যান্য উদ্যোগের মাধ্যমে মেধাবী জাতি গড়ে তোলা হবে।
    • বাংলাদেশে বিশ্বমানের কয়েকটা বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় – ইন্ডাস্ট্রি এর মধ্যে যোগাযোগ গড়ে তোলা হবে। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমতি প্রদানে স্বচ্ছতা আনা হবে – ন্যূনতম মান নিশ্চিত করা হবে। 
    • উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষা কার্যক্রম যাতে অপরাজনীতির কারণে বাঁধাগ্রস্থ না হয় সে ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আমরা শিক্ষাঙ্গনে সুস্থ রাজনীতির চর্চা, উদ্ভাবনী উদ্যোগ দেখতে চাই – ছাত্রছাত্রীরা কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে, মানুষের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে দল বেঁধে কাজ করবে। 
    • মাদ্রাসা শিক্ষাবাবস্থার সংস্কার (সবার মতামতের ভিত্তিতে) – আধুনিক জ্ঞান বিজ্ঞান অন্তর্ভুক্তিকরন – যাতে তারা মেডিক্যাল, ইঞ্জিনিয়ারিং, বাবসা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে আরও বেশি সুযোগ পায়।
  8. দলীয় পরিচয়ের উরধে উঠে সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য ও নিরপেক্ষ বিচারের মাধ্যমে মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের সাজা দেওয়া হবে এবং জাতিকে গ্লানিমুক্ত করা হবে। এরপর সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ হবে।
  9. সবরকম অপরাধ শক্ত হাতে দমন করা হবে। অপরাধ হারে ব্যাপক হ্রাস আনা হবে। অপরাধী যত বড় হোক, আর অপরাধ যত ছোট হোক না কেন – অপরাধ করে কেউ পার পাবে না। আইনের চোখে সবাই সমান হবে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে। 
    • আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সরকারি প্রভাবমুক্ত করা, আধুনিক প্রযুক্তি এবং আধুনিক বিজ্ঞান (ফরেনসিক, ডিএনএ টেস্ট ইত্যাদি) সমৃদ্ধ করা, বেতন ভাতাবৃদ্ধি, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘুষ – দুর্নীতি বন্ধ, উন্নত প্রশিক্ষন, পুরস্কার প্রবর্তন। 
    • তদন্ত নিরেপেক্ষ এবং প্রভাবমুক্ত থেকে শেষ করা। 
    • শক্তিশালী দুর্নীতি দমন কমিশন এবং দলীয় রাজনীতির প্রভাবমুক্ত বিচার বিভাগ।
    • বিচারে দীর্ঘ সূত্রিতা দূর করা হবে। 
    • মাদকের বিস্তার রোধে কঠোর বাবস্থা। দেশে মাদকের প্রবেশ প্রবেশপথেই থামিয়ে দেওয়া হবে
    • সাইবার ক্রাইম রোধে কঠোর বাবস্থা নেওয়া হবে। দেশে এখন অনলাইন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ সরিয়ে ফেলা, ওয়েবসাইট সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট hack করা, মানুষের বাসাবাড়ি-বাথরুমে লুকিয়ে গোপন ক্যাম বসানো, কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার, গুজব রটিয়ে সহিংসতা ছড়ানো এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে আঘাত করার কাজে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ব্যবহার থেকে শুরু করে অনেক রকম সাইবার ক্রাইম ঘটছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তিতে উন্নত প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। সিকিউরিটি, ডিজিটাল ফরেন্সিকে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বাংলাদেশী বিশেষজ্ঞদের কন্সালটান্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হবে। কিন্তু জনগণের মত প্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ বন্ধ করা হবে। 
    • জনগণ অপরাধ এবং অপরাধীকে সামাজিকভাবে বয়কট / প্রতিহত করবে, ঘৃণার চোখে দেখবে।
  10. জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা 
    • ২০০১ নির্বাচন উত্তর সংখ্যালঘু নির্যাতন, রামু, পটিয়া, অন্যান্য হামলা এবং সাম্প্রতিক নির্বাচনকালীন হামলাগুলোর নিরপেক্ষ তদন্ত এবং সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমে বাংলাদেশে চিরদিনের জন্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠিত করা হবে।
    • কোন নির্দিষ্ট জাতি, ধর্ম, বর্ণের মানুষের উপর গুজব রটিয়ে বা অন্য কোন উপায়ে কোন রকম অন্যায় করা হলে, দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে আঘাত এলে, তদন্ত করে দায়ি বাক্তিদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে। 
    • দেশের জনগণ একতাবদ্ধ থেকে সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।
  11. দুর্নীতি দমন কমিশন, মানবাধিকার কমিশন, নির্বাচন কমিশন, আইন বিভাগকে (বিচারপতি এবং আইনজ্ঞদের পরামর্শ অনুসারে) সরকারি প্রভাবমুক্ত করে স্বাধীন, শক্তিশালী করে গড়ে তোলা হবে।
  12. দেশের রাজনীতিতে গুনগত পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে সবার মতামত, পরামর্শ নিয়ে শাসন বিভাগ, আইন বিভাগ এবং বিচার বিভাগের মধ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য রেখে, কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় সরকারের মধ্যে দায়িত্ব বণ্টনের বিধান রেখে সংবিধানে সংশোধন আনা হবে।
  13. শ্রমিকদের অধিকার সংরক্ষণ
  14. প্রবাসে কর্মসংস্থান 
    • শ্রমিক রপ্তানি বাড়াতে কূটনৈতিক উদ্যোগ নেওয়া হবে। 
    • আন্তর্জাতিক চাহিদা বিবেচনায় নি্রয়ে দক্ষ শ্রমিক, দক্ষ কর্মী গড়ে তোলা হবে।
    • প্রবাসে বাংলাদেশ দূতাবাসগুলো থেকে প্রবাসীদের সমস্যা আন্তরিকতার সাথে সমাধান করা হবে। 
  15. জনগণকে সম্পৃক্ত করা। জনগণের জন্য প্ল্যাটফর্ম গড়ে দেওয়া যাতে তারা বিভিন্ন উদ্যোগ নিতে পারে।
  16. গ্রামের উন্নয়ন 
    • শিক্ষায় সাফল্য, স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান, তথ্য প্রযুক্তির বিকাশ, কৃষিতে উদ্ভাবন ইত্যাদি ক্ষেত্রে গ্রামে গ্রামে প্রতিযোগিতা শুরু করা যায়। বিভিন্ন ক্যাটেগরিতে সেরা গ্রাম, সেরা উদ্যোক্তা ইত্যাদি নির্বাচন করা যায়। (প্রত্যেক গ্রামের মানুষ নিজের গ্রাম, নিজের ইউনিয়ন, নিজের থানা নিয়ে গর্ব করে।) এতে গ্রামের উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে। 
    • বিভিন্ন সামাজিক সূচকে উন্নতির লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে কর্ম পরিকল্পনা হাতে নেওয়া।
  17. কৃষি ও কৃষক সমাজের উন্নয়ন
  18. স্বাস্থ্যখাতে উন্নয়ন
    • স্বাস্থ্য যত ভাল, রোগ-বালাই যত কম, জনগণের সম্মিলিত উৎপাদন ক্ষমতাও তত বেশি।
    • গ্রামে গ্রামে স্বাস্থ্যকর্মী। 
    • স্বাস্থ্যখাতে প্রযুক্তির ব্যবহার
  19. নারী অধিকার সংরক্ষণ এবং নারীদের ক্ষমতায়ন 
    • নারী নির্যাতন, যৌতুক, বাল্য বিবাহ এর মত সামাজিক সমস্যাগুলোকে শক্তভাবে দমন করা
    • নারী অধিকার সংরক্ষণে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি। 
    • গ্রামের নারীরা যাতে আইনি সহায়তা পায় – সেই লক্ষ্যে বাবস্থা।
  20. দারিদ্র বিমোচন 
    • সরকারি পরিকল্পনা 
    • এনজিওগুলো যাতে দেশের দারিদ্র বিমোচনে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে কাজ করতে পারে – সেই পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে বাবস্থা নেওয়া। এনজিওগুলোর কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা আনা।
    • দারিদ্র্য দূরীকরণে এবং মানুষের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে সামাজিক এন্টারপ্রাইস প্রতিষ্ঠা। 
  21. জনগণের মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ করা হবে। শিল্পের বিকাশ এবং উদ্যোক্তা বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্ব দূরীকরণ, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রেখে এবং ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে করে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখা, নতুন উৎস থেকে তুলনামূলকভাবে স্বল্প ব্যয়ে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা, পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা।  
  22. ন্যায়ভিত্তিক সমাজবাবস্থা প্রতিষ্ঠা – সৎ এবং ন্যায়ের পথে থেকে চেষ্টা করলে জীবনে যে কোন কিছু অর্জন করা যায় এবং অন্যায় করলে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে – এই বোধ জাগ্রত করা হবে।

    পাদটীকাঃ

    1. নির্বাচনী ইশতেহারের বিভিন্ন বিষয় ভিডিও চিত্রের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হবে।
    2. দেশের বড় অপরাধীরা সরাসরি রাজনীতিতে বা রাজনীতিবিদদের ছত্রছায়ায় থেকে নিজেদেরকে আইনের উরধে ভাবে। এক একজন শীর্ষ অপরাধীকে থামিয়ে দেওয়া মানে অনেক অনেক অপরাধ এবং অনেক ছোট অপরাধী / মাস্তানকে থামিয়ে দেওয়া। কয়েকজন শীর্ষ অপরাধীকে থামিয়ে দিতে পারলে / দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে পারলে বাকিরা ভয়ে অপরাধ জগত ছেড়ে দেবে। 
      • আমাদের প্রকৃত বড় অপরাধী আর ভুল বুঝিয়ে, ফাঁদে ফেলে ভুল পথে আনা হয়েছে – এই দুই দলের পার্থক্য করতে হবে। যাদের ভুল বুঝিয়ে ভুল পথে আনা হয়েছে, তাদেরকে সঠিক পথ দেখালে তারাও সঠিক পথে আসবে।
      • শীর্ষ অপরাধীদের (মানবতাবিরধী যুদ্ধাপরাধী, সন্ত্রাসীদের গডফাদার, শীর্ষ দুর্নীতিবাজ, শীর্ষ সন্ত্রাসী) বাদ দিয়ে সমগ্র বাংলাদেশের চেতনাকে ধারণ করা হবে।
    Follow-ups

    নাগরিক শক্তির নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন

    বড় দলগুলো অর্থ দিয়ে মনোনয়ন বিক্রি করে। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা অর্থ দিয়ে মনোনয়ন বাণিজ্যের নিলাম হাট থেকে মনোনয়ন কেনেন। কালো টাকা, পেশি শক্তির প্রভাব হয়ে ওঠে যোগ্যতা নির্ধারণের মাপকাঠি। এবারও বিতর্কিত প্রার্থীদের ছড়াছড়ি। ১৯৪ (৩৫ শতাংশ) প্রার্থীর বিরুদ্ধে অতীতে মামলা ছিল

    নাগরিক শক্তি মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে জনপ্রিয়তা, যোগ্যতা, মেধা, সততা, অভিজ্ঞতা, এলাকার উন্নয়ন কাকে দিয়ে হবে – এসব বিষয় বিবেচনায় নেবে। তৃনমূল থেকে প্রার্থীদের নাম প্রস্তাবের আহ্বান জানানো হবে এবং কেন্দ্রিয়ভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। একাধিক প্রার্থী প্রায় সমান যোগ্যতা সম্পন্ন হলে সার্ভেই করে দেখা হবে জনগণ কাকে চান।

    ফান্ড রেইজিং এর মাধ্যমে যে অর্থ রেইজড হবে তা শুধু মাত্র প্রার্থীদের ইলেকশান ক্যাম্পেইনে বায় করা হবে। প্রতিটি পয়সা খরচের হিসাবও রাখা হবে। স্বচ্ছতা কেন্দ্রিয়ভাবে মনিটারিং করা হবে এবং কারও বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হলে দল থেকে বহিষ্কারসহ কঠোর বাবস্থা নেওয়া হবে।

    স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে তরুণদের সম্পৃক্তকরণ – ১

    আমাদের Beautiful Bangladesh কে স্বপ্নের বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে প্রাণশক্তিতে ভরপুর তরুণ-তরুণীদের উপর আমাদের নির্ভরতা থাকবে সবচেয়ে বেশি।

    তরুণদের কাছে “স্বপ্নের বাংলাদেশ” এর ভিডিও চিত্র / শর্ট ডকুমেন্টারি আহবান করা যায়। আমরা জানতে চাই, দেশ নিয়ে তরুণদের ভাবনা। জানতে চাই, তরুণরা স্বপ্নের বাংলাদেশে কি কি দেখতে চান। তরুণরা টীম গঠন করে তাদের সৃজনশীলতা দিয়ে স্বপ্নের বাংলাদেশ কেমন হবে তার একটা চিত্র ফুটিয়ে তুলে প্রস্তাব দেবেন। সবচেয়ে ভাল প্রস্তাবগুলোকে টীমের সক্ষমতা বিবেচনায় নিয়ে স্পন্সরের মাধ্যমে ফান্ড দেওয়া হবে। ফান্ড দিয়ে বাছাইকৃত টিমগুলো ভিডিও চিত্র / শর্ট ডকুমেন্টারি তৈরি করবেন। সেরাদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হবে। সেরা ক্লিপ্স / ডকুমেন্টারিগুলো আমরা নাগরিক শক্তির ওয়েবসাইটে রাখব। ফেইসবুক, ইউটিউব, ফোন এর মাধ্যমে ছড়িয়ে দেব। আমাদের দলের নির্বাচনী ইশতেহারে কোন কোন প্রস্তাব অন্তর্ভুক্ত করা যায় তা পর্যালোচনা করা হবে। সবচেয়ে বড় কথা – আমাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা থাকবে নতুন প্রজন্মের স্বপ্নগুলো বাস্তবায়নে।

    একইসাথে দেশের সব নাগরিকদের কাছে বাংলাদেশ নিয়ে স্বপ্নের কথা লেখার আহবান করা যায়। প্রত্যেকে নিজ নিজ কর্মক্ষেত্র, অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে লিখবেন। অর্থনীতিবিদরা লিখবেন দেশের অর্থনৈতিক বাবস্থা সংস্কার নিয়ে, বাবসায়ি-উদ্যোক্তারা লিখবেন বাবসা-বাণিজ্যের সংস্কার-সম্ভাবনা নিয়ে, আইনজ্ঞরা লিখবেন বিচার বিভাগ নিয়ে, শিক্ষাবিদরা লিখবেন শিক্ষাবাবস্থা নিয়ে, চিকিৎসকরা লিখবেন স্বাস্থ্য বাবস্থা নিয়ে, শিল্পী – সংস্কৃতি কর্মীরা লিখবেন সংস্কৃতি নিয়ে, প্রতিরক্ষা বাবস্থা নিয়ে লিখবেন বিশেষজ্ঞরা, প্রকৌশলীরা লিখবেন প্রযুক্তি ক্ষেত্রে সম্ভবনা নিয়ে, আলোকিত মানুষ ও আলোকিত সমাজ গড়ে তোলার উপায় নিয়ে লিখবেন কেউ কেউ। আমাদের ওয়েবসাইটে দেশ নিয়ে ভালবাসা আর স্বপ্নের কথার লেখাগুলো রাখা হবে। পরবর্তীতে নির্বাচিত লেখাগুলো বই আকারে প্রকাশ করা যায়।

    নাগরিক শক্তির নির্বাচনী ইশতেহার তৈরিতে লেখাগুলো ভূমিকা পালন করবে। জনগণের দল হিসেবে নাগরিক শক্তির সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা থাকবে জনগণের স্বপ্ন বাস্তবায়নে।

    My Mental Toolbox

    From My Mental Toolbox

    Self Management

    • Passion & Confidence, Faith. “The happiness advantage”.
      • Go through your accomplishments. Visualize.
      • Always have context (Goal, Dream, Curiosity, Context) in mind.
    • Meta-cognition (“Know thyself”). Reflective Thinking.
    • Emotional Intelligence
    • Concentration. Meditation. Mindfulness (Reflective Thinking). Classical Music.
    • Killer instinct directed towards problem solving, creative purposes and accomplishments. See Steve Ballmer on stage. People who can’t use anger / aggression towards creative purposes / problem solving, “transfer the anger to his wife, children, subordinates, store clerks, waiters and other people who cannot defend them against him. This is the mechanism that lies behind scapegoating, racial prejudice, exploiting others!”
    • Willpower (Mindfulness).
    • Big Picture Thinking.
    • Collaboration
    • Creative Visualization (Always have goals in your mind. Start from goal – visualize backwards.) + Faith
    • Gamify the process of achieving goals. (Let internal feedback motivate you. Use feedback to your advantage.)
    • Awareness of the ultimate reality.


    Thinking Tools 

    • Study the problem, not the tool.
      • Learn in context. Always have past, future, goals, contexts, questions in mind.
    • Zooming-in, zooming-out (let’s name it the “lens tool”)
      • Find out how changes made to “part” bring about change in the “whole”.
    • Abstractions (from computational thinking)
    • Generalization.
    • Sequential Processes
    • Game Theory (Considering the opponents, co-operators)
      • Studying the psychology of everyone involved.
      • Big Picture Thinking.
    • Not constraining myself to a particular field of study; rather, analyzing and learning from everything. My breadth of knowledge helped me go in depth.
    • Problem Solving Strategies, Tools, Techniques
    • Creativity Tools
    • Understanding systems and processes “completely” in terms of what I already know (what Physicists try to do)
    • Ask Questions. (Fill up gaps in knowledge. Questions lead to answers and new knowledge.)
    • Mathematics (reduces complexity by creation of abstractions, symbolization, structures, mechanization of procedures)
    • Data Analytics & Statistics
    • Algorithm, Computation & Automation

    প্রিন্সেস শামিতাকে লেখা খোলা চিঠি – ১

     

    ডিজাইন নিয়ে ভাবতে পারো, ভাবনাটা আঁকতেও পারো।

    Fresh eyes দিয়ে সবকিছু দেখো। ধর, একটা টেবল দেখছ। সবাই যে চোখে টেবল টাকে দেখে সেভাবে দেখলে তুমি নিজে টেবল ডিজাইন করবে কিভাবে? বরং একটা বাচ্চা যে চোখ দিয়ে টেবল টাকে দেখে, বা ধর তুমি মঙ্গল গ্রহে গেছ – সেখানকার একটা অদ্ভুত টেবল যে দৃষ্টি দিয়ে দেখবে সেই দৃষ্টিতে দেখো।

    ওয়াও! কেমন অদ্ভুত একটা জিনিস! চারটা পায়ের উপর দাঁড়িয়ে। ওভাল সাইজের। সবাই মিলে এটার উপর খায়? ওভাল না হয়ে রেকটেঙ্গুলার হলে কেমন হত? আরেকটু ছোট হলে? রঙটা কেমন যেন! আরেকটু বাদামি হলে… হুম, দারুন হত।

    একটা exercise দেই। একটা E-Book 2.0 ডিজাইন করতে পারবে? স্পেসিফিকেইশান বলে দেই। ফাঙ্কশানালিটি হবে E-Book Reader, Tablet এর মত, কিন্তু বই পড়তে যে সুবিধাগুলো পাওয়া যায় – যেমন ধর কয়েকটা পাতা একসাথে খোলা রাখা, দ্রুত এক পাতা থেকে আরেক পাতায় যাওয়ার সুবিধা, ওজনে হালকা, তারপর ধর কোন পাতায় চাইলে কিছু নোট করে, মার্ক করে রাখা যাবে – ওগুলো থাকতে হবে। চিন্তা করার সময় কোন constraint রেখো না – নতুন কি আনা যায় ভাবো। যেমন ধর, iPhone multi-touch screen introduce করেছে। User Interface এ নতুন আর কি থাকতে পারে ভাবো।
    ট্রাই করে দেখো। ডিজাইনের কিন্তু কোন শেষ নাই। একটা ডিজাইন দাঁড় করাও, তারপর ওটাকে আরও ভাল কর, আবার কিছু যোগ কিছু বাদ – এভাবে।

    তোমরা ডিজাইনাররা Multi-touch screen ডিজাইন করে বাচ্চাদের কি শিখিয়েছ দেখো! বাচ্চারা ম্যাগাজিনকেও touch screen ভাবছে!

    ওয়েব পেইজ ডিজাইনও ট্রাই করতে পারো। ফটোশপ দিয়ে ডিজাইন কর – ভাল লাগে কিনা দেখো। দেখতে ভাল লাগে – এমন সাইটগুলো কেন দেখতে ভাল লাগছে বোঝার চেষ্টা কর।

    সবকিছু নিয়ে ভাব। সবকিছু ভালভাবে বোঝার চেষ্টা কর। কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে, ব্যাংক কিভাবে কাজ করে, একটা বাড়ি কোন কোন অংশের জন্য সুন্দর লাগছে – কোন কোন অংশ পাল্টে ফেলে আরও সুন্দর করা যায়।

    কোন জটিল ব্যাপার বোঝার সবচেয়ে ভাল উপায়

    • জটিল ব্যাপারটাকে ছোট ছোট অংশে ভাগ করে ফেলা।
    • তারপর ছোট ছোট ব্যাপারগুলো আলাদাভাবে বোঝা।
    • এরপর ছোট ছোট অংশগুলো নিয়ে কিভাবে পুরো ব্যাপারটা কাজ করছে তা বোঝা।
    • সবসময় visualize করে বোঝার চেষ্টা কর। তুমি তো জানো আমি কিভাবে visualize করি। 

    ধাঁধার সমস্যা বা অঙ্কের সমস্যা নিয়েও ভাবতে পারো।

    প্রথম দিন সব বুঝে ফেলবে এমন না। কিন্তু ভাবতে থাকো – কয়েকদিন পর দেখবে আগের চেয়ে অনেক ভাল ভাবছ।

    নিউটনের একটা কথা মনে রেখো, “আমার আবিষ্কারের কারণ আমার প্রতিভা নয়। বহু বছরের পরিস্রম ও নিরবিচ্ছিন্ন চিন্তার ফলেই আমি আমাকে সার্থক করেছি, যা যখন আমার মনের সামনে এসেছে, শুধু তারই মীমাংসায় আমি ব্যস্ত থাকতাম। অস্পষ্টতা থেকে ধীরে ধীরে স্পষ্টতার মধ্যে উপস্থিত হয়েছি।”

    পড়াশোনা, চিন্তা ভাবনার জন্য আমি কিছু Power Tools ব্যবহার করি। তোমাকে শিখিয়ে দেবো। তোমার মাঝে কত Potential লুকিয়ে ছিল – কখনও খেয়াল করনি – অবাক হয়ে দেখবে। Undergrad বেশি বেশি course নিয়ে তাড়াতাড়ি শেষ করে ফেলতে পারবে!

    জীবনের সমস্যা নিয়ে ভেবে কখনও মন খারাপ করবে না। বরং ভাববে তোমার কি কি আছে – তা নিয়ে। আমি আছি না? আরও কত কিছু!

    আমরা সবাই happy, satisfied, fulfilled হতে চাই। আসলে আমাদের প্রত্যেকের জীবনের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত – নিজে হ্যাপি হওয়া, আর যতগুলো মানুষকে পারা যায় হ্যাপি করা। আমরা মনে করি, অনেক টাকা রোজগার, চাকরিতে ওই পদ, পছন্দ হওয়া ডায়মন্ড সেট কিংবা ওই পুরষ্কারটাই জীবনের লক্ষ্য হওয়া উচিত। কিন্তু আসলে এগুলো লক্ষ্য না। লক্ষ্য হল – এগুলো অর্জনের মাধ্যমে হ্যাপি হওয়া। পুরষ্কার কিংবা পদ happy, satisfied, fulfilled হওয়ার tools, মূল লক্ষ্য না। মূল লক্ষ্য – happiness, satisfaction, fulfillment

    কাজেই যেসব ব্যাপার ভাবলে মন খারাপ হয়, ওগুলো ভেবে মন খারাপ করা মানে নিজে নিজে ইচ্ছা করে জীবনে হেরে যাওয়া। গড তোমাকে যে ব্লেসিংসগুলো দিয়েছেন ওগুলো নিয়ে ভাব – কত ভাল লাগবে!

    বড় কোন স্বপ্নকে লক্ষ্য হিসেবে নিয়ে তাতে নিজেকে উজাড় করে দাও – জীবনটা অনেক বেশি অর্থপূর্ণ মনে হবে। স্বপ্নের পথে একটু একটু করে এগোনোকে happy হওয়ার tool হিসেবে ব্যবহার কর।

    Happiness এর আরেকটা Secret হল Happiness relative। ধর, একটা কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছ – সামান্য একটু স্বস্তি এলে কি যে ভাল লাগবে! আবার ধর প্রতিটা দিনই অনেক মজার। তখন এত মজার মাঝেও bored feel করবে। অনেক অনেক বেশি exciting কিছু না হলে ভাল লাগবে না! এমন সময়ে happy হওয়ার উপায় হল – কঠিন সময়গুলোর কথা ভাবা। Happiness feel করে তারপর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে ভুলো না!

    সবচেয়ে বড় যে সত্যটা বলতে চাইছি তা হল – আমাদের “পারিপার্শ্বিক” আমাদের যতটা না happy বা unhappy করে, তার চেয়ে বেশি করে আমরা “পারিপার্শ্বিক দেখে মনে মনে কি ভাবলাম”।

    এই ব্যাপারগুলো তুমি নিজের জীবনেও অ্যাপলাই কর, কাছের মানুষদেরও শেখাতে পারো।

    তোমাকে রোল মডেল হতে হবে – এটা সবসময় মাথায় রেখো।

    গণজাগরণ বনাম হেফাজত নয়, গণজাগরণ এবং হেফাজত

    মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হলে জামায়াতে ইসলামী তাদের রক্ষা করতে সহিংসতা – অরাজকতা – চোরাগোপ্তা হামলা শুরু করে। কাদের মোল্লার রায়ে ফাঁসি না হয়ে যাবজ্জীবন হওয়ায় তরুণ সমাজ এবং দেশের জনগণ ধারণা করে, জামায়াতে ইসলামীর সহিংসতায় ভীত সরকার এই রায় দিয়েছে। রায়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ জানাতে ফেব্রুয়ারি মাসে তরুণ সমাজের ডাকে শাহবাগে জমায়েত হয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী জনগণ – সৃষ্টি হয় গণজাগরণ মঞ্চ

    আওয়ামী লীগ গণজাগরণ মঞ্চ থেকে মানবতাবিরধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের সাহস সঞ্চয় করেই থেমে থাকেনি, কিছুদিনের জন্য যতটা সম্ভব মূল মঞ্চের দখলও নেয়। এসময় তারা বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীকে “রাজাকার” বলার মত নিন্দনীয় এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কাজ করে। ঘটনা পরম্পরা বিবেচনা করলে আমরা দেখি, মুক্তিযোদ্ধা বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী তারই কিছুদিন আগে তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডঃ মহিউদ্দিন খান আলমগীরের ‘৭১ এ ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন।

    জামায়াতে ইসলামী এসময় তাদের নেতাদের রক্ষা করতে সহিংসতার পাশাপাশি গুজব রটনার আশ্রয়ও নেয়। হঠাত চাঁদে দেখা যায় জামায়াত নেতা দেলোয়ার হোসেন সাঈদিকে! মক্কা শরিফের গেলাপেও নানা অবিশ্বাস্য ব্যাপার দেখা দেয়! (একজন মুসলিম কিভাবে নিজের ধর্ম নিয়ে এধরনের রটনা রটাতে পারেন – তা কেবল তিনিই জানেন।) গ্রামে মসজিদের ইমামকে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে মসজিদের মাইকে এমন গুজব রটিয়ে জনগণকে নিয়ে হামলা চালায়। সনাতনী ধর্মাবলম্বীরাও তাদের হামলার শিকার হন।

    গণজাগরণ মঞ্চ থেকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবি বন্ধ করতে জামায়াত গুজব রটায় – গণজাগরণ মঞ্চের সব ব্লগার নাস্তিক। তারা ইসলামী চেতনা ধ্বংস করছে।

    আমরা জানি, দেশের কিছু তরুণ ধর্ম নিয়ে ব্লগে আপত্তিকর কথা লিখেছিল। তাদের এই কাজ নিন্দনীয়। পৃথিবীর কোন ব্যক্তি নিজেকে সবজান্তা ভাবার ধৃষ্টতা দেখাতে পারেন না। সীমিত জ্ঞান দিয়ে ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর লেখা প্রকাশ করে কারো ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত দেওয়া, সহিংসতার পরিবেশ সৃষ্টি করা সঠিক নয়।

    তবে তাই বলে যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে শাহবাগের সমস্ত ব্লগারকে নাস্তিক আখ্যা দেওয়াটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

    ব্লগার শব্দটিই হয়ে ওঠে নাস্তিক্যবাদের প্রতিশব্দ।

    গণজাগরণ মঞ্চের কিছু তরুণের দুই একটি শ্লোগান হয়ত আবেগের বাড়াবাড়ি প্রকাশ ছিল, কিন্তু যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হতেই হবে – এ নিয়ে দ্বিমত প্রকাশ করার কোন অবকাশ নেই।

    আমরা প্রত্যাশা করবো, যেসব তরুণদের ভুল বুঝিয়ে ভুল পথ দেখানো হচ্ছে, স্বাধীনতার সময়ে যাদের জন্মই হয়নি, আমাদের নতুন প্রজন্মের স্বপ্নযোদ্ধারা তাদেরও সঠিক পথে ফিরিয়ে আনবে।

    পাশাপাশি আমরা নতুন প্রজন্মের কাছে “জয় বাংলা”র সাথে “জয় বাংলাদেশ” শুনতে চাই। আমাদের এখন স্বাধীন একটা দেশ আছে – বাংলাদেশ। শ্লোগানটি যে সময়কার – তখন ছিল না। “জয় বাংলা” শ্লোগানটি বেশ পুরনো – ৭১ এর আগের – যখন “বাংলা” ঠিক “দেশ” হয়ে ওঠেনি। “জয় বাংলা” শ্লোগানটির গুরুত্ব এখানেই যে এটি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময়কার আবেগকে ধারণ করে, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ৭১ এ ফিরিয়ে নিয়ে যায় (স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র, “জয় বাংলা, বাংলার জয়”)। ৭১ এর আগে পূর্ব পাকিস্তান না বলে “বাংলা” বলতেই আমরা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতাম।

    আমাদের দেশের সাধারণত সবচেয়ে অসহায়, এতিম সন্তানরা মাদ্রাসায় ভর্তি হয়। (বেতিক্রম অবশ্যই আছে – অনেক সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তানকেও ইসলামী শিক্ষা দেওয়ার জন্য মাদ্রাসায় পাঠান হয়।) এই অসহায় এতিম ছাত্ররা অবহেলিত। এদের হয়ে কথা বলার মত কেউ নেই। কাজেই জামায়াতে ইসলামী যখন যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর দুরভিসন্ধিমূলক উদ্দেশ্যে শাহবাগের আন্দোলন বন্ধ করতে তাদের কাজে লাগাতে চায়, অসহায় অবহেলিত মাদ্রাসা ছাত্ররা তখন রাস্তায় নেমে পড়ে। গড়ে ওঠে আরেকটি আন্দোলন।

    ইন্টারনেট এর মাধ্যমে সারা পৃথিবীর সমস্ত তথ্য, সমস্ত জ্ঞান আমাদের হাতের মুঠোয়। ইন্টারনেটের আরেকটি ভাল ব্যাপার হল – যে কেউ এই মাধ্যমে নিজের লেখা প্রকাশ করতে পারে এবং সারা পৃথিবীর মানুষ সেই লেখা পড়তে পারে। যারা নিজের লেখা ইন্টারনেটে প্রকাশ করেন তাদের বলা হয় ব্লগার।

    “ব্লগার” শব্দটির সাথে নাস্তিক্যবাদের কোন সম্পর্ক নেই।

    মানবতাবিরধী অপরাধীদের বিচার বন্ধ করতে শাহবাগের আন্দোলন বন্ধ করার দরকার ছিল। জামায়াত শিবির শাহবাগের আন্দোলন বন্ধ করতে উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে পত্রিকায় বানোয়াট সংবাদ পরিবেশন করে এবং শাহবাগের সমস্ত আন্দোলনকারী সম্পর্কে বানোয়াট কথা প্রচার করে মাদ্রাসা ছাত্রদের আন্দোলনে নামিয়েছে। পাশাপাশি, ব্লগার শব্দটির সাথে নাস্তিক্যবাদকে জুড়িয়ে দিয়েছে। 

    হাদিসে আছে – “বিদ্বানের কলমের কালি শহীদের রক্তের চেয়েও বেশি পবিত্র”।

    আমরা প্রত্যাশা করব – আমাদের দেশের মাদ্রাসার বিদ্বান ছাত্ররা ইসলামের কথা, নিজেদের গ্রামের বিভিন্ন সমস্যার কথা, তথা জ্ঞান বিজ্ঞানের কথা এযুগের মাধ্যম ইন্টারনেটে প্রকাশ করবেন এবং ব্লগার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবেন। তাদের এই লেখা থাকবে সারা পৃথিবীর জন্য উন্মুক্ত। কারো কারো লেখা হয়ত দেশ বিদেশের লক্ষ মানুষ পড়বেন।

    আমাদের একের সাথে অন্যের যে মত পার্থক্য রয়েছে, দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্য রয়েছে তার সমাধান হবে ব্লগে আলোচনা, যুক্তি-পাল্টা যুক্তির মাধ্যমে। ব্লগ হয়ে উঠতে পারে জ্ঞান চর্চার একটা মাধ্যম।

    আর এভাবেই আমরা ভুল বুঝে নিজেরা নিজেদের মাঝে যে দূরত্ব তৈরি করেছিলাম, তার অবসান ঘটবে।
    সবাই মিলে সুখে স্বাচ্ছন্দ্যে ভরপুর একটা পৃথিবী গড়ব।

    আরও