The Story Of Computer Networking: Progression From Internet To Web and Cloud

Internet

In the 60s and 70s, Scientists and Engineers at DARPA [1] and elsewhere were experimenting with ways of communication between computers and communication between computer networks. The paradigm was different from peer-to-peer communication, the one we see when we use our smart-phones or not-so-smart-phones! Mainframes were already in use with terminals sharing computational resources. Applications demanded Computer Networking to be similar, of Client-Server nature – clients sharing computational resources (storage, important files stored in storage, supercomputing power) of servers, which are always online.


It’s not possible for a person who only understands Spanish to communicate with another who only understands English. Similarly, we need common standards of communication between computers, so that the computers involved understand each other. The standards for communications are called protocols

In the 80s, the TCP/IP protocol came into widespread use and with it the proliferation of Internet (the word comes from “inter-network” – network of computer networks). TCP/IP defined how computers connected via a network would communicate using the client-server paradigm. 

Web

People started inventing all sorts of application protocols on top of TCP/IP for different purposes (file sharing, email, etc).

In late 80s and early 90s, Sir Tim Berners Lee, who was at that time working at CERN [2], invented a new protocol on top of TCP/IP, to share research documents among scientists working at CERN. This protocol, called HTTP, short for HyperText Transfer Protocol, became the basis for World Wide Web. It defined the concepts of Webpages (documents scientists at CERN were sharing), and URLs (a human-friendly way of referencing the documents) and Hyperlinks (the “links” that we click on to get us to a new webpage) to access the documents. Before Google and other search engines came along, URLs and Hyperlinks were the only ways you could navigate the Web. 


Cloud Computing

In the first decade of the new millenium, Amazon wanted to introduce something new. It found out that at any given time the servers at Amazon were using only about 10% of their full computational power. So why not provide the unused computational power as service to those who need it? 

Before, Webservers served only webpages. Now webservers could serve computational power (storage, processing and network bandwidth). Users could build Web applications and use Amazon’s unused computational power to host those applications and serve them to users. Better yet, just like utility services are provided – the more you use, the more you pay and “no use, no bill”. Before, you could only buy fixed amount of server storage and network bandwidth capacity and pay a fixed bill. Now, if need arose, you could stretch or squeeze computational power – from this came the name “elastic computing” or “utility computing”

An important thing follows. Before, you could not only buy fixed amount of server storage, but you could only buy “fixed amount of server storage” located in a “fixed computer or fixed set of computers”. Now, the notion of a fixed set of computers (in a huge data center consisting of thousands of computers) was gone. You have no idea where your code is running and where Amazon’s or some other company’s code is running. The servers determine which computer to use based on which ones are unused. Thus, hardware is abstracted away from software – a form of virtualization

Cloud Computing in action

The virtualized servers were called Cloud and a new computing paradigm was born – Cloud Computing.

So, what’s the big deal?

Well, before the advent of cloud computing, computational resources you could use at a time had an upper limit. Now, if need arose, you could stretch or squeeze that limit to suit your needs. 

Suppose, you own a soccer news website that has spikes right before and during important soccer games – that is, users use your website frequently just before and during soccer games. Now, if you host your website on a cloud computing platform, the platform would stretch and squeeze computational resources it uses according to the need and determine your bills accordingly. 

On the other hand, if you host on a non-cloud computing platform, during the times of high usage, users might not be able to access your site – if the upper limit is crossed. If you want to make sure that your users can always use your site (in a non-cloud computing platform), then you had to determine the highest amount of computational resources your website uses during the times of spike and pay for the usage of highest amount of computational resources for a whole month or a whole year! (though highest amount is only used say only once or twice a week.)

Or suppose, you need to get some heavy calculation oriented stuff – image processing, scientific calculation or something like that – done in a short time. You could use a cloud computing platform for a limited time and pay your bills accordingly. 

So, Cloud Computing gives you an opportunity to use computational power according to your needs at cheaper rates like never before. 

You might be wondering about the influence of Cloud Computing among general consumers. When you heard the phrase “moving to Cloud” – it seemed like a complete revolution and my explanation of Cloud Computing seems nothing like that. 

Well, the cloud also refers to the Web and “moving to cloud” refers to moving all your computational needs to the cloud or Web. 

Need word processing? Use Google Docs. Need storage space? No need to rely on your hard-drive, use Google Drive. Want to manage your company or customers? Use Google Apps or Salesforce or Basecamp. If you move everything to the cloud, you are no longer tied to a single device or a set of devices, but can access your data and work from anywhere. 

The fact is just as server side Cloud Computing paradigm at Amazon, Google and other companies was unfolding, Network speed and processing power were increasing and with that the culture of “moving to cloud”. So both happened at the same time – 

  • a particular way of utilizing servers just like other utilities and
  • moving all your computational needs to the Web.

Both the technical concept (servers as utility) and popular parlance concept (“moving to cloud”) were termed as “Cloud Computing”. A more important fact is that each helped the other grow.

It’s up to you to understand the right meaning from the context.   

Cloud Computing Platforms

Reference

Foreign Policy for Bangladeshi Political Party (ফরেইন পলিসি)

 

নাগরিক শক্তি সবকিছুর উপর জাতীয় স্বার্থকে স্থান দেবে।

ব্যক্তির চেয়ে দল বড় এবং দলের চেয়ে দেশ বড় – এই সত্য প্রতিষ্ঠিত করবে।

সমগ্র দেশের ঐক্য থাকলে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে আমরা আমাদের দাবি দাওয়া আদায় করে নিতে পারি। আমরা দেখেছি, আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বিএনপির অবস্থানকে আওয়ামী লীগ বিরোধিতা করে, আওয়ামী লীগের অবস্থানকে বিএনপি বিরোধিতা করে। প্রবাসীদের নানা দলীয় সংগঠনে দ্বিধাবিভক্তি প্রবাসে আমাদের অবস্থানকে দুর্বল করে দিচ্ছে। এভাবে আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের দুর্বল অবস্থানের কারণে আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি। নাগরিক শক্তি জনমত গঠন করে আন্তর্জাতিক ইস্যুগুলোতে সমগ্র দেশের ঐক্য গড়ে তুলবে। বাস্তবিক পক্ষে, দেশের স্বার্থের বিষয়গুলোতে জনগণের দ্বিমত থাকতে পারে না।

গ্লোবালাইজেশনের এই যুগে এক দেশের অর্থনীতি, সমৃদ্ধি অন্য দেশগুলোর উপর নির্ভরশীল। প্রযুক্তির যত বিকাশ ঘটছে একটি দেশের সাথে অন্য একটি দেশের সম্পর্ক তত গভীর হচ্ছে। ইন্টারনেটের কারণে আজ আমাদের দেশের তরুণরা বন্ধু হিসেবে পাচ্ছে, জ্ঞান বিনিময় করতে পারছে ইউরোপ বা আমেরিকার কোন তরুণের সাথে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধশালী হওয়ার একটাই উপায় – বিদেশে বিভিন্ন পণ্যের রপ্তানি বাড়ানো।

কাজেই “ভারত প্রীতি”, “চীন প্রীতি”, “পশ্চিমা বিদ্বেষী” সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গীর শব্দগুলো নতুন পৃথিবীর আমরা সবাই পিছে ফেলে এসেছি।

৭১ এ ভারত আমাদের পাশে ছিল বলে তাদের সাথে আমাদের হৃদ্যতার সম্পর্ক অব্যাহত থাকবে। আমাদের লক্ষ্য থাকবে ভারতের সাথে বাণিজ্যের সম্প্রসারণ। একইভাবে চীন, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইউরোপ, অ্যামেরিকা, অস্ট্রেলিয়ায় দেশীয় পণ্যের প্রসারে আমরা কাজ করবো। মধ্যপ্রাচ্যে কর্মশক্তি রপ্তানি বাড়িয়ে ফরেইন রেমিটান্স বৃদ্ধি আমাদের লক্ষ্য।

কিন্তু তাই বলে কোন দেশের সমর্থন-আনুকূল্য পেতে নিজ দেশের স্বার্থ, দেশের সম্পদ জলাঞ্জলি দেওয়ার ধৃষ্টটা কেউ দেখালে আমরা জনগণকে নিয়ে তীব্রভাবে তার প্রতিরোধ করবো। দেশের সম্পদ রক্ষায় অটুট ঐক্য গড়ে তুলবো।

সবকিছুর উপর জাতীয় স্বার্থকে স্থান দেওয়ার মাধ্যমেই গড়ে উঠবে স্বপ্নের বাংলাদেশ।

মায়ানদের মায়াময় জগতে একদিন

#StoriesOfMyLife

২০০৫ সালে বাংলাদেশ গণিত দল আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে প্রথমবারের মত অংশগ্রহণ করে।
মেক্সিকোতে অনুষ্ঠিত অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ গণিত দলের সদস্য ছিল ৬ জন। আমি ছাড়া বাকিদের মাঝে মোহাম্মদ মাহবুবুল হাসান শান্ত বুয়েট থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে স্নাতক শেষ করে বর্তমানে একই বিভাগে লেকচারার হিসেবে কর্মরত, শাহরিয়ার রউফ নাফি বুয়েট থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে স্নাতক শেষ করে বর্তমানে গুগলে (Google, Inc.) কর্মরত, তাহমিদ উল ইসলাম রাফি বুয়েট থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে স্নাতক শেষ করে বর্তমানে দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুলে কর্মরত, রাফাতুল ফারিয়া বুয়েট থেকে ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক শেষ করে বর্তমানে Purdue University তে পিএইচডি করছে, সাবরিনা তাবাসসুম আইবিএ থেকে বিবিএ করে বর্তমানে University of Queensland এ  International Economics and Finance এ মাস্টার্স করছে।
আমাদের টীম লিডারের দায়িত্বে ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহ‌-সভাপতি ডঃ মুনিবুর রহমান  চৌধুরী এবং ডেপুটি টীম লিডার হিসেবে ছিলেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান।  

লেখাটা ২০০৫ সালে মেক্সিকো থেকে ফিরে এসে লেখা।
জুলাই ১৫ তারিখের বর্ণনা। সামান্য পরিমার্জিত।
আইএমও (IMO – International Mathematical Olympiad) তে অংশগ্রহণের শুরুটা হয়েছিল বেশ চমৎকারভাবেই।
ঢাকার শেরাটনে আমাদের প্রেস কনফারেন্স শেষে বাইরে দাঁড়িয়ে কথা বলছিলাম আমি আর নাফি।
কাছে দাঁড়িয়ে থাকা এক ভদ্রলোক এগিয়ে এসে আগ্রহের সাথে জানতে চাইলেন মেক্সিকোতে কারা কারা যাচ্ছে?
নাফি আমাকে দেখিয়ে দিল – ও যাচ্ছে!
মুখ ভরা হাসি নিয়ে আমি নাফিকে দেখিয়ে দিলাম – ও ও যাচ্ছে!
ভদ্রলোক আমাদের দিকে এতটা বিস্ময় ভরা চোখে তাকালেন যে, বুঝতে অসুবিধা হল না ব্যাপারটার মাঝে যে কৌতুককর অংশ আছে তা এই বিস্ময়ের আড়ালে চাপা পড়ে গেছে!

জুলাই এর ১৩ আর ১৪ তারিখ ২ দিনের পরীক্ষা দিয়ে আমরা যখন খানিকটা ক্লান্ত, তখন ১৫ তারিখ থেকে শুরু হল বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখা আর একটা দেশের সংস্কৃতি, ইতিহাস আর ঐতিহ্য কে উপলব্ধি করার পালা, আইএমওর যেটা অবিচ্ছেদ্য অংশ।

গণিতকে শুধুমাত্র পরীক্ষার হলে সীমাবদ্ধ না রেখে আমরা যখনই পেরেছি, আশে পাশের সবকিছুকেই গাণিতিক কাঠামোয় আনার চেষ্টা করেছি।

গণিতের এই উৎসবে বিভিন্ন রিসোর্সের অপ্টিমাম ব্যবহার হচ্ছে না দেখে নাফি তো রীতি মত হতাশ!

তবে আমাদের মাঝে গণিত সচেতনতার পাশাপাশি রূপ সচেতনতাও যে ভালই কাজ করে তা বোঝা গেলো ১৫ তারিখ সকালে!

সানব্লক ক্রিম নিয়ে রীতিমত কাড়াকাড়ি পড়ে গেলো! “আমরা হারিয়ে ফেলব” ধরণের অজুহাত দিয়ে মাহবুব ওটা ওর কাছেই রাখবে! ভাগ্যিস কোন বিজ্ঞাপন নির্মাতা কাছে পিছে ছিলেন না। থাকলে নির্ঘাত সানব্লক ক্রিমের একটা বিজ্ঞাপন তৈরি করে ফেলতেন!

মোট ১৬ টা বাস করে আমাদের নিয়ে যাওয়া হল যিবিল চালতুনে [1]। মায়া সভ্যতার অসাধারণ একটা নিদর্শন এটা। খ্রিষ্ট পূর্ব ১০০০ থেকে খ্রিস্টাব্দ ১৫২৬ পর্যন্ত মায়ানদের দেশ ছিল মেক্সিকো। প্রায় ২০ বর্গ কিলোমিটার জায়গার উপর ৮৪০০টা ছোট বড় কাঠামো নিয়ে এই নিদর্শন। মূল আকর্ষণ – টেম্পল অফ সেভেন ডলস। বেশ উঁচু একটা মন্দির এটা। সিড়ি দিয়ে উঠতে হয়। মাঝেখানে বড় সড় একটা ফাঁকা জায়গা আছে যাতে মন্দিরের একপাশে দাঁড়িয়ে অন্যপাশে আকাশ দেখা যায়। ২১ মার্চ আর ২২ সেপ্টেম্বর সূর্য এমন অবস্থানে আসে যে, ফাঁকা জায়গা দিয়ে সূর্য দেখা যায়। মায়ানদের বছরও ছিল সৌরকেন্দ্রিক – ২৬০ দিনের। জ্যোতির্বিজ্ঞানে তাদের দক্ষতা এসব থেকে স্পষ্ট।

কাছে একটা আন্ডারগ্রাউন্ড নদীও আছে। দেখতে অবশ্য পুকুরের মত, তবে নিচ দিয়ে সাগরের সাথে যুক্ত।

পুরো এলাকাটা ঘুরে দেখার চাইতে ছবি তোলায়, ভিডিও করায় আমাদের উৎসাহ ছিল বেশি।

সময় হলে আমরা নিজ নিজ বাসে ফিরে এলাম (মোট বাস ১৬টা)।

আমাদের বাসে ছিল – Australian Math Team, Argentine Math Team, Belgian Math Team, Bosnia and Herzegovinian Math Team সহ আরও কয়েকটা Team.

আচ্ছা, বলতো দেখি – এই দেশগুলোর বিশেষত্ব কি? আমাদের সাথে একই বাসে কেন?

ঠিকই ধরেছ!

Bangladesh B দিয়ে, কাজেই Alphabetic Order maintain করে Management করা হলে – Australia, Argentina, Belgium, Bosnia and Herzegovina এসব দেশ – বাংলাদেশের সাথেই থাকার কথা!

খানিকক্ষণের এই বাসেও আনন্দকে বিরতি দিতে আমাদের প্রবল আপত্তি!

বল ছোড়াছোড়ি নিয়ে বিচিত্র এক রকম খেলা শুরু হল। আরজেন্টাইন এক কন্টেস্টেন্ট মূল খেলোয়াড়, দুষ্টুমিতেও সে এগিয়ে। বল কখনও গিয়ে পড়ল কোন মেয়ের গায়ে। সে দেখিয়ে দিল, বেলজিয়ান, বেলজিয়ানরাই এজন্য দায়ি! আবার কখনও বল চলে গেলো ড্রাইভারের কাছে। এবার সে বলল, বসনিয়ানরাই যত নষ্টের মূল!

বাস আমাদের নিয়ে এলো প্রগ্রেসো বীচে।

তখন দুপুর হয়ে এসেছে। সূর্য মধ্য গগণে। সূর্যের এই প্রখর আলোয় গালফ অফ মেক্সিকোর অপূর্ব সৌন্দর্য আমাদের মন ভরিয়ে দিল। কাছে হালকা নীল। দৃষ্টি আরেকটু প্রসারিত করলে নীল যেন খানিকটা ঘন হয়ে আসে। আরও দূরে একেবারে গাঢ় গভীর নীল – সাগরের এই রূপ থেকে চোখ ফেরানোই কঠিন। সমস্যা হচ্ছে কবি লেখক দের দেখার চোখ আমার নেই। কাটখোট্টা একটা চশমার ফ্রেমের পেছনে চোখ রেখে যতদূর দেখা যায় – তাই দেখি!

সাঁতার না জানলেও আটলান্টিক মহাসাগরের পানিতে গা ভেজানোর সুযোগ ছাড়তে আমরা কেউই রাজি না। এদিন আমরা বেশ হৈ চৈ করেছি!

তীরের বেলাভূমিতে কেউ ফুটবল, কেউবা ভলিবল নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ল। একপাশে দেখা গেলো একটা ছেলে চিত হয়ে শুয়ে পড়েছে আর তার উপর শুধু বালি দিয়ে কয়েকজন মিলে নারীর একটা প্রতিকৃতি তৈরির চেষ্টা করছে। প্রতিকৃতিটা শেষ পর্যন্ত এত অদ্ভুত হয়ে দাঁড়ালো যে আমাদের স্বীকার করতেই হল – শিল্প চর্চার জন্য বেলাভূমিই উপযুক্ত স্থান!

বেলাভূমির পাশেই উঁচু জায়গায় একটা রেস্টুরেন্ট আর তার পাশে কয়েকটা সুইমিং পুল। সেখানেও আনন্দের কমতি নেই। কয়েকজন মিলে একেক জনকে শূন্যে তুলে ধরে পানিতে ছুড়ে ফেলছে!

হোটেলে ফেরার পথে আমরা আমাদের মেক্সিকান গাইড অ্যানাকে বাংলাদেশ সম্পর্কে নানা কিছু জানানোর ফাঁকে জাতীয় ফুল, ফল, মাছ, পাখি এসবও চিনিয়ে দিলাম। মেক্সিকোতে এতরকম “জাতীয়” ব্যাপার সাপার নেই বলে এসব তথ্য তার কাছে অদ্ভুত ঠেকল। আমাদের জাতীয় সবজি, জাতীয় ডিশ নেই কেন এই প্রশ্ন করে আমাদের হয়রান করে তুলল!

এক সময় বাস পৌঁছে গেলো আমাদের নতুন অস্থায়ী ঠিকানা – হোটেল ফিয়েস্তা অ্যামেরিকানায়।

এত চমৎকার একটা দিন শেষ হয়ে এলেও আমাদের মাঝে বিষাদের কোন রেখা দেখা গেলো না।

না জানি আরও কত নতুন অভিজ্ঞতা আমাদের জন্য অপেক্ষা করে আছে!

চিচেন ইটযার সামনে আমি

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড নিয়ে আরও

References

সন্ত্রাসমুক্ত সাম্প্রদায়িকতামুক্ত দেশ গড়ার লক্ষ্যে জনগণের ঐক্য

জামায়াত ইসলামী বাংলাদেশী কোন দল না। একই নামে পাকিস্থানের একটি রাজনৈতিক দলের বাংলাদেশের শাখা ছিল এটি ৭১ পর্যন্ত। ৭১ এ তারা সক্রিয় ভাবে পাকিস্থানি সেনা বাহিনীকে সমর্থন করেছিল এবং গণহত্যায় অংশ নিয়েছিল। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপর নির্মম হত্যাযজ্ঞ এবং নির্যাতন চালিয়েছিল। বুদ্ধিজীবীদের হত্যার মাধ্যমে নতুন দেশকে পঙ্গু করে দেওয়ার পরিকল্পনায় ও তারা ছিল।

স্বাধীনতা যুদ্ধের বেশ কয়েক বছর পর তারা বাংলাদেশে সক্রিয় ভাবে রাজনীতি শুরু করে।

জামায়াতে ইসলামীর সাথে অঙ্গাঙ্গী ভাবে জড়িত সংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবির।

আমরা মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হওয়ার পর জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসী এবং রাষ্ট্র বিরোধী কার্যকলাপ (পুলিশের উপর হামলা, জাতীয় পতাকা অবমাননা) লক্ষ্য করেছি।

এর আগে ২০০১ সালে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপর হামলায় আমরা ৭১ এর প্রতিচ্ছবি দেখেছিলাম। একই ছবি এবারের নির্বাচনের সময় ও দেখা গেলো।

“রগ কাটা” শিবির হিসেবে তাদের কার্যকলাপ এবার মিডিয়ায় উঠে এসেছে।

২০০১ এর পর দেশে জঙ্গিবাদের উত্থানে জামায়াত শিবিরের প্রশ্রয় আমরা লক্ষ্য করেছি।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে নাগরিক শক্তি বদ্ধপরিকর।

জামায়াত- শিবিরের যেসব সদস্য সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত নাগরিক শক্তি অন্য সব সন্ত্রাসীদের মতই তাদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করাবে। এরা এখনও মনে প্রাণে ৭১ এর পূর্বের পাকিস্তানি চেতনাকে ধারণ করে।

কিন্তু আমাদের মনে রাখতে হবে, দেশের তরুণ প্রজন্মের একটা বড় অংশকে, স্বাধীনতার সময়ে যাদের জন্মই হয়নি তাদেরও এরা ইসলামী চেতনা, লোক দেখানো আদর্শের কথা বলে দল ভারি করার চেষ্টা করেছে।

আমাদের লক্ষ্য হবে তরুণ প্রজন্মকে বিপথে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করা। যাদের ভুল বুঝিয়ে ভুল পথে নেওয়া হয়েছে, তাদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনা।

মহানবী হজরত মুহম্মদ (স) আমাদের শিখিয়েছেন “দেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ”।
আর যারা বিনা অপরাধে মানুষ খুন করতে পারে, তাদের মুখে ইসলামের কথা মানায় না।

এ লক্ষ্যে দেশের সব বয়সের সব শ্রেণী পেশার মানুষকে একযোগে কাজ করতে হবে।

ইসলামী চেতনার কথা বলে এবং সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে তারা আক্রমণাত্মক কার্যকলাপ চালিয়ে শক্তি দেখাতে পারে। কিন্তু বেশ কয়েক মাস আগের জরিপে আমরা দেখেছিলাম, জামায়াত ইসলামীর সমর্থন শতকরা ৩ ভাগের কম। এ কয়েক মাসে নিবন্ধন অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা এবং নাক্কারজনক কার্যকলাপের মাধ্যমে তাদের সমর্থন আরও বেশ খানিকটা কমেছে।

আমরা প্রচেষ্টা চালালে শুধুমাত্র ৭১ এর মানবতাবিরধী অপরাধী এবং কতিপয় চরমপন্থী (Extremist) সন্ত্রাসী ছাড়া জামায়াত-শিবির বলে কিছু থাকবে না।

নাগরিক শক্তি দেশের জনগণকে সেই লক্ষ্যে নেতৃত্ব দেবে।


রেফরেন্স 
[2] Bangladesh Jamaat-e-Islami
[3] Global Terrorism & Insurgency Attacks Rapidly Increase in Five Years, According to IHS Jane’s Terrorism and Insurgency Centre

আরও 
[1] জামাত নিষিদ্ধের দাবি ও বাস্তবতা
[2] জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীসহ ১৪ জনকে ফাঁসির দণ্ডাদেশ দেওয়ার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামি।
[3] বিশ্বের বেসরকারি সশস্ত্র সংগঠনের তালিকায় শিবির

“২০১৩ সালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সবচেয়ে সক্রিয় অরাষ্ট্রীয় সশস্ত্র সংগঠনগুলোর তালিকায় তৃতীয় শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে ইসলামী ছাত্র শিবির।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইএইচএস জেইন টেরোরিজম অ্যান্ড ইনসার্জেন্সি সেন্টার তাদের জরিপের ভিত্তিতে এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

তাদের জরিপ অনুযায়ী, এধরনের অরাষ্ট্রীয় সশস্ত্র সংগঠনের মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে থাইল্যান্ডের বারিসান রেভোলুসি নাসিওনাল এবং দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে তালিবান। এরপরেই রয়েছে বাংলাদেশের ইসলামী ছাত্রশিবির।

আইএইচএস’র ওয়েবসাইটে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি এ তালিকা প্রকাশ করা হয়। বিভিন্ন দেশের উন্মুক্ত সূত্র থেকে প্রাপ্ত উপাত্তের ভিত্তিতে প্রতিবছর আইএইচএস জেইন টেরোরিজম অ্যান্ড ইনসার্জেন্সি সেন্টার সূচক অনুযায়ী এ তালিকা প্রস্তুত করা হয় প্রতিষ্ঠানটির ভোক্তাদের জন্য।

১৯৯৭ সাল থেকে আইএইচএস জেইন এ ধরনের উপাত্ত সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করে আসছে বলে জানানো হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে।

স্বাধীনতার আগে জামায়াতে ইসলামী এই ছাত্রসংগঠনটির নাম ছিলো ইসলামী ছাত্রসংঘ। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর পরিবর্তিত রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে ১৯৭৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ‘ইসলামী ছাত্রশিবির’ নাম নিয়ে পুনরায় আত্নপ্রকাশ ঘটে সংগঠনটির।

২০১২ সালের শেষদিকে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াত নেতাদের বিচার প্রক্রিয়া শুরুর পরপরই পুলিশের ওপর ঝটিকা মিছিল থেকে হামলা চালানো শুরু করে ইসলামী ছাত্র শিবির।
এরপর বিভিন্ন সময়ে নাশকতা ও চোরাগোপ্তা হামলা চালিয়ে মানুষ হত্যা ও আহত করার জন্য সংগঠনটিকে দায়ী করে আসছে সরকার ও পুলিশ।”
 – ‘তৃতীয় বৃহত্তম সশস্ত্র সংগঠন ছাত্রশিবির’

বাংলাদেশের রাজনীতিতে গুনগত পরিবর্তনের গল্প – ১ [আমি রাজনীতিতে কিভাবে – ২]

১.

৯১ এর নির্বাচনের সময় আমি ছিলাম অনেক ছোট – রীতিমত ৪ বছরের বাচ্চা ছেলে!খুব একটা না বুঝলেও এটুকু বুঝতাম আমি ধানের শিষের সাপোরটার। আর মামা ছিলেন নৌকার সাপোরটার। আমাকে মজা করে বলতেন, ধানের শীষ ডুবে যাবে।

শেষ পর্যন্ত অবশ্য মামার নৌকাই ডুবল!

মানুষ কারও না কারও পক্ষে ভোট দেয় এবং ভোট যার পক্ষে বেশি পড়ে সে জিতে – ইলেকশান কিভাবে হয় এটা চিন্তা করে বুঝেছিলাম আরও কিছুদিন পরে। আব্বুকে জিজ্ঞেস করে জেনে নিয়েছিলাম আমার ধারণা ঠিক কিনা।

মাঝখানে ৪ বছর সৌদি আরবে কাটিয়ে ‘৯৭ এর ডিসেম্বরে দেশে ফিরে আসি।

পত্রিকা খুললেই চোখে পড়ত আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসের খবর – এক এক নেতা এক এক এলাকায় (ফেনী, লক্ষ্মীপুর) সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন। আবার কারও কারও ব্যাংক থেকে ঋণ খেলাপির খবর। #TowardsCrimeFreeBangladesh

২০০১ এর সময় আমি পড়তাম ক্লাস নাইনে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের পুরো সময়টা ভালমত ফলো করলাম। নির্বাচন ও হল।

এরপর থেকে পত্রিকা খুললেই দেখি দুর্নীতি আর অনিয়মের খবর। যোগ্য ব্যক্তিরা সরকারে মূল্যায়ন পেলেন না।

বুঝলাম, এভাবে দেশ চলতে পারে না। পরিবর্তন আসতেই হবে।

২.

২০০৩ সাল থেকে অধ্যাপক ডাঃ বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং ডঃ কামাল হোসেন পরিবর্তনের কথা বললেন।

বিকল্প ধারা আর গণফোরামের খবরগুলো পত্রিকাতে খুঁজে বের করতাম। কী গভীরভাবে চাইতাম বাংলাদেশের “পচা” রাজনীতিতে গুনগত পরিবর্তন আসুক!

দুই নেতার নেতৃত্বাধীন দুই দল মিলে সারা দেশে জনগণের বক্তব্য শোনার অনুষ্ঠানের আয়োজন করলেন। চমৎকার একটা ব্যাপার। এখনকার মত এত চ্যানেল, এত অনুষ্ঠান তখন ছিল না। কাজেই রাজনৈতিক সমাবেশে সাধারণত নেতাদের বক্তব্য শুনেই ফিরে যেতে হয়। এমন একটা সময়ে এই ধরণের অনুষ্ঠান প্রশংসনীয়। চট্টগ্রামের অনুষ্ঠানে আমিও গিয়েছিলাম – জীবনে প্রথমবারের মত কোন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে!

মানুষ নিজের চাওয়া পাওয়া জানাতে চায়। আগ্রহ নিয়ে তাদের কথা শুনলে তারা কত খুশি হয়!

বিএনপি সরকারের কর্মীরা এসব অনুষ্ঠানে ডিম ছুড়ে মারাসহ ব্যাপকভাবে দমন চালিয়ে দুই দলের যে সম্ভাবনা ছিল তাকে থামিয়ে দিল।

৩.

২০০৭ সালে নোবেল বিজয়ী প্রফেসর ডঃ মুহম্মদ ইউনুস পরিবর্তনের ডাক দিলেন।

একটা রাজনৈতিক দল গঠন করবেন। মিডিয়ার মাধ্যমে পরিকল্পনা জানিয়ে জনগণের মতামত চাইলেন।

এবার আশা ছিল, পরিবর্তন আসবেই। পরিছন্ন ভাবমূর্তি, প্রশ্নাতীত সততা, মেধা, প্রশাসনিক দক্ষতা, নাগরিক সমাজের একটা বড় অংশের সমর্থন, গ্রামীণ ব্যাংকের সারাদেশে লক্ষ লক্ষ গ্রাহকের মাধ্যমে গ্রামে গ্রামে পরিচিতি, তরুণ প্রজন্মের আইডল – বাংলাদেশের একমাত্র নোবেল পুরস্কার বিজয়ী।

কিন্তু এবারও আগের কাহিনী – আরও ব্যাপকভাবে।

বিকল্প ধারা – গণফোরামের উপর বিএনপি এককভাবে দমন চালিয়েছিল। ২০০৬ তে অধ্যাপক ডাঃ বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং কর্নেল (অবঃ) ডঃ অলি আহমেদ লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি গঠনের পরপরও বিএনপি দ্রুত দমনের পথে গিয়েছিল। আরও আগে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী আলাদা হওয়ার পর আওয়ামী লীগ দমন (খুনসহ) চালিয়েছিল।

এবার দুই দল সম্মিলিতভাবে তাদের সুবিধাভোগী গোষ্ঠীকে সাথে নিয়ে দমনের পথে গেল। মিথ্যা এবং আপত্তিকর নানা শব্দও  ব্যবহার করল (যেমন “ঘুষখোর”; যিনি সামাজিক ব্যবসা নামে এমন ব্যবসা চালু করেছেন যেখান থেকে মালিক শুধুমাত্র প্রাথমিক বিনিয়োগ তুলে নেওয়া ছাড়া কোন লভ্যাংশ নেবেন না, যার প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ ব্যাংকের ৯৭ শতাংশ মালিকানা গরিব মহিলাদের হাতে এমন আদর্শ ব্যক্তির বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডা চালানোর জন্য এসব শব্দ!)।  

বাংলাদেশের তরুণ সমাজ যে পরিবর্তন চাইছিল ২০০৭ এও তা অঙ্কুরেই বিনষ্ট হল।

৪.

এরপর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় প্রশংসনীয় নানা উদ্যোগে সুন্দর বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখা শুরু করলাম।

এমন একটা দেশ – সারাদেশের মানুষের কোন জাতীয় পরিচয়পত্র, ডেটাবেইসে সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেই! ছবিযুক্ত ভোটার আইডি কার্ডের মাধ্যমে আমরা তা পেলাম।

বিচার বিভাগেও প্রয়োজনীয় সংস্কার এল।

শক্তিশালী নির্বাচন কমিশনের পাশাপাশি বাংলাদেশের অনেকদিনের অভাব একটা শক্তিশালী দুর্নীতি দমন কমিশনও পেলাম।

দুর্নীতিবাজ নেতাদের গ্রেপ্তার দেখে স্বস্তি ফিরে এলো। বাংলাদেশের জনগণের মাঝে অনেক জনপ্রিয়তা পেলো।

দুর্নীতিতে বিশ্বসেরার খেতাব জেতা বাংলাদেশে একটা নতুন যুগের সূচনা হল বলে বাংলাদেশের জনগণ আশা করল।

৫.

এরপর ২০০৮ এর নির্বাচন। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলো।

নতুন মন্ত্রিসভার পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তির অনেকে প্রশংসা করলেন। প্রথম ১ বছরে মনে হল, ছাত্রলীগ আর যুবলীগের টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় দুর্নীতিবাজদের গ্রেপ্তারের মাধ্যমে যে পরিবর্তনের আশা দেখেছিলাম তা দীর্ঘস্থায়ী হবে। এসময়কার সার্ভেই ও তাই বলে – প্রথম বছরে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা বেড়ে গিয়েছিল।

এরপরই আমাদের সামনে প্রকাশিত হওয়া শুরু করল দুর্নীতি, সন্ত্রাস আর অনিয়মের মহোৎসবের খবর। বাংলাদেশের রাজনীতিতে পরিবর্তনের যে আশা করেছিলাম – এবার সে আশায় গুড়ে বালি – কয়েক বছরের জন্য হলেও।

৬.

অবশেষে ২০১৩ সালের শেষ তিন মাসে আমরা বাংলাদেশের রাজনীতিতে সত্যি সত্যিই নতুন সূর্যের উদয়ের পথে এগুনোর লক্ষ্যে একত্রিত হলাম। অন্যায় অবিচার দুর্নীতি মুক্ত একটা সুখী, সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন আমাদের একত্রিত করল।

পরবর্তী: সম্মিলিতভাবে সবাই জনগণের সামনে আসবেন।

এবার আমরা জনগনকে সাথে নিয়েই সামনে আসবো। কারণ আমরা জানি, জনগণের ঐক্যের শক্তিই সবচেয়ে বড় শক্তি।

আরও

Overview of (Artificially) Intelligent Agents

Searching Agent

In Artificial Intelligence, you don’t know the exact solution to the problem. If you knew, you would implement an algorithm to solve the problem and it wouldn’t be termed as Artificial Intelligence. So the approach is searching to solve problems.

Problem Solving – Current State Goal State.

Limitation: You provide the agent with a representation and the representation is static. The agent can only search.

Knowledge Based Agent

Knowledge based agents contain a representation of the world.

Logic – a kind of representation for what is “true” in the world.

Inference (if we know these and that are true, then what else are true?) – helps agents go beyond what you provided as representation.

Example: If
“Man is mortal” and
“John is a man”
are true in our world, then we can “infer” that
“John is mortal”

Other knowledge representation schemes besides all of the different forms of logic are available.

Limitation: You can go only as far as “truth” (only true and false with nothing in between) deducible from your knowledge. Logic based agents are usually very inefficient.

Planning Agent

“Efficiently” “Searching” (Problem Solving) with “Knowledge”. Combines the approach of previous two agents.

Probabilistic Agent

All the facts describing the world are not just either “True” or “False”. There is uncertainty, randomness in the real world. Facts hold to a degree.

Probabilistic agents use Probability Theory or other representations that incorporate randomness and uncertainty.

Goal Based Agent -> Utility Based Agent -> Decision Theoretic Agent
An agent must have a goal / set of goals – otherwise it’s behavior would be random. This is the concept behind goal based agent.

Sometimes agents have conflicting goals. In cases like these, utility theory (“satisfaction from achieving each of the goals”) is employed.

Decision theoretic agents combine utility theory (“how much satisfaction am I going to get from achieving this”) with probability theory (“what is the probability of achieving this”).

Learning Agent

The agents we considered thus far can only utilize information provided by the programmer. But to improve performance with experience, learning is required.

Learning is also required in situations where the problem is so hard that human programmers can’t write the correct program on their own. So they write programs that either change parameters of a model or do logical reasoning to learn themselves.

Agents That Communicate With The Real World

Robots perceive, reason and act in the real world. Web-bots consume natural language documents on the web. Software like Siri communicate with us.

Most of the problems in these domains have proven too hard to be solved by human programmers. Rather Machine Learning Algorithms are implemented. That is, ideas from Learning Agents are used. Ideas from all the above mentioned other agents are utilized as well.

Reference
Artificial Intelligence: A Modern Approach

Vision Of “World Wide Education Platform” (WWEP)

The vision


People all over the world would go to a few education providers online for all their education and learning.
“In 50 years, he (Sebastian Thrun) says, there will be only 10 institutions in the world delivering higher education and Udacity has a shot at being one of them.” [1]

I believe it will happen a lot earlier than 2050.

Main Themes of “World Wide Education Platform”

  • One Mobile Computer with broadband access per child
  • Content
  • Authoritative Courses
  • Interactive Content
  • Programming, Computing
  • E-book Subscription
  • Wiki, QA.
  • Learning by doing: Projects, Open Platforms, Open source software, DIY
  • Teaching Meta-Learning Skills
  • HTML5 based. (Type of device won’t become a roadblock.)
  • Personalized Education
  • Content Discovery: Search, Recommendation, Hyperlinks
  • Big Data
  • Gamified Experience
  • Community driven
  • Wikinomics
  • DIY Communities
  • Lifelong Education
  • Works collaboratively with existing Educational Institutions (Schools, Colleges, Universities)

 


Minimum goal of education should be to teach people required skills so that they can learn whatever they need, acquire whichever skill they want to excel at, on their own.

There lies enormous potential in each and everyone of us. A great education system would unlock that potential.

Current Platforms
Udacity
Coursera
EdX
Khan Academy
শিক্ষক

More

 
Reference

An Interim Neutral Government holding Elections Can Lead to Peaceful Resolution of Conflict In Syria

An Interim Neutral Government holding Elections Can Lead to Peaceful Resolution of Conflict In Syria 

[Published: 01.24.14]

In Syria, People belonging to “rebels” groups who have lost family members in the civil war, are not ready to accept Bashar Al-Assad as President.

There are talks going on at the moment organized by UN for transition of power to a transitional government.

The Syrian regime has no intentions for handing over power. We have observed support for Bashar Al-Assad’s government from both Iran and Russia.

More than 110,000 people have lost their lives. What is the point of adding more to that?

Syrian land has become a fertile ground for growth of opposing groups of militants and extremists.

Our carefree attitude might make us pay price in the longer term.

Democracy has to be restored. People should be given the right to choose their own leaders and representatives and it’s the responsibility of leaders to win people’s hearts.

United States can propose for a caretaker government to hold a free and fair election and hand over power to the winning political party.

In Bangladesh, we have experience of Interim Neutral Caretaker Government successfully holding free and fair elections in the years 1996, 2001 and 2008. An advisory council led by the last retired Chief Justice of the Supreme Court rules the country for three months and holds elections before an elected government takes over power in Bangladesh.


The Interim Neutral Caretaker Government could be such that

  • The chief of the caretaker government is acceptable to all parties involved.
  • Military and arms support from outside countries are stopped immediately. 
  • The caretaker government shows zero tolerance to extremists and militias, no matter what ideology they represent.
  • The situation in Syria returns at least close to normal. Initiatives are taken to bring back all the refugees back to Syria. The refugee situation is causing disastrous effects in the Middle East. Humanitarian efforts are undertaken.
  • A definite time period is determined during which the Caretaker Government rules. Before the time period ends, a free, fair, credible and internationally acceptable election is held.


Iran and Russia can make sure the Syrian regime accepts the proposal.


Tolerance for the sake of humanity is expected from Leaders.

Influence & Impact: [As of 04.09.15]

The proposed Model was adopted by Hamas and Fatah to form an Interim Government for West Bank and Gaza Region in 2014 and led to a historic union between Hamas and Fatah.

FatahHamasPalestine

 

Organization Of The Study And Application Of Algorithms

Computational Abstractions

  • Control Abstractions
    • Loop 
    • Recursion
  • Data Abstractions 
    • Data Abstraction Components
      • Structure of Data
      • Operations on Data
    • Linear Data Abstractions 
      • Array
      • Stack 
      • Queue
      • Linked List 
    • Tabular Data Abstractions 
      • Hashing
    • Recursive Data Abstractions
      • Binary Search Tree 
      • Red Black Tree
      • Heap
    • Graph Abstraction
      • Model: Objects with binary relation defined on pairs


Computational Complexity

  • Time Complexity
  • Space Complexity  


    Algorithmic Paradigms

    • Dynamic Programming
      • Recursively define solution to problem in terms of solution to limited number of subproblems.
        • What could be the penultimate subproblems? (Work backwards.)
        • Subproblems having same structure as the original problem, only being smaller in size. 
        • Prove – defining solutions in terms of solutions to subproblems is optimal.
      • Compute and store the results of subproblems in memory so that you don’t have to recompute them. Then use the stored results to compute solution to the problem. 
    • Divide & Conquer
      • Divide the problem into subproblems (dividing up inputs into parts) and solve the subproblems recursively. 
      • Combine the results of solutions of subproblems.
    • Greedy
    • Backtracking
      • If you can define the space of all possible solutions, you can search the space for solutions systematically through backtracking. 
      • In backtracking, you generate one element at a time towards the solution and backtrack whenever you meet a dead-end.  


    Application Domains


    Design algorithms using 

    • Domain Knowledge
    • Computational Abstractions & Algorithmic Paradigms 

    Number Theory

    • Domain Knowledge: Prime, GCD etc.
    • Computational Abstractions & Algorithmic Paradigms: Loop, Recursion etc.

    Combinatorics

    • Domain Knowledge: Binomial Co-efficient, etc.
    • Computational Abstractions & Algorithmic Paradigms: Loop, Table, Dynamic Programming etc.

    String Processing

    Linear Programming


    Matrix Algorithms

    Computational Geometry

    • Domain Knowledge: Properties of geometric objects
    • Computational Abstractions & Algorithmic Paradigms: Stack, etc.

    Polynomials & Fast Fourier Transform

    What Google Could Focus On Next

    Research Problems

    • Cracking Artificial Intelligence with great internal teams & external collaboration – new products, increasingly better existing products – essentially changes the world.
    • It was search, rules, first order logic, probability and other representations. Now, it’s all about learning from massive datasets. Revolutions are coming! Ultimate search engine!
    • Intelligent Personal Agent
    • Solving big problems (or as Google calls them “moon shots“) with (problem focused collaborative research) great internal teams & external collaboration / massive collaboration / open innovation
    • Solve for X, Google X
    • Application of Big Data: understanding complex systems better: finding answers to age old questions: Sociology, Behavioral Science, Political Science, Economics & Business
    • Exploration of new computing architectures – continuation of Moore’s law: exponential increase in processing power – computational power for data processing, intelligence.
    • Parallel computing architectures (e.g., GPUs); Molecular computing; Optical Computing; Quantum computing; Cognitive computing / Neuromorphic computing.
    • Brain-computer Interfacing
    • Google in our brain!
    • Integrating data from all the sources => Knowledge Mining, New Applications

    People focused Social Problems

    • Education & Learning platform
      • Google Play for Education, ChromeBook. Singularity University. Technology and Education are great equalizers.
    • Platforms that empower people – the enormous potential in each and everyone of us is materialized
    • Wikinomics platform 
      • Global collaboration
      • Android, Play, Chrome
    • Products that take on social problems and scale using profit to reach millions
    • Funding / Growing / Working with entrepreneurs to solve problems people face.
    • Solving local, social and global problems (clean water, cheap energy etc.) utilizing massive collaboration and exponential technologies
      • Google.org. Google Ideas. For-profit.

    Healthcare & Biomedicine

    • Computational Biology / Bioinformatics, Systems Biology, Biology Engineering
    • Healthcare Informatics
    • Lifespan extension; Curing Diseases; Preventive Medicine; Personalized Medicine

    Physical Digital Integration

    • Robotics, Automation
    • Car 2.0
    • Electric / hybrid Car? App Market Integration; Automation; Advanced Collision avoidance system
    • Ultimate goal: Self Driving Car, Intelligent Transportation System
    • Computational Materials Design
    • Internet of things; Smart cities; Smart Home; Sensor Web; Big data

     

    Google bought 8 robotics companies in past 6 months.

    Google started with Search; currently focusing more on platforms and services. Lately, excited about the prospects about Physical Digital Integration?

    (Developers Users, Apps).
    Next: Developers developing tools, components Users developing apps?

    Platforms:

    • Android
    • Google Play (Streaming services?)
    • Chrome
    • Google App Engine
    • Google+
    • Google TV
    • (New) Google glass, Motorola, ChromeOS, ChromeBook

     

    Services:

    • Maps
    • GMail
    • Youtube
    • Google Books

     

     

     

    Followups

    নাগরিক শক্তির অনলাইন প্রেসেন্স

    Website

    • মেম্বারশিপ ফর্ম – SMS verification; চাইলে ফেইসবুক আকাউন্ট লিঙ্ক জুড়ে দিতে পারেন। কোন কোন ক্ষেত্রে দক্ষতা-আগ্রহ, দেশের জন্য কোন ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে চান, দলের সদস্য হিসেবে কিভাবে ভূমিকা রাখতে চান, দলের কোন অঙ্গ সংগঠনের সাথে যুক্ত হতে চান। কাগজের ফর্ম পূরণ করেও মেম্বার হিসেবে যোগ দেওয়া যাবে।
    • মতামত ফর্ম – দলের জন্য, দেশের কল্যাণে যে কোন মতামত।  
    • Blog (Anyone can submit; Moderation) সাইট ব্লগে প্রত্যেকের চিন্তা ভাবনা, প্রত্যাশা প্রকাশ করার সুযোগ দেওয়া হবে।
    • Forum on different topics. বিভিন্ন বিষয়ে আলাদা আলাদা থ্রেডে আলোচনা। আপাতত ফোরাম হবে অনলাইনে মতামত জানানোর মূল মাধ্যম। পরবর্তীতে তরুণদের মতামত নিয়ে বিভিন্ন ফিচার সমৃদ্ধ অনলাইন প্ল্যাটফর্ম গড়ে তোলা হবে।  
    • Video (Youtube API), Image Gallery
    • News, Links
    • Mobile Optimized (m.nagorikshakti.org) গ্রামে সবাই ফোন ব্যবহার করে এক্সেস করবে।
    • Facebook / Google+ / Twitter login for commenting, forums etc. সবাই পড়তে পারবে, কিন্তু সাইটে কমেন্ট করতে / মতামত দিতে ফেইসবুক লগইন। (তা নাহলে স্প্যাম, উদ্দেশ্য প্রণোদিত কমেন্ট – অ্যাডমিন মডারেশান এর পর পাবলিশ) 
    • Development: Drupal, WordPress, phpBB – (quick setup, bug-free code) 
    • স্বপ্নের বাংলাদেশের ভিডিও
    • সিকিউরিটি

    Facebook

    • Page
    • Groups। তরুণ তরুণীরা সবচেয়ে বেশি উৎসাহ নিয়ে কাজ করবে। তরুণ তরুণীদের মাঝ থেকেই ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব গড়ে উঠবে। টীম গড়ে তুলতে হবে। সবাই একসাথে বসে মিটিং এর পাশাপাশি যাতে ভার্চুয়ালি একসাথে কাজ করতে পারে, সাজেশান দিতে পারে, যোগাযোগ দিতে পারে সে লক্ষ্যে বাবস্থা – “ফেইসবুক গ্রুপ”। 
    • Image with writings (more people read); নাগরিক শক্তি, প্রতীক – বই trademarked। লেখাগুলো ভাগ করে ইমেইজ হিসেবে শেয়ার দেওয়া হবে (দলের নাম, প্রতীক থাকবে ইমেইজে) – সবাই পড়বে, লাইক – শেয়ার দিবে এবং এভাবে ছড়িয়ে পড়বে। বড় একটা লেখায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ কথা থাকলে অনেক সময় কিছু না কিছু অমনোযোগের কারণে মিস হয়ে যায়। কারও মনে একটা অংশ দাগ কাটে, অন্য কারও মনে আরেকটা অংশ। দুচার লাইনের ছোট ছোট লেখা পুরোটা সবাই মনোযোগ দিয়ে পড়ে।  
    • ডিজিটাল মিডিয়া / সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, তারুণ্য। স্বপ্নের বংলাদেশের ভিডিও (দলের নাম, প্রতীক) -> লিংকঃ ফেইসবুক, ইউটিউব পেইজ, ওয়েব সাইট। দলটা আমাদের সবার। সবার মতামতের ভিত্তিতেই পরিচালিত হবে দল এবং দেশ। স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে উঠবে তারুণ্যের শক্তিতে। তরুণদের জন্য প্ল্যাটফর্ম গড়ে দেওয়া হবে যাতে তারা বিভিন্ন কল্যাণমুখী, উদ্ভাবনী উদ্যোগ নিতে পারে। 

    Twitter

    • International Audience
    • Hashtag: #Nagorik

    Youtube

    • Youtube Channel: স্বপ্নের বাংলাদেশের ভিডিও, দেশ নিয়ে ভিডিও, দলীয় কর্মকাণ্ডের ভিডিও
    • পুরো ভিডিও; ছোট ক্লিপ্স (বেশি মানুষ দেখবে)

    Google+

    E-Mail

    • সবাই যাতে মতামত জানাতে পারে সেজন্য বেশ কয়েকটি ই-মেইল অ্যাড্রেস। 

    Mobile

    • Quick polling; survey (যে কোন বিষয়ে দ্রুত জনগণের মতামত নিতে ব্যবহার) 
    • SMS
    • People should be given the opportunity to express their opinions. SMS Server. 
    • বেশ কয়েকটা নাম্বার। তথ্য দেওয়ার জন্য, মতামত নেওয়ার জন্য।  

    নাগরিক শক্তির পক্ষে গনজোয়ার

    নাগরিক শক্তির শক্তিঃ

    1. মুক্তিযোদ্ধা সমাজ
    2. নাগরিক সমাজ
    3. ব্যবসায়ি সমাজ
    4. তরুণ প্রজন্ম
    5. গ্রামীণ নারী
    6. মাদ্রাসা সংশ্লিষ্ট, আলেমসমাজ
    7. ক্ষুদ্র ও মাঝারী ব্যবসায়ী
    8. পাহাড়ি জনগোষ্ঠী
    9. কৃষক সমাজ
    10. রাজনৈতিক দল, নেতাকর্মীরা
    11. ঘোষণা দেওয়ার পর আমাদের “স্টার-প্যাকড” নেতৃত্ব

    আমাদের অত্যন্ত শক্তিশালী তিনটি নেটওয়ার্ক আছে – তিনটি নেটওয়ার্কের প্রতিটির আওতায় মিলিয়ন মিলিয়ন মানুষ আছেন।

    আরও দুটি ডেমগ্রাফিক আছে – প্রত্যেকটি কয়েক মিলিয়ন মানুষের।

    গ্রামীণ নারী – ৫০ লক্ষ +

    মাদ্রাসা সংশ্লিষ্ট, আলেমসমাজ – ৩০ লক্ষ +

    গার্মেন্টস কর্মী – ৪০ লক্ষ

    শেয়ারবাজারে ক্ষতিগ্রস্থ বিনিয়োগকারী – ৩০ লক্ষ +

    তরুণ ভোটার – (১৮ – ৩৫ বছর) – মোট ভোটারের ৪৫%, অর্থাৎ ৯ কোটি + ভোটারের মধ্যে প্রায় ৪ কোটি+।
    এদের overwhelming majority নাগরিক শক্তির সাথে থাকবে।

    ফেইসবুক ব্যবহারকারি – আনুমানিক ৫০ লক্ষ – এই সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে। এদের overwhelming majority নাগরিক শক্তির সাথে থাকবে।

    নারী ভোটার – ৪ কোটি ৫০ লক্ষ +।

    মেডিক্যাল কলেজগুলোতে আনুমানিক ৬০ ভাগ ছাত্রী। গ্রামীণ ব্যাংক – ৮৪ লক্ষ গ্রাহক, ৯৭% নারী। গার্মেন্টস – ৪০ লক্ষ কর্মীর মধ্যে প্রায় ৮৫% নারী কর্মী।

    আমাদের এলাকা ভিত্তিক ভোটার হিসাবে যেতে হবে।

    নাগরিক শক্তির পরবর্তী লক্ষ্য

    কৃষক সমাজ
    আমাদের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে এদের সংগঠিত করা হবে।
    (প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।)

    ভিন্ন ধর্মাবলম্বী, জাতিগোষ্ঠী (প্রায় ৮০ লক্ষ ভোটার)
    বিএনপি-জামায়াত জোট সুযোগ পেলে ঝাপিয়ে পড়বে। আওয়ামী লীগের পক্ষে নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব না। একমাত্র নাগরিক শক্তির পক্ষে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব। নাগরিক শক্তি ক্ষমতায় গিয়ে ২০০১ নির্বাচন উত্তর সংখ্যালঘু নির্যাতন, রামু, পটিয়া, অন্যান্য হামলা এবং সাম্প্রতিক নির্বাচনকালীন হামলাগুলোর সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমে বাংলাদেশে চিরদিনের জন্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠিত করবে। এখন জনগণকে সংগঠিত করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে ভিন্ন ধর্মাবলম্বী, জাতিগোষ্ঠীর মন জয় করতে হবে।
    (প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।)

    প্রবাসে কর্মরতদের পরিবার।
    প্রবাসে প্রায় ১ কোটি কর্মী কর্মরত আছেন। তাদের পাঠানো ফরেইন রেমিটেন্সের অর্থ আমাদের অর্থনীতিতে একটা নতুন মাত্রা যোগ করেছে। তারা একটা নতুন ডেমগ্রাফি গড়ে তুলছে। তাদের কারও কারও পরিবারের একটা অংশ গ্রামে থাকলেও ছেলেমেয়েরা শহরে পড়াশোনা, কাজ করছে। এই ডেমগ্রাফির আশা আকাঙ্ক্ষা স্বপ্ন বোঝার চেষ্টা করতে হবে। প্রবাসে কর্মরতদের বিভিন্ন সমস্যা যেমন উন্নত কাজের পরিবেশ, থাকার পরিবেশ এবং সর্বোপরি স্বাস্থ্য সুবিধা নিশ্চিত করতে ক্ষমতায় গিয়ে বাংলাদেশ এম্বেসিগুলোর ভূমিকা বাড়ানো হবে এবং এখন সবাইকে সাথে নিয়ে সরকারকে যথাযথ উদ্যোগ নিতে চাপ দেওয়া হবে। এক একটি দেশে কর্মরতদের পরিবারদের নিয়ে এক একটি সংগঠন গড়ে তোলা যায়। এভাবে শুরু করতে পারলে যারা সংগঠনে আছেন তারাই নিজেদের শক্তিশালী করতে, অধিকার দাবি দাওয়া আদায় করতে অন্যদের অন্তর্ভুক্ত করবেন।
    (প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।)

    এরা সবাই যখন পরিবার, পরিচিতদের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়বে!

    সাথে যোগ দেবেন প্রাজ্ঞ রাজনীতিবিদরা।

    আমাদের “স্টার-প্যাকড” নেতৃত্বের পাশে প্রতিদ্বন্দ্বী দলগুলো!

    সবার উপরে আমাদের ভিশন এবং জনগণের পাশে থেকে জনগণের জন্য উন্নয়নের রাজনীতি করার অভিপ্রায়। আর মেধা – নেটওয়ার্ক এবং উন্নত ইলেকশান ক্যাম্পেইন স্ট্রাটেজি







    Election Campaign Strategy for Bangladeshi Political Party (বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলের ইলেকশান ক্যাম্পেইন স্ট্রাটেজি)

     

    Election Campaign Strategy for Bangladeshi Political Party

    নাগরিক শক্তি নির্বাচনী ক্যাম্পেইন পরিকল্পনায় গতানুগতিকতা থেকে বেরিয়ে এসে সৃজনশীলতা দেখাবে।

    নাগরিক শক্তির ইলেকশান মটো – “আমরা করবো জয়”।

    স্পিরিটেড নেইশান (Spirited Nation) গড়ে তোলা হবে।
    স্বপ্নের বাংলাদেশ। সবাই একসাথে কাজ করতে পছন্দ করে – জনগণের ঐক্য। আর আওয়ামী বাংলাদেশ – জাতীয়তাবাদী বাংলাদেশের নামে দেশ বিভক্তি নয়, এবার নাগরিক শক্তির নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ বাংলাদেশ।

    প্রতি নির্বাচনী এলাকায় কোন সামাজিক উদ্যোগ যাতে এলাকার জনগণ লাভবান হয়।

    প্রতি নির্বাচনী এলাকায় জনগণের মাঝে নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা। [1] যেসব ভোট প্রতিদ্বন্দ্বীরা পেতে পারে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলে সেসব জয় করা – জনগণের মাধ্যমে জনগণের কাছে পৌঁছানো।

    জনগণের সমস্যাগুলো বোঝার চেষ্টা করা। দলের কেন্দ্রীয় পর্যায়কে অবহিত করা। জনসভার একটা অংশ থাকবে জনগণের মতামত নেওয়ার জন্য।

    সার্ভেই। পোলিং। সেলফোন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে।

    যেসব নির্বাচনী এলাকায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে সেসব এলাকায় ফোকাস করা।

    প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এবং তার শক্তি – দুর্বলতা অ্যানালাইসিস করা।

    নির্বাচনী আচরণবিধি কঠোরভাবে প্রয়োগ করা হলে কালো টাকার প্রভাব থাকবে না। কালো টাকা ব্যবহার করলে প্রার্থিতা বাতিল হবে। জনগণকে সাথে নিয়ে মাস্তান বাহিনীকে প্রতিরোধ করা হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হবে। এভাবে পেশি শক্তির প্রভাবও চলে যাবে। প্রতিটি জনগণ স্বাধীনভাবে ভোটের অধিকার ফিরে পাবে।

    সবরকম মিডিয়া ব্যবহার করে জনগণের কাছে পৌঁছানো।

    পুরো দেশকে কয়েকটি নির্বাচনী এলাকায় ভাগ করে প্রতি এলাকার জন্য “নির্বাচন পরিচালনা কমিটি” গঠন।

    জরিপ করে জনগণের মন, জনগণের আশাআকাঙ্ক্ষা বোঝার উদ্যোগ নেওয়া হবে – কারা “ক” দলকে ভোট দেবেন? কি কি কারণে? কারা “খ” দলকে ভোট দেবেন? কি কি কারণে? (এসব ভোট কিভাবে নিজেদের পক্ষে আনা যায়?) অতীতে কোনবার কোন দল বা প্রার্থীকে ভোট দিয়েছেন? কেন? ভিন্ন দলকে ভোট দিলে সমর্থন পালটানোর কারণ কি? এলাকার উন্নয়নে কি কি দেখতে চান? কি কি সমস্যার সমাধান চান? (প্রার্থী হিসেবে কাল টাকার মালিক থাকলে তিনি কিভাবে নির্বাচনকে প্রভাবান্বিত করতে পারেন? কতটা?)

    এরপর কেন্দ্রীয় ভাবে ডেটা – স্ট্যাটিস্টিক্যাল অ্যানালাইসিস। ভোটারদের বিভিন্ন সেগমেন্টে ভাগ করে ফেলা – এই এই বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন ভোটাররা এই দল / প্রার্থীকে পছন্দ করছেন।

    জনগণের গঠনমূলক সমালোচনাকে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে গ্রহণ করে প্রার্থীরা নিজেদের ভুলভ্রান্তি দূর করে কর্মকাণ্ড আরও উন্নততর করার কাজে ব্যবহার করবেন।

    প্রতিটি নির্বাচনী সভায় জনগণকে তাদের আশা আকাঙ্ক্ষা প্রত্যাশার কথা বলার সুযোগ দেওয়া হবে। আধুনিক প্রযুক্তি যেমন ভিডিও চিত্রের (বিভিন্ন এলাকার জন্য উপযোগী করে প্রয়োজনে স্থানীয় ভাষায়) মাধ্যমে নতুন বাংলাদেশের স্বপ্নে জনগণ উজ্জীবিত হবে।

    আধুনিক যোগাযোগ মাধ্যম যেমন ভিডিও কনফারেন্সিং, ইন্টারনেট ভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, মোবাইল প্রযুক্তির ব্যবহার করা হবে।

    সবাইকে নিয়ে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হবে। এলাকার প্রতিষ্ঠিত বেক্তিরা এগিয়ে আসবেন, বাবসায়িরা সামাজিক এন্টারপ্রাইস প্রতিষ্ঠা করবেন। এলাকার জনগণ একতাবদ্ধ হয়ে নিজেরা নিজেদের সমস্যা সমাধান করবেন।

    এভাবে রাজনীতিতে মেধার প্রয়োগ দেখিয়ে নাগরিক শক্তি দেশে নতুন রাজনীতির শুভ সূচনা করবে।

     

    বড় দলগুলো অর্থ দিয়ে মনোনয়ন বিক্রি করে। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা অর্থ দিয়ে মনোনয়ন বাণিজ্যের নিলাম হাট থেকে মনোনয়ন কেনেন। কালো টাকা, পেশি শক্তির প্রভাব হয়ে ওঠে যোগ্যতা নির্ধারণের মাপকাঠি।

    নাগরিক শক্তি মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে জনপ্রিয়তা, যোগ্যতা, মেধা, সততা, অভিজ্ঞতা, এলাকার উন্নয়ন কাকে দিয়ে হবে – এসব বিষয় বিবেচনায় নেবে। তৃনমূল থেকে প্রার্থীদের নাম প্রস্তাবের আহ্বান জানানো হবে এবং কেন্দ্রিয়ভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। একাধিক প্রার্থী প্রায় সমান যোগ্যতা সম্পন্ন হলে সার্ভেই করে দেখা হবে জনগণ কাকে চান।

    ফান্ড রেইজিং এর মাধ্যমে যে অর্থ রেইজড হবে তা শুধু মাত্র প্রার্থীদের ইলেকশান ক্যাম্পেইনে বায় করা হবে। প্রতিটি পয়সা খরচের হিসাবও রাখা হবে। স্বচ্ছতা কেন্দ্রিয়ভাবে মনিটারিং করা হবে এবং কারও বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হলে দল থেকে বহিষ্কারসহ কঠোর বাবস্থা নেওয়া হবে।


    আরও (More)

    রেফরেন্স (References)

    Programming Languages I Am Learning / Working With

    1. C/C++
      • Systems (Linux, Android, Chrome) Programming 
      • Efficiency. Memory manipulation. Complete control over the environment. 
    2. Go 
      • Systems, Concurrent and Networked Programming 
      • Static Typing
      • Faster compilation 
    3. Java 
      • Managed Code
      • Android Application Development
      • Open Source Libraries and Frameworks
    4. Scala 
      • A blend of all the features you ever saw in different languages! 
      • Tries to answer “So, if we want to let programmers implement this feature as language library rather than language syntax, what features do we need to introduce in the language?” 
        • Features:
          • Actors Library 
          • Operators as Functions 
          • Flexible syntax (Prefix, Infix, Postfix mixing) 
        • Makes Scala DSL friendly and “scalable”.
        • Makes the core language small (rest of the features are implemented in the library). Lisp Philosophy. 
      • What happens when you try to fuse OOP and Functional Programming on JVM? 
      • Static Typing and Terse syntax
      • Concurrent and Distributed Programming
    5. Clojure 
      • Lisp on JVM
      • Metaprogramming (Programmable Language) 
      • Functional Programming
      • Concurrent Programming
    6. Python 
      • Rapid Development
      • Open Source Libraries and Frameworks
    7. JavaScript 
      • Web Front-end (with HTML5 & CSS)
      • Object-based Programming 
      • Node.JS
      • Statistical, Numerical Computing 
    8. Haskell
      • Purely Functional Programming
    9. Erlang
      • Fault-tolerant Real-time Parallel Distributed Computing
      • Modifiable without downtime

    Current Preference

      If you need complete control over the environment, go down to C++. Otherwise, use Scala, Java, Clojure. 

      Areas Of Mathematics I Am Working On

      Probability & Statistics

      • Probability.
        • Bayes. Bayesian Network.
        • Hidden Markov Model
      • Statistics
      • Stochastic models & processes

      Algebra

      • Classical Algebra
        • Polynomials
        • Inequalities
        • Series & Sequences
        • Functional Equations
      • Linear Algebra. Matrix. 
        • Eigenvalue. Eigenvector.
        • Latent Semantic Indexing.
      • Abstract Algebra
        • Group Theory 
      • Algebraic Geometry
      • Representation Theory
      • Category Theory
      • Quaternions 

      Analysis

      • Calculus
      • ODE
      • PDE
      • Real Analysis
      • Complex Analysis
      • Vector Analysis
      • Tensor Analysis
      • Fourier Analysis
      • Laplace Transform
      • Harmonic Analysis

      Geometry

      • Euclidean Geometry
      • Co-ordinate Geometry
      • Trigonometry
      • Topology
      • Manifold
      • Differential Geometry
      • Dynamical Systems

      Discrete Mathematics

      • Combinatorics
      • Combinatorial Geometry
      • Graph Theory
      • Automata & Language Theory. Boolean Algebra.
      • Number Theory
      • Cryptography
      • Mathematical logic

      Applied Mathematics

      • Algorithm
      • Game Theory
      • Concrete Mathematics
      • Operations Research
        • Optimization
      • Numerical Analysis. Scientific Computing
      • Network Science
      • Mathematical Economics
      • Mathematical Physics
      • Mathematical Biology
      • Theoretical Computer Science 


      And of course Mathematical Problem Solving and the study of heuristics.

      Anyone want to join me?

      Fundamental Shift In Education: A Requirement Of Our Time

      Fundamental shift in education is a requirement of our time.Searchable facts are available online. When you have the Internet at your fingertips aided by Google you can learn anything ever known to mankind.

      Computational devices / apps {e.g., WolframAlpha} are available. We don’t need to do multiplications or divisions or even algebraic calculations anymore. Computer based Numerical Computing and Symbolic Algebra Systems (SageMathematicaMatlab) and Statistical Computing Systems (R) are available. All we need to learn is to turn real world problems into computer programs that can solve our problems.

       

      Exponential growth of human knowledge means that much of what you know today would become obsolete ten years from now. So lifelong education is the norm.  

      Breadth of knowledge will become increasingly important. You need to know what you need to know and once you know what you need to know, you can find it online.

      Boundaries between different fields of study are opening up. We organized different fields of study (Physics, Chemistry, Biology etc.) more than hundred years ago. We organized everything related to life under Biology. The study of atoms and molecules and reactions was named Chemistry. Physics concerned itself with forces and matter of the universe and their interactions with the ultimate goal of reducing all forms of interaction into few fundamental laws (one law – “The Theory Of Everything” or so the Physicists say – if you are a bit ambitious!). But now in the light of new knowledge and better tools, new organization of fields of study is required.

      As we gained knowledge about the chemical processes of life, we organized our knowledge under the name Biochemistry. Fields that used to be completely separate are merging in the light of new knowledge and better tools to tackle common problems. For example, Biology and Computer Science, once separated, have combined to form Computational Biology / Bioinformatics as a result of explosion both in genomic and more generally biological data and computational power. New fields of study like Bioengineering, Biophysics, Cognitive Neuroscience, Computational Materials Science have popped up. As we look forward into the future, we can see Computer Science and Physics combining to form Physical Digital Integration and creating a world that is much different and better than ours. 

      The Education of future Engineers would be based on Science and Mathematics: learning a few concepts that can explain all the different tools, technologies, possibilities and limits.

      With the proliferation of global collaboration platform The World Wide Web, we need to direct research in the right direction – one that centers on solving real problems collaboratively, not just publication of random research papers (for getting promoted!).

       
      In short, a complete reorganization of Education as it is today. Are we ready?


      Followups

      বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতি

      বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতির সূচনার পর বেশকিছু ব্যাপার আমরা লক্ষ্য করছি।

      আমরা লক্ষ্য করছি, অনেকগুলো ছেলেমেয়ে রাতদিন গণিত করে।

      স্কুল কলেজে আমরা গণিত বলতে exercise করি – কিছু নির্দিষ্ট ধাপ বা কম্পিউটার বিজ্ঞানের ভাষায় অ্যালগরিদম মেনে চলি মাত্র। কিন্তু গণিত অলিম্পিয়াডের সমস্যাগুলো সমাধানে ধাপগুলো বা অ্যালগরিদম নিজেকে দাঁড় করাতে হয়। অন্যকথায়, গণিত সৃষ্টি করতে হয়।

      একটা উদাহরণ দেই। দুটা সংখ্যাকে গুণ করতে আমরা না বুঝেই কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলি – প্রথমে দুটি সংখ্যার সবচেয়ে ডানের অঙ্ক দুটিকে গুণ করি, তারপর হাতে রাখি ইত্যাদি। কিন্তু গণিত অলিম্পিয়াডে এই ধাপ বা নিয়মগুলো – কোন ধাপের পর কোন ধাপ হবে – তা নিজেকে চিন্তা করে বের করতে হয় – অর্থাৎ গণিত সৃষ্টি করতে হয়। আমরা বলি, স্কুল কলেজে তোমরা exercise কর, আর আমরা গণিত অলিম্পিয়াডে problem solve করি। কাজেই এখনও যারা Problem Solving কর না, আশা করি, তোমরাও দ্রুত আমাদের দলে যোগ দেবে!

      একটা প্রজন্ম গড়ে উঠছে যাদের গড় IQ আগের প্রজন্ম গুলোর তুলনায় বেশি। অনেকগুলো ছেলেমেয়ে আগের চেয়ে ভালভাবে চিন্তা করতে পারে। আমাদের দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দৈনিক এ নিজের ছবি দেখা; বিশ্ব প্রতিযোগিতায় নিজ দেশকে represent করা – অনেক বড় inspiration

      আমরা লক্ষ্য করেছি, গণিত অলিম্পিয়াডের অনুষ্ঠানগুলোতে অনেক ভাল ভাল কথা হয়। আলোকিত মানুষ হওয়ার, দেশকে ভালবাসার অনুপ্রেরণা পায় ছেলেমেয়েরা। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা দেশের গুণী মানুষদের কাছ থেকে দেখার সুযোগ পায়, প্রশ্ন করতে পারে, কথা বলতে পারে এবং অটোগ্রাফও নিতে পারে!

      দুটা চমৎকার ব্যাপারের একটা হল “গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো” – অনেকগুলো ছেলেমেয়ে নিজের জীবন নিয়ে দেশ নিয়ে বড় বড় স্বপ্ন দেখছে। আরেকটা হল একেবারে ক্লাস থ্রি – ফোরের ছেলেমেয়েরা ড. জাফর ইকবালের ভাষায় “পেন্সিল কামড়ে” অঙ্ক করতে আসে!

      আমরা লক্ষ্য করেছি, বাংলা মাধ্যমের বেশ কিছু ছেলেমেয়ে বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেল এ পড়ার সুযোগ পেয়েছে। মুন পড়ছে Harvard University তে [1], নাজিয়া MIT তে [2] (নাহলে “MIghTy” শব্দটা এভাবে লেখা আমাদের শেখা হত না!), ইশফাক Stanford University তে [3], তানভির Caltech এ [4] (আমাদের শ্রদ্ধেয় ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এই বিশ্ববিদ্যালয়ে Post-Doctoral Researcher হিসেবে কর্মরত ছিলেন) [5], সামিন Cambridge University তে [6]।
      আগে গ্রাজুয়েট স্কুলগুলোতে আমরা এমএস বা পিএইচডি করতে যেতাম। ইংরেজি মাধ্যমের অবস্থাসম্পন্ন ছেলেমেয়েরা পড়তে পারত আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেলে। কিন্তু “বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়তে যাওয়াটা নতুন!

      “বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়ার পথ দেখানোর কৃতিত্বের একক দাবিদার বাংলাদেশ গণিত দলের কোচ ড. মাহবুব মজুমদার  [7]; যিনি নিজে MIT থেকে Electrical Engineering এ আন্ডারগ্রাড, Stanford University থেকে Civil Engineering এ মাস্টার্স এবং Cambridge University থেকে Theoretical PhysicsPhD করে Imperial College এ [8] Post Doctoral করছিলেন। ২০০৫ সালে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের সাথে সম্পৃক্ত হন এবং স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে দেশে থেকে যান। বিদেশী ও ইঞ্জিনিয়ারিং আন্ডারগ্রাড ডিগ্রি থাকা এবং আরও কিছু কারণ দেখিয়ে তাকে Dhaka UniversityPhysics Department এ যোগ দিতে দেওয়া হয়নি। [9]

      ১৯০৫ এ আইনস্টাইনের “Miracle Year” [10] স্মরণে ২০০৫ সালের বাংলাদেশ জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াডে আইনস্টাইন এবং পদার্থবিজ্ঞানের উপর একটা প্রশ্ন উত্তর পর্ব ছিল। সেখানে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলাম। তাই গণিত ক্যাম্পে ড. মাহবুব মজুমদার আগ্রহের সাথে পদার্থবিজ্ঞান নিয়ে আলোচনা করতেন। মেক্সিকোতে যাওয়ার আগে প্রেস কনফারেন্সে দেখি তিনি স্ট্রিং থিউরি (String Theory) র [11]  একটা জটিল পেপার নিয়ে হাজির!

      আরেকটা ব্যাপার লক্ষ্য করার মত। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে আমাদের সাফল্যের মাত্রা দ্রুত বাড়ছে। আমাদের কিশোর – তরুণ গণিতবিদরা ২০০৬ সালে প্রথমবারের মত অনারেবাল মেনশান, ২০০৯ সালে প্রথমবারের মত ব্রোঞ্জ মেডাল, ২০১২ সালে প্রথমবারের মত সিলভার মেডাল জয় করে এনেছে। আমরা আশা করছি, এই ধারা অব্যাহত রেখে বাংলাদেশ গণিত দল ২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড থেকে গোল্ড মেডাল নিয়ে ফিরবে! গোল্ড মেডাল জয়ী সেই গণিতবিদ হতে পারো তুমিই!

      গণিত অলিম্পিয়াডের এই সংস্কৃতি সম্ভব হয়েছে কিছু তরুণ – তরুণীর স্বেচ্ছা কর্মোদ্যোগে। আমরা তাদের “মুভারস” (MOVERS – Math Olympiad Volunteers) বলে জানি। একটা শুভ উদ্যোগে দেশের তরুণ তরুণীদের উৎসাহী অংশগ্রহণ আমাদের প্রাণশক্তিতে ভরপুর তরুণ প্রজন্মকে সংজ্ঞায়িত করে।

      নাগরিক শক্তি গণিত অলিম্পিয়াডের এই সংস্কৃতিকে দেশে আরও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেবে।

      বাঙালি সংস্কৃতি – মিশ্র সংস্কৃতির সৌন্দর্য

      আমাদের পূর্ব পুরুষরা ছিলেন সনাতনী ধর্মাবলম্বি। এরপর মুসলমান শাসনামলে এ এলাকা মুসলিম প্রধান হয়ে ওঠে। ব্রিটিশদের মাধ্যমে আমাদের সংস্কৃতিতে ওয়েস্টার্ন কালচারেরও অনুপ্রবেশ ঘটেছে।

      সব ধরণের সংস্কৃতি মিলে হল – বাঙালি সংস্কৃতি।

      একটা উদাহরণ দেবো?

      আমাদের বিয়ের আগে এঙ্গেইজমেন্ট হয় – ওটা ওয়েস্টার্ন কালচার থেকে শেখা। গাঁয়ে হলুদের অনুষ্ঠানগুলো হয় সনাতনী সংস্কৃতি [1] অনুসারে। আকদ [2] ইসলামিক। বউ ভাতটাও সনাতনী সংস্কৃতির।

      আরেকটা উদাহরণ?

      আমরা পায়ে ধরে সালাম করি। “সালাম” করাটা ইসলামিক। আর “পায়ে ধরা”টা সনাতনী সংস্কৃতির। দুটা মিলে “পায়ে ধরে সালাম”!

      বাঙালি সংস্কৃতির সৌন্দর্য হল এই বৈচিত্র্য।

      কাজেই এই বৈচিত্র্য-সৌন্দর্য কে অস্বীকার করে কেউ যখন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর হামলা চালায় তখন তা আমাদের ঐতিহ্য সংস্কৃতির সাথে বড় বেমানান দেখায়।

      রেফারেন্স
      [1] Mehndi
      [2] Akd Contract

      Conflicting Interest in Regional Dominance is Nurturing Militants and Extremists in Middle East: Is this Acceptable?

      In Middle East, regional dominance and Shiite-Sunni conflict is giving rise to and encouraging militants and extremists.Saudi Arabia and it’s allies and Iran and it’s allies are in opposite groups, with Saudi Arabia being Sunni dominant and Iran being Shiite dominant.

       

      Because of power conflict and interest in regional dominance, both sides are encouraging groups of opposing militants and extremists.

      But does “Islam”, a word derived from “Salam”, which literally means “peace”, really encourage or even approve such conflicts?
      Suicide and collateral damage are forbidden in Islam and the person who commits suicide is destined to go to hell.
      Prophet Muhammad declared unity of humanity in his last sermon, “All mankind is from Adam and Eve, an Arab has no superiority over a non-Arab nor a non-Arab has any superiority over an Arab; also a white has no superiority over black nor a black has any superiority over white except by piety and good action.” [1]

      In the age of globalization, it’s the mutual economic relationship and mutual economic engagement, not military engagement, that brings prosperity.



      Follow-ups

      Reference

      নাগরিক শক্তির অর্থনৈতিক দর্শন (Economic Philosophy)

      নাগরিক শক্তির অর্থনৈতিক দর্শনের মূলে রয়েছে দুটি বিষয়

      • প্রত্যেকটি মানুষের মাঝে বিপুল শক্তি লুকিয়ে আছে। এই শক্তি জাগ্রত হয় এমন ব্যবস্থা চালু করতে হবে।
      • Win-win, Non-zero sum games. এমন ব্যবস্থা যেখানে সব পক্ষই জিতবে। 

      নাগরিক শক্তি প্রত্যেকটি মানুষের মাঝে যে বিপুল শক্তি লুকিয়ে আছে তাকে জাগ্রত করতে উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসুবিধা নিশ্চিত করা এবং ব্যবসা-শিল্প-বিনিয়োগ-উদ্যোক্তা বান্ধব পরিবেশ গড়ে তুলবে। সামাজিক ব্যবসার বিকাশের মাধ্যমে সমাজের সমস্যাগুলো দূর করে গণ মানুষের উপরে ওঠার ক্ষেত্র তৈরি করবে। জনসাধারণের বিকাশের জন্য বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম গড়ে তুলবে।

      এক একটা মানুষ যেখানে বিশাল শক্তি হতে পারে সেখানে ১৬ কোটি মানুষকে জাগিয়ে তুলতে পারলে আমাদের আর পিছে ফিরে তাকাতে হবে না। কাজেই দেশের ১৬ কোটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করা নাগরিক শক্তির লক্ষ্য। আমরা ১টি মানুষের শক্তিকেও বৃথা যেতে দিতে চাই না (শুধু শীর্ষ অপরাধীদের বাদ দিয়ে)।

      একদিকে শিল্পের বিকাশ এবং অন্যদিকে জনকল্যাণমুখী অর্থনীতি চালু করে নাগরিক শক্তি বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে একটি অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে গড়ে তুলবে।

      সমাজতান্ত্রিকরা মনে করেন, পুঁজিবাদের বিকাশ ঘটলে পুঁজিবাদীরা শ্রমিক শ্রেণী থেকে লুট করে ধনী হন। কিন্তু আমরা বিশ্বাস করি, এমন পদ্ধতি চালু করা সম্ভব যেখানে সব পক্ষ সর্বোচ্চ লাভবান হবে, সব পক্ষই জিতবে। পুঁজিবাদের বিকাশ ঘটলে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়। শিল্পের মালিকরা শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে ব্যবস্থা নিলে, কারখানার পরিবেশ উন্নত করলে অধিকতর উৎপাদনশীলতা থেকে মালিকরা লাভবান হন। শ্রমিকদের আর্থিক অবস্থার উন্নতি ঘটলে তারা শিল্প পণ্য আরও বেশি কেনেন। এভাবে শিল্পের বিকাশ ত্বরান্বিত হয়।

      আমাদের দেশের সমস্যা হল, দুষ্ট রাজনীতির কারণে আইন শৃঙ্খলার উরধে উঠে দুর্নীতি সন্ত্রাসে নিমজ্জিত একদল লুটেরা শ্রেণীর উদ্ভব ঘটেছে। নাগরিক শক্তি জনগণকে নিয়ে এই অপরাধী শ্রেণীর হাত থেকে জনগণকে রক্ষা করবে।