Lures Of Scala

Lures Of Scala

  • A blend of all the features you ever saw in different programming languages! 
  • Scala is a “Scalable” Programming Language. How does Scala scale? By keeping the core language small and letting features to be added as libraries. You can build your own library and scale the language. How does Scala do that? Scala tries to answer: “So, if we want to let programmers implement this feature as language library rather than language syntax, what features do we need to introduce in the language?” 
    • Features and examples of this concept: 
      • Actors Library 
      • Operators as Functions 
      • Flexible syntax (Prefix, Infix, Postfix mixing)
      • Uniformity of Objects, Functions and Operators.  
    • Makes Scala DSL friendly (“almost” English) and “scalable” (You can build libraries for Scala that look like language syntax additions.
    • Makes the core language small (rest of the features are implemented in the library). “Lisp Philosophy”. But during the time Lisp was invented, it was early days in computer programming and few language constructs were known. Now that we have a lot of language constructs, Scala tries to define a language that lets programmers implement those features with a small core language.
  • Uniformity of Objects, Functions and Operators => Symbolic Programming. (<- A Function literal in Scala!) 
  • What happens when you try to fuse OOP and Functional Programming on JVM? 
  • You can apply battle-tested OO Design Patterns.
  • Functional Programming Patterns and Lisp Patterns are getting fashionable and of course useful (Multicores, Concurrency)! Scala lets you use those patterns in our code and design. 
  • Well suited for data processing applications.  
    • Functional Programming, Map, Reduce, Filter. 
  • Static Typing. 
  • Terse syntax.
    • Type inference
    • Semicolon inference
    • Control abstractions with Higher order functions
    • Improved syntax for Object Oriented Programming
    • Pattern Matching
  • Concurrent, Parallel and Distributed Programming.
    • Actors Model.
    • Akka Framework. 
    • Scala creator Martin Odersky himself takes Parallel Programming Challenge seriously [1]. 
  • Pattern Matching.
  • Traits.
  • Components and Composition.
    • How do you fuse Object Oriented and Functional Programming to facilitate the elusive goal of Component oriented Software Development? 
  • REPL (Read-Evaluate-Print loop)
 

References

A Collection Of My Favorite Quotes

Wisdom

“Know thyself.” 

– Greek maxim

“Intellectuals solve problems, geniuses prevent them.” 

– Albert Einstein



Open Independent Mind

Open independent mind is a necessary prerequisite for creativity.

“If your mind is empty, it is always ready for anything, it is open to everything. In the beginner’s mind there are many possibilities, but in the expert’s mind there are few. ”
– Shunryu Suzuki


“Believe nothing. No matter where you read it, or who said it, even if I had said it, unless it agrees with your own reason and your common sense.” 
– Buddha

“I do not want my house to be walled in on all sides and my windows to be stuffed. I want the cultures of all lands to be blown about my houses as freely as possible. But I refuse to be blown off my feet by any.” 
– Mahatma Gandhi

“Few are those who see with their own eyes and feel with their own hearts.” 
– Albert Einstein

A lot of conflict arise between people who have closed dependent minds. They divide the world into black and white, right and wrong and nothing in between. They view their way as the only right one and others’ as wrong. They never try to be themselves, instead follow the path others have shown them without much consideration or reflection.

People in general categorize things they see around them into different predefined categories. It helps us make quick decisions because we know what to do with a certain category of object. But how can we be so sure that the categories and the knowledge associated with each category, that our society and culture have taught us (imposed upon us), is correct?


On Living

“It’s the possibility of having a dream come true that makes life interesting.” 
– Paulo Coelho

“I have always wished that for myself … Stay hungry, stay foolish.” 
– Steve Jobs



“Life begins at the end of your comfort zone.” 
– Neale Donald Walsch

“We are like newborn children,
Our power is the power to grow.”
– Rabindranath Tagore


“If we did all the things we are capable of doing, we would literally astound ourselves.” 
– Thomas A. Edison

Being internally happy, satisfied and fulfilled and making others happier, more satisfied and fulfilled is the most important goal in life. Worldly objects, possessions, achievements are the means for becoming happier, not the ends.


“When one door of happiness closes, another opens; but often we look so long at the closed door that we do not see the one which has been opened for us.” 

― Helen Keller

You have faith and confidence – you win. You have fear and doubts – you know what happens …

Faith and Confidence have inner Spiritual power beyond the Psychological ones we know of.

Immediately Jesus reached out his hand and caught him. “You of little faith,” he said, “why did you doubt?”
– Matthew 14:31.

On Imagination

People commonly believe – poetry, the arts and literature require us to have “Imaginative” powers. Sciences, Mathematics and Engineering require “Analytical” abilities.

But in truth, Mathematics, the Sciences and Engineering require far more sophisticated “Imagination” than is commonly assumed.

“Good, he did not have enough imagination to become a Mathematician”.
— Hilbert’s response upon hearing that one of his students had dropped out to study poetry.

“Logic will get you from A to B. Imagination will take you everywhere.”
– Albert Einstein

On Knowledge & Ignorance

“Sixty years ago I knew everything; now I know nothing; Education is a progressive discovery of our own ignorance.” 
– Will Durant

– “Everything that can be invented has been invented.” – Charles Holland Duell, 1899

– “Virtually nothing, and I mean this honestly, has been invented yet. We’re just starting …” – Woddy Norris, 2005.

 What we know as Science today is only part of the Ultimate Reality. The Ultimate Reality is still to be disclosed.

“The universe is not only queerer than we imagine, but queerer than we can imagine.”
– J. B. S. Haldane

“There are more things in heaven and earth, Horatio,
Than are dreamt of in your philosophy.”
– William Shakespeare (Hamlet)



Higher Philosophy

Many of the events seem to be part of different human-made plans. But how can we be so sure that there isn’t an Ultimate Planner behind all the seemingly unrelated events?

“Ask and it will be given to you; seek and you will find; knock and the door will be opened to you.”
– Matthew 7:7

“I believe that everything happens for a reason. People change so that you can learn to let go, things go wrong so that you appreciate them when they’re right, you believe lies so you eventually learn to trust no one but yourself, and sometimes good things fall apart so better things can fall together.” 
― Marilyn Monroe

Genius

“I have no special talent. I am only passionately curious.”
– Albert Einstein

“It’s not that I’m so smart, it’s just that I stay with problems longer.”
– Albert Einstein

“If you can’t explain it simply, you don’t understand it well enough.”
– Albert Einstein



Greatness

Serving others is the best way to serve God.

“When ye are in the service of your fellow beings, ye are only in the service of your God.”
– Mosiah 2:17

“Everybody can be great…because anybody can serve. You don’t have to have a college degree to serve. You don’t have to make your subject and verb agree to serve. You only need a heart full of grace. A soul generated by love.” 

 ― Martin Luther King Jr.

By tahsinversion2 Posted in quotes

Gamification Of The Process Of Achieving Goals

Introduce game mechanics into the process of achieving goals.

  1. Determine the Goal / Dream.
    • Dream is associated with emotional motivation and is a better word. 
    • Typical Goals:
      • Life Objectives.
      • Compete. Compare yourself to others. Beat others! You don’t have to take part in a competition. You might just figure out what a person is good at and try to be better than him / her. In the process become better at something. Become a better you!  
      • How do I build that product. What are the skills I need to master. How do I build everything that company has ever built. 
  2. Creative Visualization + Faith
    • Creative Visualization:
      • Visualization and Appreciation of how it feels like when the goal turns into reality.
    • Faith:
      • Strong belief that the goal is very much within reach. You can almost see how to achieve it. 
        • Go through your past successes and accomplishments. Build you confidence.  
    • Now, you should have a burning desire to achieve the goal. 
    • Think backwards from the goal to present situation and find out requirements that lead you to the goal. 
      • Make a plan. 
      • Make a list of sub-goals that lead you to the main goal.
    • Start working. Keep scores. 
      • Measure how much you have achieved and how much closer you are to the goal at regular time intervals. Use them as feedback. Success, progress pushes you just as getting closer to your desired goal does. 
      • Make the whole process similar to the games you have played. Suppose, you are playing a game, and you have earned say, 70 points (Yay!) and you need 30 more (pretty close!) to reach the next level. 
      • Exciting, huh?
    • Use feedback to your advantage.
      • Hey, that part is taking me too long to finish (Told you to keep scores!). What can I do to make things faster? 
      • Master the skill.
      • Grow your sense of mastery.   
    • Associate positive feelings with the task at hand.
      • Feel happy while you are doing it. Feel happy when you think of it.
      • This will help you reprogram your brain and feel happy whenever you think of the task. 
    • Go back to step 2 whenever you need little bit of extra motivation.

    Personal Notes On Curing Neurological / Psychiatric Diseases / Disabilities [Unofficial]


    Neural Engineering

    • Artificial Retina
      • Current generation: Very low resolution.
      • “Learning to see” period.
    • Epilepsy – Implantable Electrodes, Brain Cooling, Drug Delivery
      • Implantable Devices Could Detect and Halt Epileptic Seizures – Scientific American
      • Closed Loop Devices:
        • Idea: Detecting seizure onsets and stopping them.
        • Implantable Electrodes
        • Brain Cooling
          • Detecting temperature (associated with seizures) and controlling
        • Drug Delivery 
          • Closed loop
          • Continuous, at regular intervals
        • Challenges for Closed Loop Devices:
          • False positives: Detecting normal activities as seizures.
      • Open loop devices
        • VNS – Vagus Nerve Stimulation (from 1997)
        • Deep brain stimulation
          • Some people have too many seizures; stopping some would be considered as progress.
      • Second generation Closed Loop Devices
        • Not just detecting onset of seizures; rather predicting seizures before they even start.

    • Body Amputation
    • Cochlear Implant
    • Brain Computer Interfacing
    • Tom Mitchell & others applying Machine Learning Techniques to find correlations in 
      • neural firing patterns, spikes and 
      • behavior / thought.
    • Techniques, broadly defined:
      • Neuromechanics
      • Neuromodulation
      • Neural Repair and Regenesis
    • Optogenetics
    • Connectomics [2]
    • Neural patterns should be analogous to what is out there in the world (VS Ramachandran – Similarity of letters, image, sound [3]). Neural processing is modular (Vision – modules for color, shape, etc.).





    References

    1. A Guideline For Research In Neuroscience
    2. Connectomics
    3. Reith Lectures by V S Ramachandran
      1. [Personal Note: I have always been fascinated by the study of human mind and brain. While I was in college, I came across the Reith Lectures by V S Ramachandran Googling topics as diverse as “Neuroscience”, “Brain”, “Neurology”! Going through this set of lectures, I understood how fascinating the study of Neuroscience and Neurology are!] 
      2. [By the way, I have always been and am still Googling my way through human knowledge space!]

    Personal Notes On Wolfram Language


    Wolfram Language

    • Symbolic Computing – symbols representing real world entities, concepts, procedures
    • Knowledge about the world built into the language
    • Data 
      • Gathered in the course of building WolframAlpha.
    • Cloud Infrastructures, Devices and their functionalities are symbolic building blocks of the language. 
      • Symbolic Computing + Knowledge & Data 
        • Knowledge, data, real world entities represented by symbols in the programming language. 
        • You can pick a symbol from a domain and apply a procedure from another domain. Everything fits together. 
      • Builds on
        • Mathematica
        • WolframAlpha
        • Natural Language Understanding
        • Wolfram Cloud 
          • Treating it as a giant active repository for symbolic lumps of computation. 
        • CDF (Computable Document Format)
      • Injection of computation into everything.




      References

      তরুণদের অফুরন্ত সম্ভাবনা বিকাশে নাগরিক শক্তি

      আমাদের তরুণ প্রজন্মের দৃষ্টিভঙ্গিতে একইসাথে আধুনিকতা এবং আপন শেকড়, ঐতিহ্যকে ধারণ করা – এই দুইয়ের প্রশংসনীয় সংমিশ্রণ লক্ষ্য করার মত।

      ওরা আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে। চলাফেরা, দৃষ্টিভঙ্গিতে ওরা আধুনিক। আধুনিক জ্ঞান – বিজ্ঞানে ওদের দখল।

      একইসাথে ওরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হৃদয়ের গভীরে ধারণ করে। প্রাণের টানে শাহবাগে ছুটে যায়। ক্রিকেটে ম্যাচ জেতার পর ওরা লাল-সবুজ পতাকা হাতে বেড়িয়ে পড়ে।

      শুধুমাত্র তরুণ ভলান্টিয়ারদের মাধ্যমেই সারা দেশে গণিত উৎসবের মত তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা ঘটে। রানা প্লাজা ধ্বসে ক্ষতিগ্রস্থদের দিকে ওরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। নির্বাচনোত্তর হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ সনাতনী সম্প্রদায়ের পাশে গিয়ে দাঁড়ায়। দলবেঁধে কাজ করাতেই ওদের আনন্দ।

      সংখ্যায় ও ওরা এগিয়ে। দেশের ৫০ ভাগ মানুষের বয়স ২৩ বা তারও কম।

      প্রাণশক্তিতে ভরপুর বিশাল এই তরুণ প্রজন্মের মাঝে স্বপ্ন, উদ্যম, উৎসাহের কোন ঘাটতি নেই। ওরা পরাজয় খুব একটা দেখেনি – তাই পরাজয় মানতেও চায় না। ওরা পছন্দ করে একসাথে সময় কাটাতে, connected হতে। connected হওয়ার এই ইচ্ছাটাকে জনকল্যাণমূলক নানা কাজে রুপান্তর করা যায় তরুণদের একত্রিত করে। দেশের তরুন তরুণীরা না হয় দল বেঁধে নতুন নতুন উদ্যোগ নিয়ে সমস্যা সমাধানে ঝাঁপিয়ে পড়ল – হতে পারে নিজেদের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন সমস্যা, হতে পারে নিজেদের এলাকার।


      শুরুতে যা বলেছিলাম, বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের মত দেশ পাল্টে দেওয়া বিশাল কর্মযজ্ঞ ঘটছে শুধুমাত্র কিছু তরুণের স্বেচ্ছা কর্মোদ্যোগে [1]। 

      কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু তরুণ তরুণী মিলে “কান পেতে রই” নামে একটা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে যেটি অনেক প্রাপ্তবয়স্ক হতাশাগ্রস্ত মানুষকে সুন্দর জীবনে ফিরিয়ে এনেছে।
      ওদের দেখে প্রফেসর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল লিখেছেন –

      “তোমরা কিছু তরুণ-তরুণী মিলে নিঃসঙ্গ, বিপর্যস্ত, হতাশাগ্রস্তদের মানসিক সেবা দেবার জন্যে একটা হেলপ লাইন খুলেছ। এমনকি আত্মহত্যা করতে উদ্যত কেউ কেউ শেষ মূহূর্তে তোমাদের ফোন করেছিল বলে তোমরা তাদের মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরিয়ে এনেছ। তোমরা এই বয়সেই মানুষের জীবন বাচাঁতে পার– কী আশ্চর্য!’


      আমি আমার জীবনে একটা সত্য আবিস্কার করেছি; সেটি হচ্ছে, বড় কিছু করতে হলে সেটি ভলান্টিয়ারদের দিয়ে করাতে হয়, যে ভলান্টিয়াররা সেই কারণটুকু হৃদয় দিয়ে বিশ্বাস করে। কাজেই মানসিক সেবা দেওয়ার এই কাজটুকুও আসলে ভলান্টিয়াররা করে।” [2]

      তরুণদের এই অফুরন্ত সম্ভাবনাকে কিভাবে কাজে লাগানো যায়?

      তরুণরা আর দশজনের চাইতে নিজেকে আলাদা প্রমাণ করতে চাইবে! বিভিন্ন রকম কল্যাণমুখী প্ল্যাটফর্ম গড়ে দিয়ে ওদের কর্মস্পৃহা জাগিয়ে তোলা যায়।  

      তরুণদের হাতের কাছেই Google. ওরা চাইলেই জ্ঞানের দিক দিয়ে যে কাউকে হারিয়ে দিতে পারে। নাগরিক শক্তি তরুণদের এই অমিত সম্ভাবনাকে কাজে লাগাবে।

      আমাদের তরুণদের কেউ হয়ত উদ্ভাবন করে বসবে এমন কিছু যা দিয়ে অনেক অনেক মানুষের জীবনের একটা দিক পুরোপুরি বদলে যাবে। আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর এই তরুণ প্রজন্ম নিশ্চয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোকে সমাজ পরিবর্তনের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে চাইবে!

      সবরকম অন্যায় অবিচার দুর্নীতি অনিয়মের বিরুদ্ধে ওরা লক্ষ লক্ষ প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর হয়ে গর্জে উঠবে। দেশপ্রেমের বহিঃপ্রকাশ ঘটাবে দেশের জন্য কাজ করার মাধ্যমে। 


      আমাদের নতুন প্রজন্মের তরুণরা যুক্তরাষ্ট্র – ইউরোপের তরুণ, শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী, ইঞ্জিনিয়ার, অর্থনীতিবিদদের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে নিজেদের অনেক অনেক উপরে নিয়ে যাবেন।

      আর এরাই তো গড়ে তুলবে আমাদের আরাধ্যের স্বপ্নের আধুনিক বাংলাদেশ।


      রেফরেন্স

      বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতি

      “মধুর সমস্যায় পড়েছেন বৃষ্টি শিকদার ও সৌরভ দাশ। হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি, কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি, ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি), ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (ক্যালটেক), স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি, ডিউক ইউনিভার্সিটিসহ বিশ্বের নামীদামি ১৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন সবাইকে। বেছে নিতে পারবেন মাত্র একটি। কোনটি বেছে নেবেন এই দুই মেধাবী? [12]”


      কিভাবে সম্ভব হয়েছে এটা ?
       

      সম্ভব হয়েছে বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াড সংস্কৃতি সূচনার মাধ্যমে। 
       
      সেই গল্পই বলছি আজকে।
       
      শুনতে থাকুন! 

      বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতির সূচনার পর বেশকিছু ব্যাপার আমরা লক্ষ্য করছি।

      আমরা লক্ষ্য করছি, দেশের অনেক ছেলেমেয়ে দিনের একটা বড় অংশ আগ্রহ নিয়ে গাণিতিক সমস্যা সমাধানে  ব্যয় করে।

      স্কুল কলেজে আমরা গণিত বলতে Exercise করি – কিছু নির্দিষ্ট ধাপ বা কম্পিউটার বিজ্ঞানের ভাষায় অ্যালগরিদম মেনে চলি মাত্র। কিন্তু গণিত অলিম্পিয়াডের সমস্যাগুলো সমাধানে ধাপগুলো বা অ্যালগরিদমটা নিজেকে দাঁড় করাতে হয়। অন্যকথায়, গণিত সৃষ্টি করতে হয়।

      উদাহরণ দেই।

      দুটা সংখ্যা গুণ করতে আমরা পুরোপুরি না বুঝে নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম মেনে চলি – প্রথমে দুটি সংখ্যার সবচেয়ে ডানের অঙ্ক দুটিকে গুণ করি, তারপর হাতে রাখি, ইত্যাদি।
      কিন্তু গণিত অলিম্পিয়াডের সমস্যাগুলো সমাধানে এই ধাপ বা নিয়মগুলো – কোন ধাপের পর কোন ধাপ – ভেবে বের করতে হয় – অর্থাৎ গণিত সৃষ্টি করতে হয়।

      আমরা বলি, স্কুল কলেজে তোমরা Exercise কর, আর আমরা গণিত অলিম্পিয়াডে Problem Solving করি। তাই, এখনও যারা Problem Solving কর না, আশা করি, তোমরাও দ্রুত আমাদের দলে যোগ দেবে!

      যারা Problem Solving করে তাদের অনেক ভাবতে হয়। ভাবতে গিয়ে তাদের “নিউরনে অনুরনন” হয়, তারা অনেক ভালভাবে চিন্তা করতে, বিশ্লেষণ করতে শেখে। গণিত অলিম্পিয়াড সূচনার পর একটা প্রজন্ম গড়ে উঠছে যাদের গড় IQ আগের প্রজন্মগুলোর তুলনায় বেশি। নতুন প্রজন্মের এই ছেলেমেয়েরা অনেক ভালভাবে চিন্তা করতে পারে। দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দৈনিক এ নিজের ছবি দেখা, বিশ্ব প্রতিযোগিতায় নিজ দেশকে Represent করা – অনেক বড় Inspiration। 

      এই মেধাবী ছেলেমেয়েগুলো যখন দেশ ও সমাজের দায়িত্ব নেবে, তখন আমরা নতুন একটা দেশ গড়ে তুলবো। সেই লক্ষ্যে প্রস্তুতির জন্য আমাদের কিশোর তরুণ গণিতবিদদের একটা ছোট্ট কাজ করতে হবে। গাণিতিক সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে চিন্তা করার, বিশ্লেষণ করার যে ক্ষমতা বিকশিত হয়েছে, সেই ক্ষমতাকে আশেপাশের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে প্রয়োগ করা শুরু করতে হবে।  

      আমরা লক্ষ্য করেছি, গণিত অলিম্পিয়াডের অনুষ্ঠানগুলোতে অনেক ভাল ভাল কথা হয়। আলোকিত মানুষ হওয়ার, দেশকে ভালবাসার অনুপ্রেরণা পায় ছেলেমেয়েরা। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা দেশের গুণী মানুষদের কাছ থেকে দেখার সুযোগ পায়, প্রশ্ন করতে পারে, কথা বলতে পারে, চাইলে অটোগ্রাফও নিতে পারে!


      দুটা চমৎকার ব্যাপারের

      • একটা হল “গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো” থিম – অনেকগুলো ছেলেমেয়ে নিজের জীবন নিয়ে, দেশ নিয়ে বড় বড় স্বপ্ন দেখছে এবং তার চেয়েও বড় কথা – স্বপ্নগুলোকে বিশ্বাস করছে [14]। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী দেশের শিশুকিশোর গণিতবিদদের কাছে যে ৩টি স্বপ্নের কথা বলেছিলেন তাদের মাঝে ছিল ২০২২ সালের মধ্যে একজন বাংলাদেশী গনিতবিদের ফিল্ডস মেডল জয় এবং ২০৩০ সালের মধ্যে একজন বাংলাদেশী বিজ্ঞানীর নোবেল পুরষ্কার জয়। আমাদের ক্ষুদে গণিতবিদরা স্বপ্নগুলো বাস্তবায়নে নিজেদের তৈরি করছে। 
      • আরেকটা হল একেবারে ক্লাস থ্রি – ফোরের ছেলেমেয়েরা, ড. ইকবালের ভাষায়, “পেন্সিল কামড়ে” অঙ্ক করতে আসে!



      আমরা লক্ষ্য করেছি, বাংলা মাধ্যমের বেশ কিছু ছেলেমেয়ে বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেল এ পড়ার সুযোগ পেয়েছে। মুন পড়ছে Harvard University তে [1], নাজিয়া MIT [2] (তা নাহলে “MIghTy” শব্দটা এভাবে লেখা আমরা কোত্থেকে শিখতাম!), ইশফাক Stanford University [3], তানভির Caltech [4] (আমাদের শ্রদ্ধেয় প্রফেসর ড. ইকবাল এই বিশ্ববিদ্যালয়ে Post-Doctoral Researcher হিসেবে কর্মরত ছিলেন) [5], সামিন Cambridge University [6]।

      আগে আম্যারিকা, ইউরোপ, এশিয়া বা অস্ট্রেলিয়ার গ্রাজুয়েট স্কুলগুলোতে আমরা এমএস বা পিএইচডি করতে যেতাম। ইংরেজি মাধ্যমের অবস্থাসম্পন্ন ছেলেমেয়েরা পড়ত আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেলে। কিন্তু “বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়তে যাওয়াটা নতুন!

      “বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়ার পথ দেখানোর কৃতিত্বের দাবিদার বাংলাদেশ গণিত দলের কোচ ড. মাহবুব মজুমদার  [7]; যিনি নিজে MIT থেকে Electrical Engineering এ আন্ডারগ্রাড, Stanford University থেকে Civil Engineering এ মাস্টার্স এবং Cambridge University থেকে Theoretical Physics এ PhD করে Imperial College এ [8] Post Doctoral করছিলেন। ২০০৫ সালে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের সাথে সম্পৃক্ত হন এবং স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে দেশে থেকে যান। বিদেশী ও ইঞ্জিনিয়ারিং আন্ডারগ্রাড ডিগ্রি এবং আরও কিছু কারণ দেখিয়ে তাকে Dhaka University Physics Department এ যোগ দিতে দেওয়া হয়নি [9]। তিনি স্বপ্ন দেখেন বাংলাদেশে একটা বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষণাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার। আমরা তার পাশে থাকবো।

      ১৯০৫ এ আইনস্টাইনের “Miracle Year” [10] স্মরণে ২০০৫ সালের বাংলাদেশ জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াডে আইনস্টাইন এবং পদার্থবিজ্ঞানের উপর একটা প্রশ্ন উত্তর পর্ব ছিল। সেখানে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলাম। গণিত ক্যাম্পে ড. মাহবুবের সাথে পদার্থবিজ্ঞান নিয়ে আলোচনা হত। মেক্সিকোতে যাওয়ার আগে প্রেস কনফারেন্সে দেখি তিনি স্ট্রিং থিউরি (String Theory) র [11] একটা পেপার নিয়ে হাজির!   

      আরেকটা ব্যাপার লক্ষ্য করার মত। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে (International Mathematical Olympiad) আমাদের সাফল্যের মাত্রা দ্রুত বাড়ছে [15] [16]। আমাদের কিশোর – তরুণ গণিতবিদরা ২০০৬ সালে অনারেবাল মেনশান, ২০০৯ সালে ব্রোঞ্জ মেডেল, ২০১২ সালে সিলভার মেডেল জয় করে এনেছে। আমরা আশা করছি, এই ধারা অব্যাহত রেখে বাংলাদেশ গণিত দল আগামীতে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড থেকে গোল্ড মেডেল নিয়ে ফিরবে! গোল্ড মেডেল জয়ী সেই গণিতবিদ হতে পারো তুমিই!

      আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পাশাপাশি আমাদের ক্ষুদে গণিতবিদরা এশিয়ান-প্যাসিফিক ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াডে (APMO) অংশগ্রহণ করছে এবং পদক জয় করে আনছে [16]।

      শিরোনামে আমি “সংস্কৃতি” শব্দটির উল্লেখ করেছি। এর সবচেয়ে বড় কারণ অবশ্যই বাংলাদেশের ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের গণিত তথা মেধার চর্চা। কিন্তু মেধা চর্চার এই ঢেউ এসে লেগেছে আমাদের সংস্কৃতির নানা অঙ্গনে, নানা অংশে। গণিত চর্চার জন্য প্রকাশিত হচ্ছে বই [13]। একুশের বই মেলায় গণিতের বইয়ের স্টলে ভিড় জমাচ্ছে ছেলেমেয়েরা। বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক পর্যায়ে নিয়মিত অনুষ্ঠিত হচ্ছে গণিত অলিম্পিয়াড [17]।

      গণিত অলিম্পিয়াড সূচনা এবং সাফল্যের পর বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ে অলিম্পিয়াড শুরু হয়েছে।

      • পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াড 
      • রসায়ন অলিম্পিয়াড
      • জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াড 
      • প্রাণরসায়ন অলিম্পিয়াড
      • ইনফরমেটিক্স অলিম্পিয়াড 
        • কম্পিউটার প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা। আমাদের স্কুল কলেজের ছেলেমেয়েরা এখন আন্তর্জাতিক প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় মেডেল জয় করে আনছে!   



      গণিত অলিম্পিয়াডের এই সংস্কৃতি সম্ভব হয়েছে কিছু তরুণ – তরুণীর স্বেচ্ছা কর্মোদ্যোগে। আমরা তাদের “মুভারস” (MOVERS – Math Olympiad Volunteers) বলে জানি। তাদের নেতৃত্বে আছেন দেশের বহু উদ্যোগের পেছনের মানুষটি – মুনির হাসান। একটা শুভ উদ্যোগে দেশের তরুণদের উৎসাহী অংশগ্রহণ আমাদের প্রাণশক্তিতে ভরপুর তরুণ প্রজন্মকে সংজ্ঞায়িত করে।


      – ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী: তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা; উপাচার্য, ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক; সভাপতি, বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।

      তরুণ প্রজন্ম এখন নেতৃত্ব নিতে সক্ষম
      – ডঃ মুহম্মদ জাফর ইকবাল, বিভাগীয় প্রধান, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

      ভর্তি, মান ও দক্ষ জনশক্তি
      – ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ: অধ্যাপক, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ও ফেলো, বাংলাদেশ একাডেমি অব সায়েন্সেস।



      তোমাদের জন্য লেখা





      আরও কিছু লেখা



      বাংলাদেশে বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড




      রেফরেন্স

      1. Harvard University
      2. MIT
      3. Stanford University
      4. California Institute Of Technology
      5. Dr. Muhammed Zafar Iqbal
      6. Cambridge University
      7. Dr. Mahbub Majumdar
      8. Imperial College
      9. A painful funny story
      10. Einstein’s Miracle Year
      11. String Theory
      12. এমআইটির পথে…
      13. গণিতের জাদু বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
      14. গণিত শেখো স্বপ্ন দেখো: জাতীয় গণিত উৎসব বিশেষ সংখ্যা: ১৪ ও ১৫ ফেব্রুয়ারি, ঢাকা
      15. আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড: এবার তিনটি ব্রোঞ্জ পেল বাংলাদেশ
      16. এপিএমওতে বাংলাদেশের দুটি ব্রোঞ্জ পদক
      17. খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক গণিত অলিম্পিয়াড

      আজকের উপলব্ধিতে বাংলাদেশ (১৫.৫.২০১৪)

      প্রিন্সেস শামিতা তাহসিনকে লেখা খোলা চিঠি – ১৪

      বাংলাদেশ থেকে মাদক নির্মূল হয়ে যাচ্ছে।

      আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা অসাধারণ বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন। জনগণ এলাকায় এলাকায় মাদক নির্মূলে সংগঠিত হচ্ছেন, কর্মসূচী দিচ্ছেন। 

      মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থানের প্রভাবও দেখা যাচ্ছে। 


      মাদকের অবৈধ অর্থের সরবরাহ না থাকায় টেকনাফ সীমান্তে স্থানীয় বাজারে কিছু কিছু দ্রব্যমূল্য অর্ধেকে নেমে গেছে [1]। সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে স্বস্তি ফিরেছে। 


      মাদক নির্মূল করতে পারলে মাদকসেবী এবং মাদক সরবরাহকারীদের মাধ্যমে সংঘটিত বিভিন্ন অপরাধও বন্ধ হবে।

      এই খবরগুলো দেখলে কি মনে হয় জানো?

      মনে হয়, আমি মারা গেলেও কোন আফসোস নাই।

      ভয়ের কিছু না। আমার কিছু হবে না।

      satisfaction থেকে ভেবেছি।

      আমি মারা গেলেও মানুষ আমাকে মনে রাখবে – এই।

      ১৪/৫/১৪



      রেফরেন্স

      1. ইয়াবা সাম্রাজ্যে পণ্যমূল্যে ধস

      নাগরিক শক্তির নির্বাচনী ইশতেহারের রূপরেখা (Election Manifesto)

      নাগরিক শক্তির নির্বাচনী ইশতেহারে যেসব বিষয় থাকবেঃ

      • শিক্ষা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। প্রত্যেকটা মানুষ তার সুপ্ত ক্ষমতাকে জাগিয়ে তুলে এক একটা বিশাল শক্তি হয়ে উঠতে পারে শিক্ষার মাধ্যমে। জ্ঞান আর মেধা দিয়ে জীবনে সবকিছু অর্জন করা যায়। যে কেউ প্রায় যে কোন বয়সে সঠিকভাবে চেষ্টা করলে যে কোন কিছু হয়ে উঠতে পারে – এই বিশ্বাসটা সবার মধ্যে জাগিয়ে তুলতে হবে। মানুষগুলোকে জাগিয়ে তুলতে পারলে আর কিছু লাগবে না। (শিক্ষা শুধুমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় সীমাবদ্ধ না, আমরা চাইলে জীবনের প্রতিটা মুহূর্তে চারপাশ থেকে শিখতে পারি।) ইতিহাসের যে কোন সময়ের তুলনায় নিজেকে উপরে তোলার সুযোগও সবচেয়ে বেশি আমাদের প্রজন্মের। আধুনিক প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন আমাদের হাতে দিয়েছে অনন্য সব আবিষ্কার – মানুষ এখন যে কোন প্রান্তে বসে যে কোন কিছু শিখতে পারে, যে কারও সাথে যোগাযোগ করতে পারে, কোটি মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারে, কাজ করতে পারে, পারে আয় রোজগার করতে।
      • দেশের ৫০ ভাগ মানুষের বয়স ২৩ বা তার কম। এই বিশাল তরুণ প্রজন্মকে, যারা কর্মক্ষেত্রের জন্য নিজেদের তৈরি করছে, তাদের অগ্রাধিকার দিয়ে গড়ে তোলা হবে (এবং সাথে বাবসা বান্ধব, বিনিয়োগ বান্ধব, উদ্যোক্তা বান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলা লক্ষ লক্ষ তরুনের জন্য) যাতে তারা নিজেদেরকে এবং দেশকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারে। (একটা সামগ্রিক পরিকল্পনা – কত হাজার তরুনের শিক্ষা, দক্ষতা কোথায়, তাদের কর্মসংস্থান / উদ্যোগ কিরকম হতে পারে।)
      • বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সূচকে (মাথাপিছু আয়, জিডিপি প্রবৃদ্ধি, দুর্নীতি হ্রাস ইত্যাদি) উন্নতিকে লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে নেওয়া হবে। কিছু সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রার উল্লেখ থাকবে ইশতেহারে। বিভিন্ন সূচকে উন্নতিকে লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে নিয়ে কর্ম পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হবে –
        • জিডিপি প্রবৃদ্ধির হারকে যত দ্রুত সম্ভব ৮% এ উন্নীত করা হবে এবং লক্ষ্য অর্জিত হলে ১০% কে লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে নেওয়া হবে।
        • মাথাপিছু আয়ের দিক দিয়ে প্রতিবেশী দেশগুলোকে ছাড়িয়ে যাওয়ার লক্ষ্য থাকবে।
        • দুর্নীতি দমন সূচকে ব্যাপক উন্নতি আনা হবে।
        • অপরাধ শক্তভাবে দমন করে বিভিন্ন অপরাধ দমন সূচকে উন্নতি ঘটানো হবে।
        • বিভিন্ন সামাজিক সূচকে (যেমন শিক্ষা, শিশু মৃত্যু হার, আয়ুষ্কাল ইত্যাদি) লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা হবে।
        • নিজেদের মানদণ্ডে নিজেদের সাফল্য, অপরের বার্থতার প্রচার নয়, বরং আন্তর্জাতিক মানদণ্ডই সাফল্য – বার্থতার মূল্যায়ন করবে।
      • ব্যবসা বান্ধব, বিনিয়োগ বান্ধব, উদ্যোক্তা বান্ধব, শিল্প বান্ধব নীতিমালা প্রনয়ন এবং বাস্তবায়ন।
        • অর্থনীতিবিদদের নেতৃত্বে “ন্যাশনাল ইকোনমিক অ্যান্ড প্ল্যানিং কাউন্সিল” গঠন। অর্থনীতিবিদদের নেতৃত্বে এই কাউন্সিলে যোগ দেবেন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, শিল্প বাবসায়ি, ক্ষুদ্র ও মাঝারি বাবসায়ি, প্রকৌশলী, নগর পরিকল্পনাবিদ, স্থপতি, পরিসংখ্যানবিদ, কৃষক এবং শ্রমিক সমাজের প্রতিনিধিরা।
        • উন্নত অবকাঠামো তৈরি + জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিতকরণ + রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা > অধিকতর বিনিয়োগ > জিডিপি প্রবৃদ্ধি।
        • দেশের জনগণকে ভয় দেখিয়ে, “জ্বালাও – পোড়াও” চালিয়ে, জানমালের ক্ষতি করে অর্থনীতির জন্য চরমভাবে ক্ষতিকর হরতাল পালনে কেউ যাতে বাধ্য করতে না পারে – সে লক্ষ্যে কঠোর বাবস্থা।
        • উদ্যোক্তাদের নতুন বাবসা শুরু করার প্রক্রিয়া সহজ করার জন্য বাবস্থা গ্রহণ – সমস্যাগুলো সমাধান করা। উদ্যোক্তাদের জন্য ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, ইঙ্কিউবেটার ফার্ম প্রতিষ্ঠায় সহায়তা
        • আইসিটি খাতকে অগ্রাধিকার দিয়ে এই খাতের বিকাশে সামগ্রিক পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন। দক্ষ আইসিটি পেশাজীবী, উদ্যোক্তা গড়ে তোলা, সারা দেশে দ্রুতগতির ইন্টারনেট ছড়িয়ে দেওয়া, আইসিটি ভিত্তিক শিল্প গড়ে তুলতে দূরদর্শী পরিকল্পনা হাতে নেওয়া।
        • বিভিন্ন সম্ভাবনাময় শিল্প (শিপ বিল্ডিং, পর্যটন শিল্প প্রভৃতি) কে চিহ্নিতকরণ, অগ্রাধিকার দিয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ, ক্ষেত্র সংশ্লিষ্ট সমস্যা সমাধান এবং বাস্তবায়ন।
        • বাংলাদেশকে বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির অফশোরিং এর কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন – অবকাঠামো, জ্বালানি, দক্ষ কর্মী, কূটনৈতিক উদ্যোগ, বিশ্বব্যাপী মার্কেটিং।
        • ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্পের বাবসায়িদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া
        • শেয়ারবাজার নিয়ে কেউ যাতে কারসাজি করতে না পারে সেই লক্ষ্যে বাবস্থা গ্রহণ। শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারিদের আস্থা ফিরিয়ে আনা। কোম্পানির মূল্যমান নির্ধারণে আন্তর্জাতিক মান নিশ্চিত করা।
        • ঋণখেলাপিদের বিরুদ্ধে কঠোর বাবস্থা। ব্যাংক পরিচালনায় স্বচ্ছতা আনা। দেশের ফাইনান্সিয়াল সিস্টেমকে ঢেলে সাজানো।
        • বিভিন্ন সমস্যা (যেমন ঢাকার যানজট সমস্যা) নিরসনে সৃজনশীল কার্যকরী উদ্যোগ নেওয়া।
        • শিল্পের বিকাশে (যেমন – শুল্ক মুক্ত প্রবেশাধিকার ইত্যাদি) কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করা, কূটনৈতিক উদ্যোগ নেওয়া।
        • দেশের প্রকৌশলীরা বিভিন্ন শিল্পে উদ্ভাবনী কর্মকাণ্ডে আত্মনিয়োগ করবেন। তাদের উন্নত প্রশিক্ষনের বাবস্থা করা।
      • দীর্ঘ মেয়াদি এবং স্বল্প মেয়াদি পরিকল্পনা হাতে নিয়ে বাজেট এ বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ দেওয়া এবং বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণ – বিভিন্ন মন্ত্রনালয়, স্থানীয় সরকারের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা। কর আদায়ে স্বচ্ছতা আনা। শুল্ক নির্ধারণে বেক্তি স্বার্থ নয়, বরং জাতীয় স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়া। যেমন সিগারেট আমদানির উপর শুল্ক বাড়ানো, কম্পিউটার এবং অন্যান্য তথ্যপ্রযুক্তি পণ্যের আমদানির উপর শুল্ক কমানো ইত্যাদি। কাস্টমসের দুর্নীতি বন্ধ করা।
      • বিভিন্ন মন্ত্রনালয় এবং স্থানিয় সরকারে বরাদ্দকৃত অর্থ পরিকল্পনা মাফিক ব্যয় নিশ্চিত করার জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া, প্রশিক্ষণ দেওয়া। অনিয়ম তদারক করতে দুর্নীতি দমন কমিশনকে সর্বাত্মক সহায়তা। পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সচিবালয়ের আধুনিকায়ন, কার্যকারিতা বাড়ানো।
      • শিক্ষাবিদদের পরামর্শের ভিত্তিতে শিক্ষার্থী – অভিভাবকদের মতামত নিয়ে প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত শিক্ষাবাবস্থার প্রতিটি পর্যায়ে আমূল সংস্কার আনা হবে।
        • শিক্ষার্থীরা আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে নিজেরা শিখবে।
        • পরীক্ষা পদ্ধতি, মূল্যায়ন পদ্ধতিতে সংস্কার আনা হবে। সৃজনশীল এবং বাস্তব জীবনে প্রয়োগ নির্ভর শিক্ষাবাবস্থা গড়ে তোলা হবে।
        • শিক্ষার্থীরা মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে। বিভিন্ন অলিম্পিয়াড, প্রতিযোগিতা এবং অন্যান্য উদ্যোগের মাধ্যমে মেধাবী জাতি গড়ে তোলা হবে।
        • বাংলাদেশে বিশ্বমানের কয়েকটা বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় – ইন্ডাস্ট্রি এর মধ্যে যোগাযোগ গড়ে তোলা হবে। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমতি প্রদানে স্বচ্ছতা আনা হবে – ন্যূনতম মান নিশ্চিত করা হবে।
        • উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষা কার্যক্রম যাতে অপরাজনীতির কারণে বাঁধাগ্রস্থ না হয় সে ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আমরা শিক্ষাঙ্গনে সুস্থ রাজনীতির চর্চা, উদ্ভাবনী উদ্যোগ দেখতে চাই – ছাত্রছাত্রীরা কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে, মানুষের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে দল বেঁধে কাজ করবে।
        • মাদ্রাসা শিক্ষাবাবস্থার সংস্কার (সবার মতামতের ভিত্তিতে) – আধুনিক জ্ঞান বিজ্ঞান অন্তর্ভুক্তিকরন – যাতে তারা মেডিক্যাল, ইঞ্জিনিয়ারিং, বাবসা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে আরও বেশি সুযোগ পায়।
      • দলীয় পরিচয়ের উরধে উঠে সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য ও নিরপেক্ষ বিচারের মাধ্যমে মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের সাজা দেওয়া হবে এবং জাতিকে গ্লানিমুক্ত করা হবে। এরপর সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ হবে।
      • সবরকম অপরাধ শক্ত হাতে দমন করা হবে। অপরাধ হারে ব্যাপক হ্রাস আনা হবে। অপরাধী যত বড় হোক, আর অপরাধ যত ছোট হোক না কেন – অপরাধ করে কেউ পার পাবে না। আইনের চোখে সবাই সমান হবে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে।
        • আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সরকারি প্রভাবমুক্ত করা, আধুনিক প্রযুক্তি এবং আধুনিক বিজ্ঞান (ফরেনসিক, ডিএনএ টেস্ট ইত্যাদি) সমৃদ্ধ করা, বেতন ভাতাবৃদ্ধি, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘুষ – দুর্নীতি বন্ধ, উন্নত প্রশিক্ষন, পুরস্কার প্রবর্তন।
        • তদন্ত নিরেপেক্ষ এবং প্রভাবমুক্ত থেকে শেষ করা।
        • শক্তিশালী দুর্নীতি দমন কমিশন এবং দলীয় রাজনীতির প্রভাবমুক্ত বিচার বিভাগ।
        • বিচারে দীর্ঘ সূত্রিতা দূর করা হবে।
        • মাদকের বিস্তার রোধে কঠোর বাবস্থা। দেশে মাদকের প্রবেশ প্রবেশপথেই থামিয়ে দেওয়া হবে
        • সাইবার ক্রাইম রোধে কঠোর বাবস্থা নেওয়া হবে। দেশে এখন অনলাইন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ সরিয়ে ফেলা, ওয়েবসাইট সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট hack করা, মানুষের বাসাবাড়ি-বাথরুমে লুকিয়ে গোপন ক্যাম বসানো, কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার, গুজব রটিয়ে সহিংসতা ছড়ানো এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে আঘাত করার কাজে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ব্যবহার থেকে শুরু করে অনেক রকম সাইবার ক্রাইম ঘটছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তিতে উন্নত প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। সিকিউরিটি, ডিজিটাল ফরেন্সিকে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বাংলাদেশী বিশেষজ্ঞদের কন্সালটান্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হবে। কিন্তু জনগণের মত প্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ বন্ধ করা হবে।
        • জনগণ অপরাধ এবং অপরাধীকে সামাজিকভাবে বয়কট / প্রতিহত করবে, ঘৃণার চোখে দেখবে।
      • জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা
        • ২০০১ নির্বাচন উত্তর সংখ্যালঘু নির্যাতন, রামু, পটিয়া, অন্যান্য হামলা এবং সাম্প্রতিক নির্বাচনকালীন হামলাগুলোর নিরপেক্ষ তদন্ত এবং সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমে বাংলাদেশে চিরদিনের জন্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠিত করা হবে।
        • কোন নির্দিষ্ট জাতি, ধর্ম, বর্ণের মানুষের উপর গুজব রটিয়ে বা অন্য কোন উপায়ে কোন রকম অন্যায় করা হলে, দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে আঘাত এলে, তদন্ত করে দায়ি বাক্তিদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে।
        • দেশের জনগণ একতাবদ্ধ থেকে সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।
      • দুর্নীতি দমন কমিশন, মানবাধিকার কমিশন, নির্বাচন কমিশন, আইন বিভাগকে (বিচারপতি এবং আইনজ্ঞদের পরামর্শ অনুসারে) সরকারি প্রভাবমুক্ত করে স্বাধীন, শক্তিশালী করে গড়ে তোলা হবে।
      • দেশের রাজনীতিতে গুনগত পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে সবার মতামত, পরামর্শ নিয়ে শাসন বিভাগ, আইন বিভাগ এবং বিচার বিভাগের মধ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য রেখে, কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় সরকারের মধ্যে দায়িত্ব বণ্টনের বিধান রেখে সংবিধানে সংশোধন আনা হবে।
      • আমাদের গৌরব বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী এবং বাংলাদেশ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশন এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ মিশনে অংশ নেওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার কূটনৈতিক উদ্যোগ নেওয়া একমাত্র নাগরিক শক্তির পক্ষেই সম্ভব।
        • বাংলাদেশ সেনা, বিমান ও নৌ বাহিনীর সদস্যরা দেশের এবং বিদেশের বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ম্যানেজমেন্ট এবং এক্সিকিউটিভ পদে কর্মরত আছেন। বিভিন্ন কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানও ম্যানেজমেন্ট এবং এক্সিকিউটিভ পদগুলোর জন্য বাংলাদেশ সেনা, বিমান ও নৌ বাহিনীর সদস্যদের অগ্রাধিকার দেয় – সুশৃঙ্খলভাবে প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য। বাংলাদেশ সেনা, বিমান ও নৌ বাহিনীর সদস্যদের জন্য একবিংশ শতাব্দীর ম্যানেজমেন্ট (Management) প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা। 
      • শ্রমিকদের অধিকার সংরক্ষণ
      • প্রবাসে কর্মসংস্থান 
        • শ্রমিক রপ্তানি বাড়াতে কূটনৈতিক উদ্যোগ নেওয়া হবে।
        • আন্তর্জাতিক চাহিদা বিবেচনায় নি্রয়ে দক্ষ শ্রমিক, দক্ষ কর্মী গড়ে তোলা হবে।
        • প্রবাসে বাংলাদেশ দূতাবাসগুলো থেকে প্রবাসীদের সমস্যা আন্তরিকতার সাথে সমাধান করা হবে।
      • উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে জনগণকে সম্পৃক্ত করা। জনগণের জন্য প্ল্যাটফর্ম গড়ে দেওয়া যাতে তারা বিভিন্ন উদ্যোগ নিতে পারে।
      • গ্রামের উন্নয়ন 
        • শিক্ষায় সাফল্য, স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান, তথ্য প্রযুক্তির বিকাশ, কৃষিতে উদ্ভাবন ইত্যাদি ক্ষেত্রে গ্রামে গ্রামে প্রতিযোগিতা শুরু করা যায়। বিভিন্ন ক্যাটেগরিতে সেরা গ্রাম, সেরা উদ্যোক্তা ইত্যাদি নির্বাচন করা যায়। (প্রত্যেক গ্রামের মানুষ নিজের গ্রাম, নিজের ইউনিয়ন, নিজের থানা নিয়ে গর্ব করে।) এতে গ্রামের উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে।
        • বিভিন্ন সামাজিক সূচকে উন্নতির লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে কর্ম পরিকল্পনা হাতে নেওয়া।
      • কৃষি ও কৃষক সমাজের উন্নয়ন
      • স্বাস্থ্যখাতে উন্নয়ন
        • স্বাস্থ্য যত ভাল, রোগ-বালাই যত কম, জনগণের সম্মিলিত উৎপাদন ক্ষমতাও তত বেশি।
        • গ্রামে গ্রামে স্বাস্থ্যকর্মী।
        • স্বাস্থ্যখাতে প্রযুক্তির ব্যবহার
      • নারী অধিকার সংরক্ষণ এবং নারীদের ক্ষমতায়ন 
        • নারী নির্যাতন, যৌতুক, বাল্য বিবাহ এর মত সামাজিক সমস্যাগুলোকে শক্তভাবে দমন করা
        • নারী অধিকার সংরক্ষণে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি।
        • গ্রামের নারীরা যাতে আইনি সহায়তা পায় – সেই লক্ষ্যে বাবস্থা।
      • দারিদ্র বিমোচন
        • সরকারি পরিকল্পনা
        • এনজিওগুলো যাতে দেশের দারিদ্র বিমোচনে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে কাজ করতে পারে – সেই পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে বাবস্থা নেওয়া। এনজিওগুলোর কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা আনা।
        • দারিদ্র্য দূরীকরণে এবং মানুষের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে সামাজিক এন্টারপ্রাইস প্রতিষ্ঠা।
      • জনগণের মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ করা হবে। শিল্পের বিকাশ এবং উদ্যোক্তা বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্ব দূরীকরণ, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রেখে এবং ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে করে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখা, নতুন উৎস থেকে তুলনামূলকভাবে স্বল্প ব্যয়ে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা, পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা।
      • ন্যায়ভিত্তিক সমাজবাবস্থা প্রতিষ্ঠা – সৎ এবং ন্যায়ের পথে থেকে চেষ্টা করলে জীবনে যে কোন কিছু অর্জন করা যায় এবং অন্যায় করলে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে – এই বোধ জাগ্রত করা হবে।

       

      Follow-ups / Influence at Work

      Related Links

       

       
       
      High Speed Rail (Someday will have “Made in Bangladesh” 
      marked on it”)
       
      High Speed Rail
      Satellite (Someday will have “Made in Bangladesh” 
      marked on it)
      Satellite

       

        

      Aircraft (Soon to be : “Made in Bangladesh”)
      Aircraft Manufacturing

      জনতার ঐক্যের শক্তির মাধ্যমে অন্যায় এবং অন্যায়কারীকে রুখে দাঁড়ানো – ৪

      সত্যসন্ধানী সাংবাদিকদের পেটানোর দায়ে অভিযুক্ত অসভ্য ব্যক্তিদের পরিচয় উন্মোচিত এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা হবে 


      সাংবাদিকরা জনগণের বৃহত্তর কল্যাণের স্বার্থে সত্য অনুসন্ধান এবং প্রকাশ করেন। তারা পদাধারী ব্যক্তিদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করেন। এতে কোন অপরাধীর অপরাধ উন্মোচিত হওয়ার দায়ে সাংবাদিক পেটানোর মত ঘটনা ঘটান কিছু অসভ্য বর্বর অপরাধী।

      সাংবাদিকদের উপর হাত তোলার দুঃসাহস কেউ দেখালে সেই অসভ্য বর্বর ব্যক্তিদের পরিচয় সারা পৃথিবীর সামনে উন্মোচিত করা হবে এবং আইনের মুখোমুখি করা হবে।

      সারা দেশের সাংবাদিকরা এই ইস্যুতে ঐক্যবদ্ধ হবেন।     



      প্রথম আলোর বিশেষ প্রতিনিধি শিশির মোড়লের ওপর হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসক সফিউল আজমকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হবে। 

      প্রথম আলোর বিশেষ প্রতিনিধি শিশির মোড়লের ওপর হামলার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছে শিকদার মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে হামলাকারী চিকিৎসক সফিউল আজমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আজ বুধবার কলেজের অধ্যক্ষ মেজর জেনারেল (অব.) বিজয় কুমার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
      সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শিশির মোড়লের ওপর অশোভন আচরণের ঘটনায় হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ দুঃখিত ও মর্মাহত। এ ঘটনায় তাত্ক্ষণিকভাবে একজন অধ্যাপকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে চিকিৎসক সফিউল আজমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্তের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
      সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, এই মুহূর্তে দেশের বাইরে থাকা হাসপাতালের চেয়ারম্যান জয়নুল হক শিকদার এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।
      গতকাল মঙ্গলবার প্রথম আলোর বিশেষ প্রতিনিধি শিশির মোড়লকে বেদম মারধর করেন শিকদার মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের চিকিৎসক সফিউল আজম ও তাঁর সহযোগীরা। সফিউল আজম সরকারি চাকরি না ছেড়ে শিকদার মেডিকেল কলেজে পূর্ণকালীন চাকরি করছেন এবং একেক সময় একেক ডিগ্রি ব্যবহার করছেন বলে অভিযোগ পেয়ে শিশির মোড়ল অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে শিকদার মেডিকেলে যান। সেখানে তাঁকে মারধর করা হয়। এ ঘটনায় হাজারীবাগ থানায় মামলা করেন শিশির মোড়ল।” 

      সূত্র – হামলাকারী চিকিৎসক সফিউল বরখাস্ত

      “হাসপাতালে কোন রোগী মারা গেলে বা গুরুতর আহত হলে সাংবাদিকেরা সংবাদ ও ছবি সংগ্রহ করবে এটাই স্বাভাবিক। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসকদের অবহেলার বিষয়টি ধামাচাপা দিতে সাংবাদিকদের পেটানো কোন সভ্য মানুষের কাজ নয়। 


      রাজশাহী মেডিকেল কলেজে সাংবাদিকদের ওপর ডাক্তারদের হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বগুড়া প্রেসক্লাবে সাংবাদিক ইউনিয়ন বগুড়া’র উদ্যোগে আয়োজিত সমাবেশে সাংবাদিক নেতারা এসব কথা বলেন।

      বক্তারা বলেন, ডাক্তারি একটি মহৎ পেশা। রোগীদের ভালোমন্দ তাদের ওপর নির্ভর করে। অথচ কথায় কথায় তারা যদি আইনকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে ধর্মঘট বা কর্মবিরতি পালন করেন তাহলে অসুস্থ ও আহত মানুষদের কি পরিণতি হবে। শুধু তাই নয়, আদালত থেকেও কোন আদেশ হলে সংশ্লিষ্ট ডাক্তাররা ধর্মঘট বা কর্মবিরতি পালন করে প্রশাসনের বিরুদ্ধে দুঃসাহস দেখান।

      তারা আরও বলেন, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও ঢাকার মিডফোর্ড হাসপাতালে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে ইন্টার্ন ডাক্তারদের সাংবাদিক নির্যাতন, নিপীড়নের ঘটনা শুধু অমানবিকই নয়, বর্বরোচিত সন্ত্রাসী হামলাও বটে। সাংবাদিকের দ্রুত সঠিক চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করাসহ ঘটনার সঙ্গে জড়িত চিকিৎসক নামধারী সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় এনে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।

      সাংবাদিক ইউনিয়ন বগুড়া’র সভাপতি সৈয়দ ফজলে রাব্বী ডলারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোমিনুর রশিদ সাইনের পরিচালনায় মানববন্ধনে বগুড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি রেজাউল হাসান রানুসহ স্থানীয় সাংবাদিকেরা উপস্থিত ছিলেন।” 






      আরও 

      Personal Notes On Elementary Combinatorial Techniques [Unofficial]

      • Principle of Addition
      • Principle of Multiplication
        • Counting Permutations 
        • Counting Combinations (WIth or without repetitions)
      • Binomial Coefficients
      • Bijection
      • Partitions
      • Recurrence Relations
        • Counting in terms of smaller instances of the same problem
      • Principle of Inclusion and Exclusion
        • Overlapping sets 
      • Generating Function
      • Polya’s Method
      • Graph Theory


      Proof techniques

      • Mathematical Induction
        • Universal Proof 
      • Pigeonhole Principle
        • Existential Proof
      • Invariance Principle
        • Coloring
        • Monovariant
      • Extremal Principle


      References

      Personal Notes On Business / Entrepreneurship – 1 [Unofficial]

      1. Analyze all possible alternatives before taking decisions. 

        • Which product? Which set of features should the product have? If the features {e.g., features of a website/app} are going to be released in steps then in what order? Which set of marketing channels? In what order? Long term plans? Brand? How to utilize resources {capital, people, technology} in the best possible way?)  Pick the ones (among each set of alternatives) that seem the best (at least for the moment). One can try other alternatives if the current choice doesn’t work. (Data, Marketing, Strategy, Economics, Systems, Network Science)

      1. Gather and analyze as much market data as possible.
      2. Use quantitative/computational methods as much as possible. (Data science, Network science, Analytics, Operations research, Statistics, “Model thinking” [1] tools) Be creative. Devise your own method.
      3. Think from the customer/consumer point of view.
      4. As a manager, bring out the best in employees. Make them feel as part of the company. Make sure they take pride in company’s success, impact of its products in the real world. Introduce schemes so that the employees grow themselves. Everyone has to keep learning to keep up with the rapid pace of innovation. [Remember: really smart, dedicated knowledge workers are 10, 20, 30 (or even more) times better than the mediocre ones.]
      5. Employ wikinomics. Outsource. Delegate.
      6. Solve problems that people face and/or consider what makes people’s lives better/easier while designing products. Identify problems/inefficiencies.
      7. Employ gamification elements (both within the company among employees {Create an environment so that they enjoy working.} and among customers/consumers). (Even religions have elements of gamification like point system.)
      8. Employ wikinomics – get access to global talent, use open source software and hardware. Utilize cloud computing – get cheap computational and storage resources. With even small teams and limited investment, you can now accomplish things that were once possible only by governments and large organizations. It’s getting increasingly cheaper to prototype / try out new ideas. [1 (Followups)]
      9. Introduce collective “mind mapping” in brainstorming sessions.
      10. Study and analyze economies to find opportunities and ideas. (Marketing, Strategy, Economics, Systems, Networks)
      11. Competitive advantage: Advanced innovative technology, Product design, Business planning – market analysis – strategy, Wikinomics, Data Analysis – Mining, Enchantment, Motivated workforce, AI – Automation.
      12. Data Science + Human Psychology. 
      13. Organization, Operations Management 

        • Automation (of repetitive tasks)

      1. Lead with “LUV” [2]. Create emotional relationship with both employees and customers. Emotionally charged up work-force.
      2. Create a tribe around your product.





      References:


      Followups

      Personal Notes On Economics – 2 [Unofficial]

      Microeconomics in a Nutshell



      The Idea Of Promoting Non-zero Sum Games: How Winning With Others Helps You Win Bigger

      Game theory is a branch of both Economics and Mathematics. 


      When you start considering 

      • your opponents 
      • possible action choices and respective outcomes of actions of both you and your opponents

      you have entered the realm of Game Theory.

      The field has found applications in areas as diverse as Artificial Intelligence, Evolutionary BIology and Politics.

      A game where a player wins 5 points and his opponent loses 5 points is a zero-sum game.
      5+(-5)=0.

      On the other hand, in a non zero-sum game, the outcome is not zero.
      For example, if a player wins 5 points and his opponent wins 2 points, the overall outcome is 5 + 2 = 7. So here we have a win-win, non-zero sum game – both wins.

      Non-zero sum game doesn’t mean that you have to lose in order to make others win. The idea is not to think solely in terms of your profit but to develop business plans so that you win bigger by including others as “co-winners”. Here are some practical examples. 

      • Lets consider Google’s Android Platform. Google could develop a mobile operating system and develop all the apps themselves. If that happened then we would have far less apps and more importantly, less innovative apps. But Android is an open platform. Anyone can develop apps for the Android platform. So in this case, Google didn’t want to win only by themselves. Google saw you – the app developer – as a co-winner. That is the reason why we have so many App developers making great money. Of course, Google is winning. Google is taking 30% cut. And Google is winning bigger by helping you win. As more apps are available, Android Phone / Tablet sell is on the rise. So just as Google and App Developers are winning, companies who advertise on Android are reaching more customers through the apps and winning bigger. And last but not least, don’t forget the customers whose lives are getting easier and richer with all these apps that app developers are developing. They are winning too!
      • As the economic condition of the developing and undeveloped nations rises, their purchasing power rises, which in turn creates opportunities for developed countries in our increasingly interconnected and interdependent world. Developed countries have more exports and imports among themselves. Why not plan for a future where all the countries have more to export and more to import? Won’t the citizens have a better and richer life? 
      • Google and Facebook have taken initiatives to increase Internet penetration, targeting “the next billion” or so they say, which in turn increases the number of users of their services. So here is the win-win scenario. 
        • Users learn more, communicate better, use better tools [apps] and as a result earn more + living condition goes up.
        • Marketers, App developers reach more of their customers and sell more of their products.
        • Google and / or Facebook get more cut.
      • Taking initiative to reduce Climate change should be win-win.
      • Here is how mobile 
        • fights poverty
        • bypasses poor infrastructure which could have been a roadblock to development 
        • makes companies get rich.

      1. Economics: The science of choice.
      2. Utility: Satisfaction. Consumers consider utility value to choose among different goods and services. Rational agent: maximizes utility (happiness, fulfillment, satisfaction). 
      3. Diminishing marginal utility ensures that no good or service is consumed too much by a single agent.

      4. Behavioral Economics: Utility function differs according to personality, culture, society etc. (e.g., gamification: social status, fun from continuous feedback.) Cognitive biases.  
      5. Operations Research: Payoff may be far in the future, requires sequence of steps. (Behavioral: how much do people think?) Limited rationality; satisficing.
      6. Study – Welfare Economics. Adam Smith – “By pursuing his own interest he frequently promotes that of the society more effectually than when he really intends to promote it.” 
      7. Competition vs Co-operation (Competitive spirit is an essential impetus for individual growth. {Mastery of life and a sense of being in control} There is scarcity – compete.)
      8. Perfectly competitive market: Same product market – competition – price goes down, more innovation – more sales. {e.g., smart-phone}   

      Economics Research Topics

      1. Win-win, Non zero-sum / Positive sum games from an Economist’s point of view. How to apply win-win to different sectors. Mechanism Design.
      2. Theoretical framework for Social Business (Entrepreneurship). (Multi-dimensional nature of human beings can be integrated into the Utility theory.)
      3. Market-Production-Financial Market-GDP-Econometrics



      References

      Subfields Of Sciences As Inspiration For Machine Learning Algorithms/Paradigms

      • Perceptrons and Neural Networks were inspired by Models of Neuron of the brain. So Neuroscience is obviously a major inspiration.
      • Genetic Algorithms, Genetic Programming, Evolutionary Algorithms are inspired by Genetics and Evolutionary Theory.
      • Simulated annealing [1] Algorithm was invented for solving problems in Statistical Physics and later used in Optimization problems in Artificial Intelligence and Machine Learning.
      • Reinforcement Learning was first studied in Psychology, more specifically in Behavioral Psychology. Now Reinforcement Learning is a branch of Machine Learning. 
      • Statistics is the field most closely tied with Machine Learning apart from Computer Science. Many Regression and Clustering techniques from Statistics act as inspiration to Machine Learning Algorithms. 
      • Bayesian Models, (Hidden) Markov Models were first studied as part of Probability Theory. 
      • The study of Logic acts as the basis for many Knowledge Based Machine Learning Paradigms:
        • Explanation Based Learning
        • Relevance Based Learning
        • Inductive Logic Programming

      References: