মৃত্যুদণ্ডের বিধান এবং আমাদের বিচারব্যবস্থা

আমাদের কিছু বিদেশী বন্ধু আমাদের মৃত্যুদন্ডের বিধান নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। কিন্তু আমরা মনে করি, এক্ষেত্রে তাদের আমাদের দেশের বিচার বিভাগ, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এবং রাজনৈতিক সংস্কৃতিকে বিবেচনায় নেওয়া উচিত।

মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা হতে পারে নিরপরাধ ব্যক্তি যদি এর দ্বারা আক্রান্ত হন। অনেক দেশে সরকার মৃত্যুদণ্ডকে নিজেদের প্রয়োজনে ব্যবহার করেছেন। আরেকটি প্রশ্ন কেউ কেউ তোলেন – মৃত্যুদন্ড দেওয়া হলে একজন অপরাধীকে নিজেকে সংশোধনের সুযোগ দেওয়া হয় না।

কিন্তু জেনসাইড বা গণহত্যা, সিরিয়াল কিলার, টর্চারের মাধ্যমে হত্যা এসব অপরাধে দায়ি ব্যক্তিদের মৃত্যুদন্ড প্রায় সবাই সমর্থন করেন।

৭১ এ দেশে হয়েছিল নারকীয় গণহত্যা। লক্ষ লক্ষ নিরপরাধ মানুষকে হত্যা।

আমরা কি ব্যাপারটা অনুভব করার চেষ্টা করি? এক একটা নিরপরাধ মানুষ হত্যা কত বড় ব্যাপার – এক একটা জীবন শেষ। সেখানে “লক্ষ লক্ষ” মানুষ হত্যা – লক্ষ লক্ষ নিরপরাধ মানুষের জীবন শেষ করে দেওয়া!

কিন্তু যে কোন বিচারে আন্তর্জাতিক মান আমাদের নিশ্চিত করতে হবে। বিচারের মান, গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে কেউ যাতে প্রশ্ন তুলতে না পারে তা নিশ্চিত করা আমাদের দায়িত্ব।

আমাদের দেশের বিচার বিভাগ অনেকটাই এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনী প্রায় পুরোপুরি সরকারি নিয়ন্ত্রণে। শীর্ষ সন্ত্রাসীরা জামিন নিয়ে বের হয়ে আসেন। কেউ “রাজনৈতিক বিবেচনায়” মামলা থেকে অব্যাহতি পান। এমন দেশে কোন অপরাধীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হলে জামিন নিয়ে বের হওয়ার ভয় জনগণের মাঝে থাকে।

“ক্রসফায়ার” এর মাধ্যমে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিনা বিচারে মানুষ হত্যা আমরা সমর্থন করি না। কিন্তু আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষ, বিচার বিভাগ এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপর আস্থা যাদের শূন্যের কোটায় – তারা এটিকে সমর্থন দিয়েছিল এবং আমরাও দেখেছিলাম এর ফলশ্রুতিতে দেশে আইন শৃঙ্খলার কিছুটা হলেও উন্নতি হয়েছিল।

আমরা দেশে স্বাধীন, প্রভাবমুক্ত বিচার ব্যবস্থা এবং সরকারি প্রভাবমুক্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনী দেখতে চাই। আমরা দেখতে চাই আইনের শাসন, ন্যায়ভিত্তিক সমাজব্যবস্থা – যেখানে আইনের দৃষ্টিতে সবাই সমান হবে। যেখানে অপরাধী যত বড় হোক, আর অপরাধ যত ছোট হোক না কেন অপরাধ করলে আইনের মুখোমুখি হতে হবে।
সরকার গঠনের পর নাগরিক শক্তি আইনের শাসন, ন্যায়ভিত্তিক সমাজব্যবস্থা প্রতিষ্ঠাকে অগ্রাধিকার দেবে।

আরও
নির্দিষ্টভাবে মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধ নেই

রেফারেন্স

দেশের সন্ত্রাসীদের গডফাদার দুর্নীতিবাজদের ভয়াবহতার চিত্র – ১ [ওসমানরা ৩ ভাই]

নারায়ণগঞ্জ - ৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ – ৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান

ওসমানরা ৩ ভাই
রফিউর রাব্বি, ত্বকীর বাবাঃ“ত্বকীর ময়নাতদন্তকারী চিকিত্সকদের বোর্ডপ্রধান বলেছেন, ‘ত্বকীকে মাথার তিন দিক থেকে আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। এই আঘাতই ত্বকীর মৃত্যুর জন্য যথেষ্ট ছিল। কিন্তু হত্যাকারীরা মৃত্যুটাকে ত্বরান্বিত করার জন্য তার গলা চেপে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে। একটি চোখ উপড়ে ফেলা হয়েছে।২০১১ সালের সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত্ আইভীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ছিলাম আমি। সেই নির্বাচনে শামীম ওসমান লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন।

তারও আগে নারায়ণগঞ্জে বর্ধিত বাসভাড়া নিয়ে যাত্রী-অধিকার সংরক্ষণ ফোরাম গণ-আন্দোলন গড়ে তোলে। আমি ছিলাম ফোরামের আহ্বায়ক। শামীম ওসমান বাসভাড়া বাড়ানোর পক্ষে অবস্থান নেন। ব্যাপক গণ-আন্দোলনের মুখে পরিবহনের মালিকেরা বাসভাড়া কমাতে বাধ্য হয়। বন্ধন পরিবহনের মালিকেরা এর পূর্বে র্যাবকে যে চিঠি দিয়েছিল তাতে উল্লেখ করেছে, শামিম ওসমান ও নাসিম ওসমানের পক্ষ হয়ে ইব্রাহিম চেঙ্গিস বছরে কোটি কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে।

২০১২ সালে নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশনে রেলওয়ের মূল্যবান জমিতে নাসিম ওসমানের ছত্রছায়ায় অবৈধ মার্কেট নির্মাণকাজ শুরু হয়। দোকান বরাদ্দ দেওয়ার নামে নাসিম ওসমান ও কয়েকজন কোটি কোটি টাকা অগ্রিম সেলামি হাতিয়ে নেন। আমরা নারায়ণগঞ্জের সব মানুষকে নিয়ে গণ-আন্দোলন গড়ে তুলি। আন্দোলনের একটা পর্যায়ে আমাদের আন্দোলনের মুখে রেলওয়ে ওই জায়গা তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে জেলা প্রশাসনের জিম্মায় দেয়। ভেস্তে যায় মার্কেট নির্মাণের নামে তাঁদের শত কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা। মূলত এসব কারণেই ওসমান পরিবার আমার প্রতি চরমভাবে ক্ষুব্ধ হয়।

ক্রোধের বহিঃপ্রকাশ ঘটায় আমার নিরপরাধ ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে অপহরণ করে নির্মম নির্যাতন চালিয়ে খুন করার মধ্য দিয়ে।

শামীম ওসমানের ছেলে অয়ন ওসমানের হাতে গত ৫ বছরে নারায়ণগঞ্জের অনেক কিশোর-তরুণ যুবক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। টর্চার সেলে আদালত বসিয়ে তাত্ক্ষণিকভাবে রায় কার্যকর করা হতো। তাদের পরিচালিত টর্চার সেলগুলোতে প্রতি রাতে মানুষকে নির্যাতনের আহাজারি, গুলির শব্দ আশেপাশের মানুষ শুনতে পেত। আজমেরী ওসমান নারায়ণগঞ্জের মানুষের কাছে একজন ভয়ংকর খুনি হিসেবে পরিচিত। তার টর্চার সেলের ভয়ে সন্ধ্যার পর কলেজ রোডে মানুষ চলাচল করতে ভয় পায়। টর্চার সেলের সামনের রাস্তায় আজমেরী সিটি করপোরেশনের অনুমতি ছাড়াই পরপর ছয়টি গতিরোধক নির্মাণ করেছে, যাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তার আস্তানায় দ্রুত গাড়ি নিয়ে আসতে না পারে। সড়কে লোহার ব্যারিকেড স্থাপন করেছে, যাতে র্যাব ও পুলিশের পিক-আপ ঢুকতে না পারে। আজমেরীর বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে উত্তর চাষাঢ়ার ব্যবসায়ী রাজা মিয়া, সময়মতো মাদক না আনায় বন্ধু আলমগীর, মিথ্যা চুরির অপরাধে নাসিম ওসমানের বাড়ির কেয়ারটেকার নুরুন্নবীকে খুনের অভিযোগ রয়েছে। বর্তমান সরকারের আমলে আশিক, ভুলু, চঞ্চল ও মিঠু হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ আজমেরীর ওপর। মিঠুকে আজমেরী খুন করায় সহযোগী হামীমকে দিয়ে। খুনের সাক্ষী যাতে বেঁচে না থাকে সেই জন্য কয়েক দিন পর হামীমকে কক্সবাজারে খুন করায়।

হাজি রিপন নামের নাসিম ওসমানের এক ক্যাডারের মাধ্যমে আজমেরী নারায়ণগঞ্জে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করে। আজমেরী ওসমানের বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারীর অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। তার কোনো পারিবারিক সুস্থ, স্বাভাবিক জীবন নেই। টর্চার সেলে সে দিনরাত কাটায়। শহরে অস্ত্রধারী ক্যাডার গাড়ির বহর নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। তার টর্চার সেলে র্যাব অভিযান চালাতে গিয়ে দেয়ালে শত শত রাউন্ড গুলির চিহ্ন পেয়েছে। এত সব ঘটনার পরেও তার বিরুদ্ধে একটি মামলা নেই। তাদের নামে

মামলা করতে গেলে থানা মামলা নেয় না।

দিনদুপুরে মিঠুকে প্রকাশ্যে আজমেরী হত্যা করলেও আজমেরীর নাম থাকায় থানা মিঠুর বাবার মামলা গ্রহণ করেনি। ওর নাম বাদ দেওয়ার পর মামলা গ্রহণ করে। আর সে জন্যেই শামীম ওসমান বলতে সাহস পান তিনি নিরপরাধ। খুন করলেও তিনি খুনি নন, শত কোটি টাকার চাঁদাবাজি করলেও তাঁরা চাঁদাবাজ নন, নিরীহ মানুষের ভূমি জোর জবরদস্তি দখল করলেও তারা ভূমিদস্যু নন; কারণ তাঁদের নামে মামলা নেই।”

 

“শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জে সন্ত্রাসের গডফাদার হিসেবে খ্যাত। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পরপরই তাঁর লোকজন ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদা দাবি শুরু করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত পাঁচ বছরে শামীম ওসমানের লোকজন পরিবহন চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। মাস দুয়েক আগে যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ ফোরাম নারায়ণগঞ্জে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করে যে শামীম ওসমান ও তাঁর ভাইদের ছত্রচ্ছায়ায় পাঁচ বছরে পরিবহন খাত থেকে ২০০ কোটি টাকা লুটপাট করা হয়েছে। গত পাঁচ বছরে শামীম কত টাকা চাঁদা নিয়েছেন, সংবাদ সম্মেলন করে তার হিসাব দেওয়া হয়।”

সূত্রঃ বিতর্কিত ১২ জন পেলেন আ.লীগের টিকিট [prothom-alo.com]

সূত্রঃ আজমেরীর নেতৃত্বেই হত্যা [prothom-alo.com]

“ত্বকী হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি ও শামীম ওসমানের ঘনিষ্ঠ সহযোগী পারভেজ গত বছরের ৬ জুলাই রাজধানীর গুলশান থেকে অপহূত হন। ঘটনার দুই মাস পর এই মামলা করা হয়। তারও সাড়ে চার মাস পর আসামিরা জানতে পারেন, তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের ‘শীর্ষস্থানীয় সন্ত্রাসী’ জহিরুল ইসলাম ভূঁইয়া ওরফে ক্যাঙ্গারু পারভেজকে অপহরণের ঘটনায় করা মামলায় আসামি করা হয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর ভাই, ভাগনে, মামাতো ভাই, দুই সমর্থকসহ সাতজনকে। আসামিদের প্রথম পাঁচজনই সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের কর্মী।

গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর মাহবুব উল্লাহ সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেছিলেন, শামীম ওসমানের ছত্রচ্ছায়ায় গত পাঁচ বছরে বন্ধন পরিবহন থেকে সাত কোটি টাকা চাঁদা নেওয়া হয়েছে। তিনি মনে করেন, চাঁদাবাজির অভিযোগ করায় তাঁকে এই মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে।
অন্যদিকে ইমারত নির্মাণ বিধি লঙ্ঘন ও অনুমোদিত নকশা অমান্য করে নির্মিত বহুতল ভবন চিহ্নিত ও ভাঙায় গঠিত সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্ট কমিটির প্রধান ছিলেন কাউন্সিলর শওকত হোসেন। এ কারণেই তাঁকে পারভেজ নিখোঁজের মামলায় আসামি করা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘এ ধরনের মামলা দেওয়া শামীম ওসমানদের পুরোনো অভ্যাস।”

সূত্র – “এ ধরনের মামলা দেওয়া শামীম ওসমানদের পুরোনো অভ্যাস।”

 

আরও

 

নারায়ণগঞ্জ - ৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ – ৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান

এসব ঘৃণ্য অপরাধীদের সমস্ত ঘৃণ্য কার্যকলাপ পত্রপত্রিকার রিপোর্ট এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে সারা পৃথিবীর সামনে উন্মোচিত হবে, মানুষ তাদের ঘৃণা করবে এবং তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দেওয়া হবে।

 

ত্বকী

Crime in Psycho-Social Context

Crime is doing something that harms others or doing something that hurts others or that might hurt others if they ever become aware. If someone harms another, then the harmed is also hurt, so “hurt” is more general but “hurt” is not a measurable quantity. (Related – the principle of karma) 


Why do people commit crime? 

Personal gain and revenge.

Suppose A feels that B has not obeyed the orders of A in a particular instance and that has hurt A. If A punishes B, then that action might include both: personal gain (subordinates get scared and follow A) and revenge. Psychopaths are an exceptional breed. They take pleasure in hurting others. Same thing happens to those who are obsessed with all their life events in which they have been mistreated. People also transfer anger / revenge from one person to another, from one situation to another. We find angry people showing anger (being unable to show anger to superiors or equals) to subordinates, family members who can’t defend themselves from the wrath of the angry person. Revenge can lead to other revenges. (A hurting B or A feeling that B has hurt him, then B taking revenge, then A taking revenge in return.)

Unhappiness, mistreat makes us revengeful. The world is not perfect. Almost everyone is mistreated (or more correctly, almost everyone “feels” that he / she is mistreated) someway someday – no one gets what he / she deserves everyday. But you can still be happy – external conditions don’t make you unhappy, it’s how you interpret your external conditions, what you expectations are, that make you feel happy / unhappy. If you don’t brood how you were mistreated, but instead think of how much fortunate you are in comparison to others and count on God’s blessings you can be happy. Unhappy, revengeful people get more easily inclined towards crime. We need more happy, fulfilled people and less unhappy people. 

Children from broken families don’t get the guidance, love they need in the initial stage. If they are mistreated, or if they feel that they are mistreated, they become revengeful. We need more of loving stronger families, more of stable marriages. Children need the guidance, love and economic support, which gets bolstered by joined efforts of both the parents. 

Like all other affairs of life, committing crime can also become a habit. (Thinking patterns are habit too.) Concentrating on a particular aspect of life e.g., how much everyone around makes a person suffer can also become his / her habit. Punishing / torturing others for anything someone doesn’t like can also become a habit. (For behavior modification, finding out the “habits” that are the root cause of crime of a criminal could be one of the first steps.) So, if a child doesn’t get guidance from the family, feels that he / she is mistreated, becomes revengeful, commits crime and if not taken into account, makes it a habit. – An example of how things might go awfully wrong gradually if unchecked.

The law enforcement agencies should include psychologists / psychiatrists / sociologists to look for abnormal, obsessive behavior among people in all walks of life. Technological solutions e.g., data mining, sentiment analysis, emotion detection etc. might help us in this regard. Lots of research and investigation into psychology, psychiatry, sociology would shed more light. Abnormalities can be brought back to normal (by applying principles and practices from Psychology, Psychiatry, Religious Principles / Eastern philosophies) before things get worse. 

People want to feel good about themselves and they want others (especially people they care about) to feel good about themselves. It is so much more satisfying when you feel that you have earned something yourself. And if you love others deeply, help others earnestly, try to make others happier, you receive love, respect, help in return. This is the greatest reward a man / woman can have. (Look around you. People who are loved by others are usually very nice people, at least better than others that make them stand out.) Whenever you feel an irresistible urge to do something that might hurt others / do harm to others someway someday, remind yourself again and again that someday all your sins would be public, and imagine – feel the shame, hatred (in others’ minds), imagine – feel how people you care about would react / feel. It will help you resist the urge / temptation. (Have you ever had this experience? Feeling of shame, guilt etc.? Always keep it in mind. Has anyone praised you for doing something good (that made you feel really happy)? Keep it in mind too. Make the experiences and the associated feelings guide you. But don’t brood too much in the past. Just help it guide you. You can’t change your past, but you can “always” make the future beautiful.) Imagine-feel how life could have been if you didn’t have some of the things, some of the blessings you have. Now, feel happy and express gratitude. Sincerely believe that whatever you want in life can be achieved without hurting others / doing harm to others. You can even go one step further and begin to shape your desires so that the outcome is desirable to others. Then you can pull off together with others’ help, with greater force than if you were alone! Imagine a life full of mutual love and respect with people you care about! Find love! (It’s not just our romantic partners that we want to feel good about ourselves. We want our parents {Parents start off the process. During our childhood, when they say “Never do it”, we refrain from it and when they encourage us, we make it a habit.}, children, respected people, nice people, relatives and others to feel good about ourselves.) Your loved ones will inspire you!

In a society where people from all walks of life are treated equal and can pursue the life of their dreams, where law and order is strictly maintained, where everyone is held accountable for their deeds, people won’t hurt / harm others for personal gain and people would rely on law enforcement authority for judgment instead of taking revenge. Moreover, in a society where anyone can become anyone he / she wants to be, people are happier, more satisfied and more fulfilled and happier people are more empathetic, compassionate – people who care not only about themselves but also others.