নাগরিক শক্তির অর্থনৈতিক দর্শন (Economic Philosophy)

নাগরিক শক্তির অর্থনৈতিক দর্শনের মূলে রয়েছে দুটি বিষয়

  • প্রত্যেকটি মানুষের মাঝে বিপুল শক্তি লুকিয়ে আছে। এই শক্তি জাগ্রত হয় এমন ব্যবস্থা চালু করতে হবে।
  • Win-win, Non-zero sum games. এমন ব্যবস্থা যেখানে সব পক্ষই জিতবে। 

নাগরিক শক্তি প্রত্যেকটি মানুষের মাঝে যে বিপুল শক্তি লুকিয়ে আছে তাকে জাগ্রত করতে উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসুবিধা নিশ্চিত করা এবং ব্যবসা-শিল্প-বিনিয়োগ-উদ্যোক্তা বান্ধব পরিবেশ গড়ে তুলবে। সামাজিক ব্যবসার বিকাশের মাধ্যমে সমাজের সমস্যাগুলো দূর করে গণ মানুষের উপরে ওঠার ক্ষেত্র তৈরি করবে। জনসাধারণের বিকাশের জন্য বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম গড়ে তুলবে।

এক একটা মানুষ যেখানে বিশাল শক্তি হতে পারে সেখানে ১৬ কোটি মানুষকে জাগিয়ে তুলতে পারলে আমাদের আর পিছে ফিরে তাকাতে হবে না। কাজেই দেশের ১৬ কোটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করা নাগরিক শক্তির লক্ষ্য। আমরা ১টি মানুষের শক্তিকেও বৃথা যেতে দিতে চাই না (শুধু শীর্ষ অপরাধীদের বাদ দিয়ে)।

একদিকে শিল্পের বিকাশ এবং অন্যদিকে জনকল্যাণমুখী অর্থনীতি চালু করে নাগরিক শক্তি বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে একটি অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে গড়ে তুলবে।

সমাজতান্ত্রিকরা মনে করেন, পুঁজিবাদের বিকাশ ঘটলে পুঁজিবাদীরা শ্রমিক শ্রেণী থেকে লুট করে ধনী হন। কিন্তু আমরা বিশ্বাস করি, এমন পদ্ধতি চালু করা সম্ভব যেখানে সব পক্ষ সর্বোচ্চ লাভবান হবে, সব পক্ষই জিতবে। পুঁজিবাদের বিকাশ ঘটলে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়। শিল্পের মালিকরা শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে ব্যবস্থা নিলে, কারখানার পরিবেশ উন্নত করলে অধিকতর উৎপাদনশীলতা থেকে মালিকরা লাভবান হন। শ্রমিকদের আর্থিক অবস্থার উন্নতি ঘটলে তারা শিল্প পণ্য আরও বেশি কেনেন। এভাবে শিল্পের বিকাশ ত্বরান্বিত হয়।

আমাদের দেশের সমস্যা হল, দুষ্ট রাজনীতির কারণে আইন শৃঙ্খলার উরধে উঠে দুর্নীতি সন্ত্রাসে নিমজ্জিত একদল লুটেরা শ্রেণীর উদ্ভব ঘটেছে। নাগরিক শক্তি জনগণকে নিয়ে এই অপরাধী শ্রেণীর হাত থেকে জনগণকে রক্ষা করবে।