Personal Notes On Living A Happy, Fulfilled Life [Unofficial]


  • Rapid advances in science and technology in the past 100 years or so have made us more and more materialistic and move away from spiritual truths and life. 
  • A true leader of our time has to show that a life based on spiritual truths and principles (Law of attraction, karma, mindfulness, “the best way to serve God is to serve others”, etc.) can lead to even more success and advancement and more importantly true happiness, fulfillment and peace. 
    • For example, mindfulness/yoga – helps us deal with modern day stress, be focused and reach peak performance, prevent diseases and stay healthy, along with a lot of other benefits. 
  • Happiness and unhappiness result more from how we interpret our conditions than the conditions themselves. Moreover, we can reprogram ourselves so that our interpretations of our conditions and external environment change. 
    • We would like to see A to happen. 
      • –> We notice that A has not happened. 
        • –> “Automatic emotional trigger” that causes us to feel unhappy / pain. 
        • -> We can reprogram our emotional response so that we don’t feel the same next time by being aware and taking charge of the emotional response. 
        • Emotional responses are just like habits. Just as you can form them, you can break them.
          • Example: Some people “learn” to “fear” (emotional response) cockroaches from their parents. In reality, a cockroach is no danger (excluding infections from the dirt they carry around). They can “unlearn” the “fear” of cockroaches. 
        • More
          • Emotional Intelligence
          • Mindfulness 
  • Happy, fulfilled people are more compassionate, more willing to help others, make others feel happy. Unhappy people feel jealous easily. 
  • Consciousness is the most fundamental element in the universe. Consciousness is the reason for why there is a universe. Being internally happy and making others happier is the most important goal in life. Worldly things, possessions, achievements are the tools for becoming happy, not the final goal in themselves.
    • We want that car, because we feel that getting that car would make us happy. We want that job, because we feel that landing on that job would make us happy. The ultimate goal is happiness. Getting the car or the job are the tools through which we can make ourselves happy.

Looking Back And Connecting The Dots

Sometimes, it seems amazing when you look back at time and try to connect the dots

I came back to America last November (2011) with a newly found interest in Biology and BusinessFor me, one of the best things about living in America at that time was fast Internet connection. When you have fast internet connection, you do stuffs that you wouldn’t do otherwise. For me, it was downloading books – thousands of them!If I find a subject area or topic interesting, I usually try to learn as much as I can from books and the web. Then while learning about the topic, whenever I come across a new topic that I find interesting, I start following the same procedure

for the new topic of interest (recursively; if you prefer Computer Science terminologies!) – serendipity in action! 

I have always been fascinated by the prospects of improving health and brain power. Previously, my idea was to invent new technologies (e.g., stem cells, engineered organs etc.) for better health and more brain power. Books and ideas (e.g., human body version 2.0) of Ray Kurzweil and others have always inspired me. 

My interest in Biology led me to books – which helped me discover that both health and brain power can be improved dramatically by natural means. Reading those books, I became aware of the benefits that a sound health can bring into your life. I incorporated a lot of health practices to my life. A lot actually – 

  • aerobic exercises and strength training 
  • mindfulness and deep breathing 
  • lots of blueberries and strawberries and nuts and yogurt 
  • and a whole lot of other changes in my diet plus supplements 


My quantifiable success – I lost about 40 pounds in a span of 6-9 months (from 192/194 to around 150)! 

My interest in Business, besides showing me ways to handle social problems in more elegant ways, led me to an advice: “Isolation is dangerous”. So I made myself a lot more social than I was.

Then, being social and conversing with others (time period: December 2011 – March 2012), I found out that I could actually think a lot better than I thought I did and I was amazed.

I was amazed at how much I had managed to learn by myself. I have never had the opportunity of learning from very good teachers or very smart peers (excluding a few days during Math Olympiad back in 2005). I had no one to guide me. I learned to guide myself.

I was inspired.

So when I came back to Bangladesh in March 2012, my inspired self returned to unsocial life spending time on nerdy stuffs!

Now, I am eagerly waiting to find out where my previous experiences take me next. 



Life is never this simple. I have left out a lot of details. But this is surely an outline.


(Written sometime in May-June 2012; enhancements later)

সম্ভাবনা যখন স্বপ্নকে ছাড়িয়ে

#StoriesOfMyLife পড়ার সময় Date বিবেচনায় নেওয়া উচিত – আমি কিন্তু ধীরে ধীরে বেড়ে উঠছি!

[03.23.14] তারিখের চিন্তা ভাবনাগুলো কেমন ছিল?

সম্ভাবনা (Possibilities) যখন স্বপ্ন (Dream) কে ছাড়িয়ে [03.23.14]

আমি সবসময়ই অনেক অনেক বেশি উচ্চাকাঙ্ক্ষী (Ambitious)। আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন সবসময় ছিল। 

 
কিন্তু এখন ভাবলে মনে হয়, সম্ভাবনাগুলো (Possibilities) স্বপ্নকে (Dreams) ছাড়িয়ে অনেক অনেক দূর গেছে
1.
চিটাগং কলেজে যখন পড়তাম, যখন বিজ্ঞান-গনিত চর্চা শুরু করি, ব্রেইনের ক্ষমতা – Intelligence – Creativity বাড়ানো যায় – ব্যাপারটা প্রথম যখন বুঝতে পারি – তখন অনেক স্বপ্ন দেখতাম:
বিজ্ঞান প্রযুক্তিতে নতুন অনেক কিছু করবো, এলিয়েন (Alien) টাইপ বুদ্ধিমত্তা হবে আমার (Other Worldly Intelligence – এত বেশি High IQ আর এত বেশি creative – পৃথিবীর  কারও সাথে তুলনা হয় না) – এই ধরণের!

কিন্তু এখন মনে হয়, স্বপ্নগুলোকে ছাড়িয়ে যাওয়া সম্ভব

স্বপ্নগুলো যেন অনেক অনেক বেশি আলোকিত হয়ে, অনেক অনেক বেশি তেজ নিয়ে হাতছানি দিয়ে ডাকছে।

কলেজে পড়ার সময় আমার স্বপ্ন ছিল Einstein, Newton দের পর্যায়ে পৌঁছা বা তাদেরও ছাড়িয়ে যাওয়া। তবে আমার কাজের Breadth হবে অনেক ব্যাপক। Physics এর Ultimate Laws, Artificial Intelligence এ বড় breakthrough, Neuroscience এ deeper understanding – এমন কিছু কাজ।

Einstein, Newton পর্যায়ের কেউ হওয়া বা তাদেরও ছাড়িয়ে যাওয়া – অতটুকু ভাবা যায়।

কিন্তু আমি এখন যে পর্যায়ে পৌঁছেছি – Einstein, Newton আর Contemporary Leading Scientists দের কাজগুলো শিশুর মত মনে হয়।

এতটা আমার স্বপ্ন-কল্পনার বাইরে ছিল। এই ধরণের Ultra পর্যায়ে পৌঁছাবো – কখনও ভাবিনি।

2.  

দেশ নিয়েও স্বপ্ন দেখেছি!

ইউনিভার্সিটিতে যখন পড়তাম তখন স্বপ্ন ছিল – বুদ্ধিবৃত্তিক ক্ষেত্রে কোন একটা বড় সাফল্য দেখাবো – তারপর বাংলাদেশ সরকার আমাকে উপদেষ্টা ধরণের কিছু করবে!

গণিত অলিম্পিয়াডে ছিলাম। বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মকে গড়ে তুলবো, নেতৃত্ব দেবো – এমন একটা ইচ্ছা ছিল।

কিন্তু এত এতগুলো মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে যেতে পারবো, Political একটা ক্ষেত্র তৈরি হবে, আর তার মাধ্যমে আমি দেশের জন্য অনেক অনেক কাজ করতে পারবো – আমার ইউনিভার্সিটিতে পড়ার সময়কার ভাবনাগুলোর চাইতে অনেক বেশি কিছু!

এখানেও সম্ভাবনাগুলো স্বপ্নকে ছাড়িয়ে অনেক দূর গেছে।

 
3.
পৃথিবীর সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী দেশটির কাছে এত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবো, বিভিন্ন দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা আমাকে এত দ্রুত জানবেন – এসব স্বপ্ন ছাড়ানো বলব নাকি রূপকথা বলবো?  
 
 
আমি যাতে সবার প্রত্যাশা পূরণ করতে পারি – সৃষ্টিকর্তা আমাকে সেই ক্ষমতা দিন। 

TahsinVersion2 or Tahsin Version 2.0: How? (2013)

 

The idea Tahsinversion2 is from Human body version 2.0 in “The Singularity Is Near: When Humans Transcend Biology” [1] by Ray Kurzweil. Tahsinversion2 indicates improvement in all aspects of life (if not exponential, at least linear with a high constant factor!). Tahsin version 2.0 or Tahsinversion2 is the next stable version of Tahsin!

I have always been a voracious reader of Self Management books. I learned tons of ways of improving myself in different spheres of my life.

My deep appreciation of human psyche, deep knowledge in Psychology, Neuroscience, Cognitive Science and Artificial Intelligence guides me.

In 2011-12, I found out that by changing lifestyles, I could have better health and get younger.

Last year (2013), when I thought about continuous self improvement in every possible direction, I compiled a list of areas worth improving.
People change. So do I. But this list (compiled in 2013) is obviously a starting point.

Some of you might find some of the areas in your lives worth improving. Give it a shot!

Self management

  • Set short term goals and accomplish them. (Write down problems, topics related to your goals so that you think of them when you wake up and in your free time and able to keep focus all day.) Work backwards from the goal / goals to your current position. Identify problems. Plan. Try to control impulses, change habits (brain state control, Mindfulness, Emotional Intelligence). Keep scores. Try to gradually get more done in less time.
  • Use feedback to your advantage. Keep scores. Go through your day and find out how you could improve it.
  • Learn time management. Clock your activities. Try to complete tasks in lesser time. Create distraction free environment and time.
  • Practice focused persistence. How do you maintain the brain state that made you think of being persistent on a particular task? Remember and write down the factors and their emotional values that made you think of being persistent. One way is to form habits.
  • Confidence – Faith {“I can do anything” attitude} {Only a strong mind has complete faith / is supremely confident and a strong mind is a capable mind.}
  • Creative visualization {“It’s the possibility of having a dream come true [or the possibility of a better life than what it is now] that makes life interesting.” Using thoughts, images, imagined situations [one single thought/image works best] (Lucid dreaming).}
  • “The happiness advantage” {The happier you are, the more motivated and energetic you are, the better your brain works.}
  • Inspiration
  • Self-control {brain state control, Mindfulness, Emotional Intelligence}
  • Associating positive emotions/feelings with the task at hand. + Curiosity).
  • Identify the habits that are holding you back, need to be changed and change them.
  • Use mind mapping software. (XMind, FreeMind, mindmeister)
  • Always check if you feel happy, optimistic, focused, motivated, and energetic (Use Mindfulness, Emotional Intelligence). Do you feel doubtful, shy, nervous, lacking in confidence, any blockage to thinking? Make yourself happy, focused, motivated, and energetic. Don’t do what you feel you ought to do (notice if you are building lists of reasons for doing unnecessary things). Rather do what you should do, what should happen.

 

Individual growth

  • Analyze (taking everything into consideration, asking how, why) & actively learn from everything you read, everything you see around you and all your experiences. Try to explain everything in terms of general principles / simpler constructs. Discover patterns wherever you look, whatever you think. Solve math problems, model things around you with mathematics / models {model thinking} / science.
  • Try to find creative solutions for everyday problems (better way of doing things) (Feynman) (learn from “design of everyday things”). (New / improved tech / scripts-software / apps / devices / machines, shortcuts)
  • Work-study-think 90+ hours a week.
  • Courses on Udacity, Coursera, EdX.
  • Learning Math, Engineering, Science: Wikipedia [Why Wikipedia? Image – Diagram (I learn Engineering and Science mostly from Diagrams and Images) Use Hyperlinks for Just-in-Time (JIT) learning.]
  • Language proficiency goals: English. Bangla. Spanish. Hindi. Arabic. Hebrew.
  • Know everything there is to know about America.
  • Read biographies. Learn history. (Are there patterns? Large time scale cause-effect relationships? Plan by higher power?)
  • Practice speed reading.
  • Consider taking part in trivia quiz contests/shows, US memory championship, US puzzle championship.
  • Read / think everywhere – all the time.
  • Learn more about education and learning. (Experiment with tutoring)

 


Social Life

  • Improve your ability of real time social cue and psychology processing. Try to understand people and society intimately. Find collaborators (online and real world).
  • Identify social problems. Devise solutions. (Study social entrepreneurship, social business, Organization / Motivation.)
  • Become a true “inverse-paranoid”. Try to see the positive in everything. Sincerely believe that whatever happens, happens for some good reason (at least in the long run) according to God’s plans. Don’t get lost in the forest, but climb higher and take a view of the forest and figure out how the forest might change with time as a result of different actions and interactions.
  • To understand others put yourself in others’ shoes. Try to view the situation from others’ perspective. Don’t micro-manage – think in long term. Think several steps ahead.
  • Learn from your own and other people’s mistakes. Make every mistake an opportunity for learning.
  • How do you build a magnetic, charismatic and authoritative (with necessary humility) personality? (Study Emotional Intelligence, Leadership, Body Language. Try dealing with people with different personalities and backgrounds differently.)
  • Tweet, Blog (Get feedback.) Later: Ebook – App, Book, Linkedin.

 


Spiritual Life

  • Rely on no one other than God / Spirit of God. Always keep the possible nature of ultimate reality in mind even while you are living your day to day life. (Practical reality <> Ultimate reality) (Science, Engineering, Social Entrepreneurship <> Dark sides of society)
  • Spend more time praying (and meditating {practice mindfulness; imagine-feel-senses-observe-reason-learn-create}) (Creative visualization; Law of attraction; Imagine & feel; Pray for others; Gratitude {Imagine-feel how life could have been if you didn’t have some of the things you have. Now, feel happy and express gratitude.}; Think about God-ultimate reality).
  • Pray and work on: increasing intelligence, knowledge, wisdom, creativity; increasing strength, courage, toughness, stability; purifying heart/soul. Pray for others. Express gratitude. Ask for guidance.
  • If you eagerly accept life after death, you have no fear, no worry, no doubts, nothing to lose.
  • As long as you are sincere in completing your duties & responsibilities, you have no fear of death. After life could be even better.
  • Express gratitude to God for all the blessings while praying.

 


Leadership Personality

    • রাষ্ট্রনায়োকোচিত Attitude (Attitude that is expected from the leader of a Nation). জনগণের পাশে থেকে জনগণকে নেতৃত্ব দেবো। 

 

  • তোমাকে কত মানুষ পছন্দ করে, তুমি কত মানুষের আশা, স্বপ্ন, প্রত্যাশা ধারণ করছ – এটা সবসময় মাথায় রাখবে।
  • Be the smartest – lead from the front.
  • Strength, Courage, Toughness; Ready to sacrifice life; no doubts, no fear, no worry, nothing to lose.
  • Authority
  • Responsibility
  • Humility & Empathy
  • Deep thought, bold action
  • Body Language

 

 

A sense of authority and a sense of empathy. From authority and empathy comes responsibility.

Daily routine

  • Every morning energise yourself by creatively visualizing your enormous potential across different sectors. Remind yourself over and over again throughout the day.
  • Practice mindfulness.
 
 
Intellectual Life
 

Goals Set By Others

[November / December 2013]
Be the defining character of our time. (US Catholic Church)

Take Artificial Intelligence to the next level. (US Catholic Church)

Physical-Digital Computing pioneer. (Sergey Brin)

Grow yourself to be the smartest Economist in the world. (Dr. Yunus)




Reference

মায়ানদের মায়াময় জগতে একদিন

#StoriesOfMyLife

২০০৫ সালে বাংলাদেশ গণিত দল আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে প্রথমবারের মত অংশগ্রহণ করে।
মেক্সিকোতে অনুষ্ঠিত অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ গণিত দলের সদস্য ছিল ৬ জন। আমি ছাড়া বাকিদের মাঝে মোহাম্মদ মাহবুবুল হাসান শান্ত বুয়েট থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে স্নাতক শেষ করে বর্তমানে একই বিভাগে লেকচারার হিসেবে কর্মরত, শাহরিয়ার রউফ নাফি বুয়েট থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে স্নাতক শেষ করে বর্তমানে গুগলে (Google, Inc.) কর্মরত, তাহমিদ উল ইসলাম রাফি বুয়েট থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশলে স্নাতক শেষ করে বর্তমানে দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুলে কর্মরত, রাফাতুল ফারিয়া বুয়েট থেকে ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক শেষ করে বর্তমানে Purdue University তে পিএইচডি করছে, সাবরিনা তাবাসসুম আইবিএ থেকে বিবিএ করে বর্তমানে University of Queensland এ  International Economics and Finance এ মাস্টার্স করছে।
আমাদের টীম লিডারের দায়িত্বে ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহ‌-সভাপতি ডঃ মুনিবুর রহমান  চৌধুরী এবং ডেপুটি টীম লিডার হিসেবে ছিলেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান।  

লেখাটা ২০০৫ সালে মেক্সিকো থেকে ফিরে এসে লেখা।
জুলাই ১৫ তারিখের বর্ণনা। সামান্য পরিমার্জিত।
আইএমও (IMO – International Mathematical Olympiad) তে অংশগ্রহণের শুরুটা হয়েছিল বেশ চমৎকারভাবেই।
ঢাকার শেরাটনে আমাদের প্রেস কনফারেন্স শেষে বাইরে দাঁড়িয়ে কথা বলছিলাম আমি আর নাফি।
কাছে দাঁড়িয়ে থাকা এক ভদ্রলোক এগিয়ে এসে আগ্রহের সাথে জানতে চাইলেন মেক্সিকোতে কারা কারা যাচ্ছে?
নাফি আমাকে দেখিয়ে দিল – ও যাচ্ছে!
মুখ ভরা হাসি নিয়ে আমি নাফিকে দেখিয়ে দিলাম – ও ও যাচ্ছে!
ভদ্রলোক আমাদের দিকে এতটা বিস্ময় ভরা চোখে তাকালেন যে, বুঝতে অসুবিধা হল না ব্যাপারটার মাঝে যে কৌতুককর অংশ আছে তা এই বিস্ময়ের আড়ালে চাপা পড়ে গেছে!

জুলাই এর ১৩ আর ১৪ তারিখ ২ দিনের পরীক্ষা দিয়ে আমরা যখন খানিকটা ক্লান্ত, তখন ১৫ তারিখ থেকে শুরু হল বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখা আর একটা দেশের সংস্কৃতি, ইতিহাস আর ঐতিহ্য কে উপলব্ধি করার পালা, আইএমওর যেটা অবিচ্ছেদ্য অংশ।

গণিতকে শুধুমাত্র পরীক্ষার হলে সীমাবদ্ধ না রেখে আমরা যখনই পেরেছি, আশে পাশের সবকিছুকেই গাণিতিক কাঠামোয় আনার চেষ্টা করেছি।

গণিতের এই উৎসবে বিভিন্ন রিসোর্সের অপ্টিমাম ব্যবহার হচ্ছে না দেখে নাফি তো রীতি মত হতাশ!

তবে আমাদের মাঝে গণিত সচেতনতার পাশাপাশি রূপ সচেতনতাও যে ভালই কাজ করে তা বোঝা গেলো ১৫ তারিখ সকালে!

সানব্লক ক্রিম নিয়ে রীতিমত কাড়াকাড়ি পড়ে গেলো! “আমরা হারিয়ে ফেলব” ধরণের অজুহাত দিয়ে মাহবুব ওটা ওর কাছেই রাখবে! ভাগ্যিস কোন বিজ্ঞাপন নির্মাতা কাছে পিছে ছিলেন না। থাকলে নির্ঘাত সানব্লক ক্রিমের একটা বিজ্ঞাপন তৈরি করে ফেলতেন!

মোট ১৬ টা বাস করে আমাদের নিয়ে যাওয়া হল যিবিল চালতুনে [1]। মায়া সভ্যতার অসাধারণ একটা নিদর্শন এটা। খ্রিষ্ট পূর্ব ১০০০ থেকে খ্রিস্টাব্দ ১৫২৬ পর্যন্ত মায়ানদের দেশ ছিল মেক্সিকো। প্রায় ২০ বর্গ কিলোমিটার জায়গার উপর ৮৪০০টা ছোট বড় কাঠামো নিয়ে এই নিদর্শন। মূল আকর্ষণ – টেম্পল অফ সেভেন ডলস। বেশ উঁচু একটা মন্দির এটা। সিড়ি দিয়ে উঠতে হয়। মাঝেখানে বড় সড় একটা ফাঁকা জায়গা আছে যাতে মন্দিরের একপাশে দাঁড়িয়ে অন্যপাশে আকাশ দেখা যায়। ২১ মার্চ আর ২২ সেপ্টেম্বর সূর্য এমন অবস্থানে আসে যে, ফাঁকা জায়গা দিয়ে সূর্য দেখা যায়। মায়ানদের বছরও ছিল সৌরকেন্দ্রিক – ২৬০ দিনের। জ্যোতির্বিজ্ঞানে তাদের দক্ষতা এসব থেকে স্পষ্ট।

কাছে একটা আন্ডারগ্রাউন্ড নদীও আছে। দেখতে অবশ্য পুকুরের মত, তবে নিচ দিয়ে সাগরের সাথে যুক্ত।

পুরো এলাকাটা ঘুরে দেখার চাইতে ছবি তোলায়, ভিডিও করায় আমাদের উৎসাহ ছিল বেশি।

সময় হলে আমরা নিজ নিজ বাসে ফিরে এলাম (মোট বাস ১৬টা)।

আমাদের বাসে ছিল – Australian Math Team, Argentine Math Team, Belgian Math Team, Bosnia and Herzegovinian Math Team সহ আরও কয়েকটা Team.

আচ্ছা, বলতো দেখি – এই দেশগুলোর বিশেষত্ব কি? আমাদের সাথে একই বাসে কেন?

ঠিকই ধরেছ!

Bangladesh B দিয়ে, কাজেই Alphabetic Order maintain করে Management করা হলে – Australia, Argentina, Belgium, Bosnia and Herzegovina এসব দেশ – বাংলাদেশের সাথেই থাকার কথা!

খানিকক্ষণের এই বাসেও আনন্দকে বিরতি দিতে আমাদের প্রবল আপত্তি!

বল ছোড়াছোড়ি নিয়ে বিচিত্র এক রকম খেলা শুরু হল। আরজেন্টাইন এক কন্টেস্টেন্ট মূল খেলোয়াড়, দুষ্টুমিতেও সে এগিয়ে। বল কখনও গিয়ে পড়ল কোন মেয়ের গায়ে। সে দেখিয়ে দিল, বেলজিয়ান, বেলজিয়ানরাই এজন্য দায়ি! আবার কখনও বল চলে গেলো ড্রাইভারের কাছে। এবার সে বলল, বসনিয়ানরাই যত নষ্টের মূল!

বাস আমাদের নিয়ে এলো প্রগ্রেসো বীচে।

তখন দুপুর হয়ে এসেছে। সূর্য মধ্য গগণে। সূর্যের এই প্রখর আলোয় গালফ অফ মেক্সিকোর অপূর্ব সৌন্দর্য আমাদের মন ভরিয়ে দিল। কাছে হালকা নীল। দৃষ্টি আরেকটু প্রসারিত করলে নীল যেন খানিকটা ঘন হয়ে আসে। আরও দূরে একেবারে গাঢ় গভীর নীল – সাগরের এই রূপ থেকে চোখ ফেরানোই কঠিন। সমস্যা হচ্ছে কবি লেখক দের দেখার চোখ আমার নেই। কাটখোট্টা একটা চশমার ফ্রেমের পেছনে চোখ রেখে যতদূর দেখা যায় – তাই দেখি!

সাঁতার না জানলেও আটলান্টিক মহাসাগরের পানিতে গা ভেজানোর সুযোগ ছাড়তে আমরা কেউই রাজি না। এদিন আমরা বেশ হৈ চৈ করেছি!

তীরের বেলাভূমিতে কেউ ফুটবল, কেউবা ভলিবল নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ল। একপাশে দেখা গেলো একটা ছেলে চিত হয়ে শুয়ে পড়েছে আর তার উপর শুধু বালি দিয়ে কয়েকজন মিলে নারীর একটা প্রতিকৃতি তৈরির চেষ্টা করছে। প্রতিকৃতিটা শেষ পর্যন্ত এত অদ্ভুত হয়ে দাঁড়ালো যে আমাদের স্বীকার করতেই হল – শিল্প চর্চার জন্য বেলাভূমিই উপযুক্ত স্থান!

বেলাভূমির পাশেই উঁচু জায়গায় একটা রেস্টুরেন্ট আর তার পাশে কয়েকটা সুইমিং পুল। সেখানেও আনন্দের কমতি নেই। কয়েকজন মিলে একেক জনকে শূন্যে তুলে ধরে পানিতে ছুড়ে ফেলছে!

হোটেলে ফেরার পথে আমরা আমাদের মেক্সিকান গাইড অ্যানাকে বাংলাদেশ সম্পর্কে নানা কিছু জানানোর ফাঁকে জাতীয় ফুল, ফল, মাছ, পাখি এসবও চিনিয়ে দিলাম। মেক্সিকোতে এতরকম “জাতীয়” ব্যাপার সাপার নেই বলে এসব তথ্য তার কাছে অদ্ভুত ঠেকল। আমাদের জাতীয় সবজি, জাতীয় ডিশ নেই কেন এই প্রশ্ন করে আমাদের হয়রান করে তুলল!

এক সময় বাস পৌঁছে গেলো আমাদের নতুন অস্থায়ী ঠিকানা – হোটেল ফিয়েস্তা অ্যামেরিকানায়।

এত চমৎকার একটা দিন শেষ হয়ে এলেও আমাদের মাঝে বিষাদের কোন রেখা দেখা গেলো না।

না জানি আরও কত নতুন অভিজ্ঞতা আমাদের জন্য অপেক্ষা করে আছে!

চিচেন ইটযার সামনে আমি

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড নিয়ে আরও

References

প্রিন্সেস শামিতাকে লেখা খোলা চিঠি – ১

 

ডিজাইন নিয়ে ভাবতে পারো, ভাবনাটা আঁকতেও পারো।

Fresh eyes দিয়ে সবকিছু দেখো। ধর, একটা টেবল দেখছ। সবাই যে চোখে টেবল টাকে দেখে সেভাবে দেখলে তুমি নিজে টেবল ডিজাইন করবে কিভাবে? বরং একটা বাচ্চা যে চোখ দিয়ে টেবল টাকে দেখে, বা ধর তুমি মঙ্গল গ্রহে গেছ – সেখানকার একটা অদ্ভুত টেবল যে দৃষ্টি দিয়ে দেখবে সেই দৃষ্টিতে দেখো।

ওয়াও! কেমন অদ্ভুত একটা জিনিস! চারটা পায়ের উপর দাঁড়িয়ে। ওভাল সাইজের। সবাই মিলে এটার উপর খায়? ওভাল না হয়ে রেকটেঙ্গুলার হলে কেমন হত? আরেকটু ছোট হলে? রঙটা কেমন যেন! আরেকটু বাদামি হলে… হুম, দারুন হত।

একটা exercise দেই। একটা E-Book 2.0 ডিজাইন করতে পারবে? স্পেসিফিকেইশান বলে দেই। ফাঙ্কশানালিটি হবে E-Book Reader, Tablet এর মত, কিন্তু বই পড়তে যে সুবিধাগুলো পাওয়া যায় – যেমন ধর কয়েকটা পাতা একসাথে খোলা রাখা, দ্রুত এক পাতা থেকে আরেক পাতায় যাওয়ার সুবিধা, ওজনে হালকা, তারপর ধর কোন পাতায় চাইলে কিছু নোট করে, মার্ক করে রাখা যাবে – ওগুলো থাকতে হবে। চিন্তা করার সময় কোন constraint রেখো না – নতুন কি আনা যায় ভাবো। যেমন ধর, iPhone multi-touch screen introduce করেছে। User Interface এ নতুন আর কি থাকতে পারে ভাবো।
ট্রাই করে দেখো। ডিজাইনের কিন্তু কোন শেষ নাই। একটা ডিজাইন দাঁড় করাও, তারপর ওটাকে আরও ভাল কর, আবার কিছু যোগ কিছু বাদ – এভাবে।

তোমরা ডিজাইনাররা Multi-touch screen ডিজাইন করে বাচ্চাদের কি শিখিয়েছ দেখো! বাচ্চারা ম্যাগাজিনকেও touch screen ভাবছে!

ওয়েব পেইজ ডিজাইনও ট্রাই করতে পারো। ফটোশপ দিয়ে ডিজাইন কর – ভাল লাগে কিনা দেখো। দেখতে ভাল লাগে – এমন সাইটগুলো কেন দেখতে ভাল লাগছে বোঝার চেষ্টা কর।

সবকিছু নিয়ে ভাব। সবকিছু ভালভাবে বোঝার চেষ্টা কর। কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে, ব্যাংক কিভাবে কাজ করে, একটা বাড়ি কোন কোন অংশের জন্য সুন্দর লাগছে – কোন কোন অংশ পাল্টে ফেলে আরও সুন্দর করা যায়।

ধাঁধার সমস্যা বা অঙ্কের সমস্যা নিয়েও ভাবতে পারো।

নিউটনের একটা কথা মনে রেখো, “আমার আবিষ্কারের কারণ আমার প্রতিভা নয়। বহু বছরের পরিস্রম ও নিরবিচ্ছিন্ন চিন্তার ফলেই আমি আমাকে সার্থক করেছি, যা যখন আমার মনের সামনে এসেছে, শুধু তারই মীমাংসায় আমি ব্যস্ত থাকতাম। অস্পষ্টতা থেকে ধীরে ধীরে স্পষ্টতার মধ্যে উপস্থিত হয়েছি।”

পড়াশোনা, চিন্তা ভাবনার জন্য আমি কিছু Power Tools ব্যবহার করি। তোমাকে শিখিয়ে দেবো। তোমার মাঝে কত Potential লুকিয়ে ছিল – কখনও খেয়াল করনি – অবাক হয়ে দেখবে। Undergrad বেশি বেশি course নিয়ে তাড়াতাড়ি শেষ করে ফেলতে পারবে!

জীবনের সমস্যা নিয়ে ভেবে কখনও মন খারাপ করবে না। বরং ভাববে তোমার কি কি আছে – তা নিয়ে। আমি আছি না? আরও কত কিছু!

আমরা সবাই happy, satisfied, fulfilled হতে চাই। আসলে আমাদের প্রত্যেকের জীবনের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত – নিজে হ্যাপি হওয়া, আর যতগুলো মানুষকে পারা যায় হ্যাপি করা। আমরা মনে করি, অনেক টাকা রোজগার, চাকরিতে ওই পদ, পছন্দ হওয়া ডায়মন্ড সেট কিংবা ওই পুরষ্কারটাই জীবনের লক্ষ্য হওয়া উচিত। কিন্তু আসলে এগুলো লক্ষ্য না। লক্ষ্য হল – এগুলো অর্জনের মাধ্যমে হ্যাপি হওয়া। পুরষ্কার কিংবা পদ happy, satisfied, fulfilled হওয়ার tools, মূল লক্ষ্য না। মূল লক্ষ্য – happiness, satisfaction, fulfillment

কাজেই যেসব ব্যাপার ভাবলে মন খারাপ হয়, ওগুলো ভেবে মন খারাপ করা মানে নিজে নিজে ইচ্ছা করে জীবনে হেরে যাওয়া। গড তোমাকে যে ব্লেসিংসগুলো দিয়েছেন ওগুলো নিয়ে ভাব – কত ভাল লাগবে!

বড় কোন স্বপ্নকে লক্ষ্য হিসেবে নিয়ে তাতে নিজেকে উজাড় করে দাও – জীবনটা অনেক বেশি অর্থপূর্ণ মনে হবে। স্বপ্নের পথে একটু একটু করে এগোনোকে happy হওয়ার tool হিসেবে ব্যবহার কর।

Happiness এর আরেকটা Secret হল Happiness relative। ধর, একটা কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছ – সামান্য একটু স্বস্তি এলে কি যে ভাল লাগবে! আবার ধর প্রতিটা দিনই অনেক মজার। তখন এত মজার মাঝেও bored feel করবে। অনেক অনেক বেশি exciting কিছু না হলে ভাল লাগবে না! এমন সময়ে happy হওয়ার উপায় হল – কঠিন সময়গুলোর কথা ভাবা। Happiness feel করে তারপর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে ভুলো না!

সবচেয়ে বড় যে সত্যটা বলতে চাইছি তা হল – আমাদের “পারিপার্শ্বিক” আমাদের যতটা না happy বা unhappy করে, তার চেয়ে বেশি করে আমরা “পারিপার্শ্বিক দেখে মনে মনে কি ভাবলাম”।

এই ব্যাপারগুলো তুমি নিজের জীবনেও অ্যাপলাই কর, কাছের মানুষদেরও শেখাতে পারো।

তোমাকে রোল মডেল হতে হবে – এটা সবসময় মাথায় রেখো।

শিক্ষা দিয়ে, জ্ঞান দিয়ে পৃথিবীর সবকিছু অর্জন করা যায়

#StoriesOfMyLife

আমি জানি, শিক্ষা দিয়ে, জ্ঞান দিয়ে পৃথিবীর সবকিছু অর্জন করা যায়।

“শিক্ষা নিয়ে” এই শিক্ষাটা আমি পেয়েছি আব্বু আম্মুর কাছ থেকে।

আমার আব্বু, আম্মু, দাদু (দাদা), নানু (নানী) সবাই শিক্ষকতা করেছেন।

আব্বু আম্মু ছোটবেলা থেকে পড়াশোনাকে সবকিছুর উপর স্থান দিয়েছেন।

আব্বু গ্রাম থেকে জীবনে উঠে এসেছেন পড়াশোনা দিয়ে।

আম্মু ছিলেন সিরিয়াস ছাত্রী।

স্কুলে একবার ডাবল প্রমোশনও নিয়েছিলেন। নানু (নানী) ভাবতেন, husband – wife দুইজনই ডাক্তার হলে পরিবারের জন্য ভালো নাও হতে পারে (বিয়ে দিবেন ডাক্তার ছেলের সাথে!)। তাই আম্মুকে Science না দিয়ে, কলেজে Humanities concentration দিয়েছিলেন। নানা অনেকদিন পর জেনে কষ্ট পেয়েছিলেন (আম্মু মেডিক্যাল-এ পড়বে – এমনটাই চাইতেন নানা)।

ইউনিভার্সিটিতেও Sociology Department-এ সবসময় উপরের দিকে ছিলেন আম্মু।

আমার ছেলেবেলাটা কেটেছে ঢাকায়।

টালেন্টস প্রিকাডেট স্কুলে পড়তাম আমি। প্লে গ্রুপ, নার্সারি, কেজি – ৩ বছর।

প্রতিদিন ভোরে আম্মু রিকশা করে আমাকে স্কুলে পৌঁছে দিতেন আর নিজে বাসায় ফিরতেন পায়ে হেঁটে। একইভাবে ছুটি হলে হেঁটে যেতেন স্কুলে, আমাকে নিয়ে বাসায় ফিরতেন রিকশায়। প্রতিদিন সন্ধায় পড়তে বসাতেন – ঠিক যেভাবে এখন আমার ছোট্ট বোন রাইসাকে নিয়ে বসেন।

Final Term পরীক্ষার পর আমরা চিটাগং এ বেড়াতে যেতাম।

তেমনই একবারের ঘটনা।

আমি, আম্মু চিটাগং এ – নানুর বাসায়। নার্সারি Final Term পরীক্ষার পর সম্ভবত। আব্বু ঢাকা থেকে এসেছেন।

আসার আগে আমাকে ফোন করে জানতে চেয়েছিলেন – কি লাগবে।

নতুন বছরের নতুন বই নিয়ে আমার অনেক উৎসাহ। বলেছিলাম, নতুন ক্লাসের বইগুলো নিয়ে আসতে।

পরদিন দেখি আব্বু নতুন ক্লাসের বই তো এনেছেনই, সাথে নিয়ে এসেছেন একটা সাধারণ জ্ঞানের বই

এটাই আমার প্রথম সাধারণ জ্ঞানের বই। জগত সম্পর্কে জানা শুরু আমার সেই থেকে।

ছেলেবেলায় আমার প্রিয় ছিল সাধারণ জ্ঞান (General Knowledge) এর বইগুলো – “বাংলাদেশের ডায়েরি”, “পৃথিবীর ডায়েরি” – ওগুলো। তখন তো আর আজকের মত – ইন্টারনেট, Web-এর প্রচলন ছিল না!

আরেকবারের ঘটনা।

তখন সাউদি আরবে থাকি। ক্লাস টু বা থ্রি (1994/95)

পৃথিবীর একটা গ্লোব দেখে খুব পছন্দ হয়েছিল। লাজুক আমি গাড়িতে ফিরে আম্মুকে বললাম, এবার পরীক্ষায় ফার্স্ট, সেকেন্ড, থার্ড হলে একটা গ্লোব কিনব।

আম্মু আব্বুকে বললেন।

আব্বু বললেন, জ্ঞানের জন্য কোন মানা নেই। তোমার দাদু অভাবের মধ্যেও জ্ঞানের জন্য কার্পণ্য করেননি। (দাদি নিজের গহনা বিক্রি করে আব্বুর মেডিকেল পড়ার খরচ দিয়েছিলেন।)

আব্বু আমাকে গ্লোবটা  কিনে দিলেন।

সেদিন থেকে আমি বিস্ময় নিয়ে পৃথিবীর গ্লোবটা দেখতাম।

জ্ঞানের আরেকটা জগত খুলে গিয়েছিল আমার সামনে।

গ্লোবটাকে ঘিরে কত কত কল্পনায় ডুবে থাকতাম আমি!

Kazakhstan-র প্রেসিডেন্ট হব … বাংলাদেশের রাজা … Burma-র প্রেসিডেন্ট … আমি যে দেশের প্রেসিডেন্ট হব – সেই দেশ সবদিক দিয়ে পৃথিবীর সেরা হবে – সবার ধরা ছোঁয়ার বাইরে … !

আমার কল্পনার প্রিয় বিষয় ছিল এগুলো!

ক্লাস ওয়ানে (1993) পড়ার সময় দেখা ইতিহাস-ভিত্তিক সিরিয়াল “The Sword of Tipu Sultan” [1] ছিল আমার অনুপ্রেরণা।

স্কুলে ভাইয়া-আপুদের উপরের ক্লাসের ইতিহাস (History)-এর বইগুলো নিয়ে পড়ে ফেলতাম!

References

ইচ্ছা পূরণের গল্প আবেগের গল্প

ইচ্ছা পূরণের একটা সত্যি সত্যি গল্প শোনাই। আজকে দুপুরে নামাজ পরে প্রথম আলোর মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী নিয়ে বিশেষ সংখ্যাটা খুঁজছিলাম। পেলাম না। একটু পর ঠিক করলাম Barack Obama র Change we can believe in অথবা Dreams from my father বই দুইটার একটা কিনতে কেয়ারিতে যাব। কেয়ারির সামনে গিয়ে আবিষ্কার করলাম আজকে বিজয় দিবস। কাজেই শুধু কেয়ারি না, সব বই এর দোকানই বন্ধ। যাই হোক, আজকে যেহেতু বিজয় দিবস – ভাবলাম, একটা পতাকা কিনে গাড়িতে ওড়াবো। দেখা গেল, পতাকাও কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না।আর তারপরই শুরু হল ইচ্ছাপূরণ।

১।  লালদীঘিতে দেখলাম আজকে স্বাধীনতার বইমেলা হচ্ছে। তবে সব বাংলা বই। কাজেই যে বই খুঁজছিলাম তা পাওয়া যাবে না। যাই হোক, বই দেখার ইচ্ছাটা তো পূরন হল!

২। খালামনির বাসা থেকে ফেরার পর দেখা গেল, আমি ওয়ালেট, চাবি ফেলে এসেছি কাজেই একটা রিকশা নিলাম। রিকশায় দেখলাম বাংলাদেশের পতাকা উড়ছে আমার আরও একটা ইচ্ছা পূরন হল!

৩। এরপর জেবু আপুর বাসায় ঢুকেই দেখি বিছানায় প্রথম আলো পরে আছে। মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে বিচারপতি হাবিবুর রাহমান আর ড. শাহদীন মালিকের লেখা পড়া হল। সেই সাথে পূরন হল আমার আরও একটা ইচ্ছা!
(১৬/১২/১২ তে লেখা)

Evolution of My Dreams and Realizations

My first ‘Aim in life’, as far as I can remember (It was 1988 / 89; I was 2 or 3), was to become a milkman. I mean, it wasn’t about being a milkman. I wanted to become the honest person appreciated by my parents – a milkman. So, what I truly wanted to become was a plain, simple, honest person. 

stock-photo-milkman-94006828

Next, I wanted to become a building mechanic. I used to stare at people who built houses in awe. My uncle sent me a toy Mechanical Tool Box.

My next major change in aim occurred when I wanted to join the Military (age: 4-5). Each night, I used to stay awake until the National Anthem with the National Flag was played on BTV and give salute. I watched a Television program depicting Military life. One of my uncles quipped: “The secret: Tahsin wants to become the President!”.

salute-quotes-6
My mom told me of an incident that took place when I was a baby of few months old. One day, General Ershad was delivering a speech (who was then the President). My mom was studying for her exams. I was lying right beside my maternal Grandfather. My Grandfather suddenly started praying loudly: “God, grant my wish and guide my grandson to become the President and lead the Nation.” My Grandmother called my mom, “Come! Quick! Look how your dad is praying for your son!”     

During my First grade, a serial had an enormous influence on me: “The sword of Tipu Sultan”. Tipu Sultan and Hyder Ali were my childhood heroes. The serial drew me to History. I was deeply influenced by another historical novel during 3rd / 4th Grade – “Khun Ranga Path”. Besides History, books on General Knowledge were among my favorites from an early age. My father bought me my first “General Knowledge” book (Encyclopedia) around 5. Then I discovered “General Knowledge” books (Encyclopedia) in my aunt’s house. Later, I started buying Encyclopedia myself. I used to stare at the Globe of the world and fantasize (
Grade 3 / 4). I fantasized first becoming a King of Ancient Bengal, then King of Myanmar (Burma) and later lifetime President of Kazakhstan. 

I remember playing computer games at one of our relative’s house during Fifth grade. Almost everyone around me wanted to become a Computer Engineer at that time. So I thought I should try to become one myself – a Computer Engineer. 

During my middle school years, I was a voracious reader of novels. Reading novels was the most fun activity I could think of. I could understand different writing techniques employed by novelists. Becoming a novelist, writing great novels was my dream during 7th to 10th grade (1999 – 2002). For living, I would become a Physician or Engineer or Architect. That was my plan.

During 9th / 10th grade, I made up my mind to study Medicine (there was huge encouragement from my parents) and become a Physician besides writing novels.

When I read a book on Psychology (my mom’s book on Educational Psychology from her M.Ed. course), I understood that an intense interest in the workings of the human mind was the chief reason I wanted to become a novelist. Moreover, Literature could only depict subjective human experience, but the objective theories of Psychology applied to all humans.

I thought that I could become a Physician and specialize in Psychiatry or Neurology.

Studying Psychology helped me understand the essence of Science: To understand experimentally provable General Rules that govern everything we see around us.

Studying Psychology books gave me the confidence that: I can come up with original ideas, and that I should question what is written in books.

Trying to understand the theories of Psychology in terms of my own experiences and what I see around me, made me aware of the connection between Real World and the world of Books and Theories.

As I later diversified and ventured into different branches of Science, these realizations and understandings proved invaluable.

One day, as I was preparing for my high school (11th grade) Entrance Exam (later it was decided that Entrance would be based on results of matriculation exam), a Chapter on different forms of Energy from my Physics book grabbed my attention. I thought: maybe I could work on both Psychology / Neurology and Physics. I went through my 9-10th grade Physics book. I bought and read other books (Undergraduate level Physics Textbooks, Stephen Hawkin’s A Brief History of Time and others).

I thought and wrote down my understandings and realizations. I tried to come up with new Theories myself.

Physics taught me to understand “everything” in terms of fundamental constituents and few fundamental laws that govern things we see around us.

Physics made me realize the necessity of learning Higher Mathematics.

Mathematical Olympiad was gaining popularity in Bangladesh at that time (it was 2003). I bought Books and started solving problems.

One of the books published at that time was “নিউরনে অনুরণন” (“Resonance in neurons”). The idea for the name: it’s better to create resonance in your brains’ neurons by solving Mathematical problems rather than leaving the neurons idle!

I found out: the more I worked on problems, the better I could think! My Neurons really were resonating!

My interest in Psychology helped me appreciate brain function improvement and Mathematical Problem Solving. I discovered ways of improving brain function myself.

It was an amazing realization – I could become anyone I wanted if I worked in the right way.

Other Sciences started grabbing my attention.

Psychology drew me to Neuroscience – the Biology of what happens in the mind. Physics led me to Cosmology (the study of the evolution of the Universe) and some of the books described evolution of our planet and Biological evolution. Evolutionary Biology was among my favorites.

At that point, I saw my future as a Scientist: trying to understand the truth and decode the Laws of Nature.

I became interested in Computer Science and Engineering as I read an article portraying the field of Artificial Intelligence. The article was written by Dr. Ali Asgar included in one of his popular science books (Grade 11). I bought Undergrad Texts on Artificial Intelligence and started reading.

Psychology and Neuroscience always grabbed my attention. So when I found out that there is a subfield in CS that tries to emulate intelligence on computers, I got hooked instantly. 

Later, I participated in International Mathematical Olympiad, and met people who were serious participants in programming contests and I felt that I really liked contests and competitions. Besides, computation seem to be everywhere – required in almost every branch. I could do Physics and Biology on Computers. I read an inspirational book (“Medhabi Manusher Golpo” – Prof. Dr Kaykobad) which depicted lives of eminent Computer Scientists and students of Computer Science. The choice was either Physics or Computer Science and Engineering, but my parents wouldn’t let me study Physics. Choosing Computer Science and Engineering also made sense when I considered practical aspects. I thought: I could still pursue my multi-disciplinary interests besides studying CSE at college. 

The Majors I considered at that time included: Computer Science and Engineering, Physics, Mathematics, Neuroscience, Nanotechnology / Nanoengineering & Bioengineering / Biomedical Engineering.

[If you find my life and my understandings interesting you might like Looking back and connecting the dots.]

Lets move a few years forward … During March / April 2013, I thought, I should analyze and understand and learn from and codify everything I see around me – just as I did with the sciences and engineering. I started with the political situation in Bangladesh. I wanted to figure out what would happen if I start my own Political Party. Next, I applied my analysis to other domains: Mechanical Engineering, Economics, Computer Science.

15349608_1812528449024359_1986192403384969711_n
I come across new understandings and realizations almost on a daily basis. I look forward to share my newer understandings at sometime in not too distant future: “Living to tell the tale”, truly!
16939627_1856497677960769_8334827596973863688_n

Looking back and connecting the dots

Sometimes, it seems amazing when you look back at time and try to connect the dots. I returned to America last November with a newly found interest in Biology and Business

If I find a subject area or topic interesting, I usually try to learn as much as I can from books and the Web. Then while reading, whenever I come across another topic of interest, I start following the same procedure (learn from books and the Web) for the new topic of interest – serendipity in action!


I have always been fascinated by the prospects of improving health and brain power. Previously, my idea was to invent new technologies (e.g., stem cells, genetic engineering, engineered organs etc.) for better health and more brain power. Books and ideas (e.g., Human body version 2.0) of Ray Kurzweil always inspired me. 

My interest in Biology led me to books which helped me discover that both health and brain power can be improved dramatically by natural means. Reading those books, I became aware of the benefits that a sound health can bring into your life. I incorporated a lot of health practices to my life (a lot actually – aerobic exercises and strength training, mindfulness and deep breathing, lots of blueberries and strawberries and nuts and yogurt and a whole lot of other changes in my diet, plus supplements!).

My interest in Business led me to an advice “Isolation is dangerous”. So I made myself a lot more social than I was.

Then, being social and conversing with others, I found out that I could actually think a lot better than I thought I did and I was amazed.

I was amazed at how much I had managed to learn by myself. I have never had the opportunity of learning from very good teachers or very smart peers. I had no one to guide me. I learned to guide myself.

So when I went to Bangladesh in March 2012, my inspired self returned to unsocial life and I began spending time on nerdy stuffs!

Now, I am eagerly waiting to find out where my previous experiences take me next.



Life is never this simple. I have left out a lot of details. But this is surely an outline.


(Written sometime in May-June 2012; enhancements later)
Alia Bhatt’s take on Life enhancement: