Facts Of Special Significance

United States

  • “Higgs Boson” (the so-called “God-particle”) Official Announcements – July 4, 2012 (Nobel Prize in Physics – 2013)
  • “Heaven is for Real” (Book) – July 4

Heaven Is for Real (2014) [IMDB]

  • Independence Day – July 04 (birthday) [July – 7th month. 04 – 40.]

2013 return to United States:

  • Battle of Gettysburg: July 1–3, 1863
  • “I Have a Dream” speech delivered Martin Luther King Jr. on August 28, 1963.

 

  • Constitution Day – September 17 (My Sister’s birthday is on September 16!)

Mexico:

Mexico’s Independence Day is on September 16.

What makes Mexico special?

Mexico is the only country I have set my feet upon in the Americas (apart from United States) in 2005 to take part in International Mathematical Olympiad (July 8 – 19).

Mexico is one of the countries where I am most involved in with #StopDrugTrafficking and #StopOrganizedCrime Activities.

Another no-less-important fact: Mexicans love me!

Mr. Enrique Pena Nieto, the 57th President of Mexico, was born on July 20, 1966 and held the position of the Governor of the State of Mexico from 16 September 200516 September 2011.

 

 

 

Youtube Playlist: Movies (2014)  [ 7 Movies released in 2014 ]

Bangladesh

  • US to Bangladesh Flight 2012 – 25 / 26 March (26 March : Independence Day of Bangladesh)
  • Saudi Arabia to Bangladesh Flight 1997 – 15 December (16 December : Victory Day of Bangladesh)

Jesus Christ

  • Jesus was crucified on a Friday (Noon).
  • US to Bangladesh Flight 2010 – 25 December

Notes On Jesus Christ [TahsinVersion2.com]

Prophet Isaiah

“Therefore the Lord himself will give you a sign: The virgin will conceive and give birth to a son, and will call him Immanuel.” (Immanuel means “God with us”.) 

– Isaiah 7:14

“For to us a child is born,
    to us a son is given,
    and the government will be on his shoulders.
And he will be called
    Wonderful Counselor, Mighty God,
    Everlasting Father, Prince of Peace.” – Isaiah 9:6

  

“Of the greatness of his government and peace
    there will be no end.
He will reign on David’s throne
    and over his kingdom,
establishing and upholding it
    with justice and righteousness
    from that time on and forever.” –Isaiah 9:7

Prophet Isaiah lived over seven hundred years before Jesus.

Time interval between Abraham and Jesus: two thousand years.

Time interval between Jesus and present times: two thousand years.

Time interval between Abraham and David: one thousand years. Time interval between David and Jesus: one thousand years.

Prophet Muhammad

  • Prophet Muhammad performed “Hajj” (Islamic Pilgrimage) once and “Umrah” 4 times (in 4 years) in his lifetime.

1994 – 1997:

4 “Umrah”s in 4 years – once each year. [“04“]

Performed Hajj – 1997.

  • Prophecy concerning the time of Jesus’s arrival (Second Coming): Amid Great War and conflict in Syria & Iraq.
  • “Bismillah al-Rahman al-Rahim” – total value of the letters: 786

From Bible:

 Abram was eighty-six (86) years old when Hagar bore him Ishmael (means ‘God hears’).”

– Genesis 16 [Bible Gateway]

“I have made you (Abraham) a father of many nations. I will make nations of you, and kings will come from you. 

… He (Ishmael) will be the father of twelve rulers, and I will make him into a great nation.

….. “Will a son be born to a man a hundred (100) years old? Will Sarah bear a child at the age of ninety (90)?”

Then God said, “Yes, but your wife Sarah (means “Princess”) will bear you a son, and you will call him Isaac (means “Laughter”).

– Genesis 17 [Bible Gateway]

– [03.28.15] [From Bible …]

A Look Back At History

Chittagong [1], being a Port City, became settlement for many Arabs and other people from the Middle East in the Medieval Period.

There weren’t Modern Aircraft in those days, like the ones we have today. So one couldn’t fly to places!

Ships were the means for long distance travel. Port Cities were thriving centers of trade and commerce.

Many religious preachers followed traders.

And when one travels by ship, the Journey spans months.

So it’s no more like: going to a place in a day’s journey, getting things done and then returning the next day.

The Journey spanned months and many looked for permanent settlements.

Things were a lot different back then …

Twilight, Port City of Chittagong

Twilight, Port City of Chittagong

Facts

1. People are drawn – for one reason or the other.

Mystics and Monks belonging to different religions (Islam, Hinduism, Buddhism, .. ) have seen special signs and follow.

=> Leader of the whole World and everything in it.

2. Greatest Genius of All Time.

Far and far ahead of the best human experts in every domain of human endeavour.

Growing Towards => Knowledge of everything man can ever hope to know. “Absolute Truths”. “Final Truths”. Final works of Science and Technology of Humanity.

3. Growing Towards => Spiritual Power over every dust and particle on Earth. Power over everything.
Growing Towards => Unchallenged Authority over the whole World (until the World ends).

=> Freeing the World of Evil and Diseases, …….

4. Growing Towards => Purest Heart.

5. Words – Truth.

6. Divine signs in History.

Divine synchronization of Events.
Divine guidance.

7. Wherever set eyes upon – bountiful favor follows.

United States, Bangladesh [Still to come: Gas Boom], Microsoft, Roman Catholic Church, International Relations, …

Related Articles

References

From Wikipedia: “A Sufi shrine in Chittagong, dating back to 850 AD, is dedicated to the Bayazid.[6] While there is no recorded evidence of his visit to the region, Chittagong was a major port on the southern silk route connecting India, China and the Middle East, and the first Muslims to travel to China may have used the Chittagong-Burma-Sichuan trade route. Chittagong was a center of Sufism and Muslim merchants in the subcontinent since the 9th century, and it is plausible that either Bayazid or his followers visited the port city around the middle of the 9th century.”

  • [5] Mahdi [Wikipedia Entry]

“who will rule … and will rid the world of evil.”

Knowledge Is Virtue: In case of Development Economics & elsewhere

Knowledge is Virtue

“Our task is to become God-like through knowledge. We know so little.”
– Many lives many Masters

 

One day, not so long ago, I was watching a Talk Show.

The participants who took part were trying to present their own explanations / arguments behind different political events and their own predictions on what’s going to happen next.

And I thought: when people try to explain things – they provide explanations that are “shallow” in scope.

Sometimes they see the “event” from only one perspective. Most of the time, they “borrow” their explanations from others – what they heard others saying, or what they read.

 

But when I provide an explanation behind an event – Political, Economic or otherwise – it’s very close to what is “absolute truth”.

Each of my sentence and every word that I use – is based on sound analysis, taking every aspect into account and leaving nothing behind.

 

What are the special mechanisms of my mind that lie behind this capacity?

 

1.

I can grasp “the whole” in my mind.

Example: A Nation “as a whole” – including all its people, Organizations, Knowledge.

People can usually consider only “one part at a time”.

Being able to grasp “the whole” enables me accomplish some special feats; like writing the Constitution for any country [1] and engineering the Democratic Institutions for that country.

2.

My breadth of Knowledge is not bounded by a particular “field of Expertise”. I am an “Expert” in almost any human endeavor. If an area is outside my “expertise” today, I can learn by myself and surpass Experts in that field within a very short time.

 

These two features enable me become something close to “All Aware”, beholder of “All Knowledge”.

I am growing and gaining capacity to direct the “whole world” and everything in it – with my mind (and to make all parts “work together as a whole”).

[Area of Expertise: #Cognitive Science]

 

Breadth of Knowledge that enable me put forward explanations behind events:

I understand: How human minds operate,

How to create and run an Organization of any form and whatever complexity,

How to design the required Organizations to make a Nation work (e.g., Democratic Organizations) or Society or an International Agenda work (International Agendas including establishment of Peace and Security or International Finance),

How to take Science forward and engineer new Technologies to achieve breakthroughs:

conquering Disabilities like Autism and Diseases like AIDS and Cancer,

creating an advanced Artificial Intelligence Platform).

 

Area of Expertise: 

#Development Economics 

 

When Experts plan for turning a Developing Nation (say, Bangladesh or Nigeria or Indonesia) into a Developed Nation, their plans are limited by field of Expertise.

Economists   #Development Economics

Some Economists only make sure the Financial Systems work properly: that savings and investments are high; inflation is low and so forth.

Other Economists put more emphasis on Infrastructure development.

But Economists can not make detailed plans on how to develop a specific Industrial Sector.

Scientists and Engineers  

#Development Economics

When Scientists and Engineers propose Development plans, they emphasize developing the Industrial Sectors – they propose Technology Transfer from Developed countries. And they emphasize on individual development – turning more Scientists and Engineers – through a better Education system.

But Scientists and Engineers miss out on the importance of sound Economic Policy – policies like promotion of “Free Market Capitalism”. They also miss out on emphasizing the importance of Institutions and Organizations:

It’s not Individual Brilliance that make a Nation rich, it’s the Business Organizations and Business Environment that do.

Leaders  #Development Economics

When Leaders plan and implement Development Plans, they usually study successful Models of development (East Asian Tigers like South Korea or Singapore or Malaysia) and contemplate how they can “adapt” those “Models” to suit their own countries.

Most of the leaders are not “Economists” themselves, so they can’t explain the reasons that led to successes in those countries

(though Leaders enjoy the privilege of making new entries to our Dictionaries bearing their names!)

Instances:

“Abenomics” (a new entry to the Dictionary derived from Japanese Prime Minister Shinzo “Abe”) 

and

“Obamacare” (another entry to our layperson’s Dictionary due to President Barack “Obama”).

 

 

Lets get back to what I was discussing.

I can plan to the minutest details (taking “every” little thing of the country into consideration):

How to turn Bangladesh (and African Nations and Latin American Nations) into Developed Nations,

Possible time frame of milestones and achievements,

Estimation of quantitative impact of implementing different Economic Policies,

And most importantly, my plan would take into account every detail: Industry and Finance and Technology Transfer and Policy and People and how to make everything work together to achieve rapid development.

 

Economists and other planners – see only “a part” at a time; “the whole”, for them, is too complex to grasp (and for anyone else on Earth, excluding me). Just as I can simplify “complexity”, I can grasp “the whole”.

Another distinguishing facet:

I derive all of Knowledge from “First principles” and “Experience / Experiments” [2].

I am not limited by what I read in books. Books provide me with “Contexts” for my own original thinking. Books do not limit me; rather books provide me with “Topics” and “Contexts” for thinking and I build knowledge myself in my mind.

 

 

Articles By Me:

The ‘Culture’ of Mathematical Olympiad in Bangladesh (বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতি)

“মধুর সমস্যায় পড়েছেন বৃষ্টি শিকদার ও সৌরভ দাশ – Harvard University, Cambridge University, Massachusetts Institute of Technology (MIT), California Institute of Technology (Caltech), Stanford University, Duke University সহ বিশ্বের নামীদামি ১৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন সবাইকে। কিন্তু বেছে নিতে পারবেন মাত্র একটি। কোনটি বেছে নেবেন এই দুই মেধাবী? [12]”


এটা কিভাবে ঘটেছে?

 
ঘটেছে বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াড সংস্কৃতি সূচনার মাধ্যমে। 
 
সেই গল্পই বলছি আজকে।
 
শুনতে থাকুন! 
 

বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতির সূচনার পর বেশকিছু পরিবর্তন আমরা লক্ষ্য করছি।

আমরা লক্ষ্য করছি, অনেকগুলো ছেলেমেয়ে প্রতিদিনের একটা অংশ গভীর আগ্রহ নিয়ে গাণিতিক সমস্যা সমাধানে  ব্যয় করে।
Exercise vs Problem Solving

স্কুল কলেজে আমরা যে গণিত করি – ওটা হল Exercise করা।
Physical Exercise করার সময় আমরা যেমন একই নিয়মে অনুশীলন করে যাই (হোক অনুশীলনটা শারীরিক) – স্কুলে কলেজে আমরা গণিত করার সময় অনেকটা ওরকমই করি – কিছু নির্দিষ্ট ধাপ মেনে একই নিয়মে অনুশীলন করে যাই। 
ধর, তুমি দুটো সংখ্যাকে গুণের নিয়ম (Rules) শিখে নিলে – প্রথমে সবচেয়ে ডানের অঙ্ক দুটোকে গুণ, তারপর হাতে রাখলাম, তারপর …।
এরপর তুমি যখন বই-এ দেওয়া Exercises থেকে দুটো সংখ্যাকে নিয়ম মেনে গুণ কর – তখন Exercise (অনুশীলন) কর (ঐ যে বলছিলাম – একই নিয়মে অনুশীলন)।
যারা Computer Science পড়েছ তারা জানো – এভাবে নির্দিষ্ট কিছু ধাপ (Step by step) মেনে সমস্যা সমাধানকে Computer Science এর পরিভাষায় বলে Algorithm.
অলিম্পিয়াডের সমস্যাগুলোর (Mathematical Problems) মজার ব্যাপারটা কি জানো?
গণিত অলিম্পিয়াডের সমস্যাগুলো সমাধানে – এই যে কোন ধাপের পর কোন ধাপ মেনে সমস্যা সমাধান হবে – ওটা নিজেকে ভেবে বের করতে হয়। অন্যকথায়, গণিত সৃষ্টি করতে হয়। 
Computer Science এর পরিভাষায় বলা যায় Algorithm টা নিজেকে দাঁড় করাতে হয়। 
ব্যাপারটা এভাবে ভেবে দেখো –
ধর, দুটো সংখ্যাকে কিভাবে গুণ বা একটা সংখ্যা দিয়ে অপর একটা সংখ্যাকে কিভাবে ভাগ করতে হবে – সেই নিয়ম তোমাকে কেউ শিখিয়ে দেয় নি। নিজেকে ভেবে বের করতে হবে – কিভাবে দুটো সংখ্যাকে গুণ করা যায় বা একটা সংখ্যা দিয়ে অপর একটা সংখ্যাকে ভাগ করা যায়।
গণিত অলিম্পিয়াডে এমন সব সমস্যা সমাধান করতে হয় – যে সমস্যা সমাধানের উপায় বা নিয়ম তোমাকে কেউ শিখিয়ে দেয় নি – তোমাকে ভেবে বের করতে হবে! অর্থাৎ গণিত সৃষ্টি করতে হবে!   

আমরা বলি, স্কুল কলেজে তোমরা Exercise কর, আর গণিত অলিম্পিয়াডে আমরা “Problem Solving” করি!
কাজেই যারা এখনও Problem Solving কর না, আশা করছি তোমরা দ্রুত আমাদের দলে যোগ দেবে!

যারা Problem Solving করে তাদের অনেক ভাবতে হয়। ভাবতে গিয়ে তাদের “নিউরনে অনুরনন” হয়! তারা অনেক ভালভাবে চিন্তা করতে, বিশ্লেষণ করতে শেখে। 
গণিত অলিম্পিয়াড সূচনার পর একটা প্রজন্ম গড়ে উঠছে যাদের গড় IQ আগের প্রজন্মগুলোর তুলনায় বেশি। নতুন প্রজন্মের এই ছেলেমেয়েরা অনেক ভালভাবে চিন্তা করতে পারে। আমাদের দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দৈনিক এ নিজের ছবি দেখা, বিশ্ব প্রতিযোগিতায় নিজ দেশকে represent করা – অনেক বড় inspiration। 

এই মেধাবী ছেলেমেয়েগুলো যখন দেশ ও সমাজের দায়িত্ব নেবে, তখন আমরা নতুন একটা দেশ গড়ে তুলবো।
সেই লক্ষ্যে প্রস্তুতির জন্য আমাদের কিশোর তরুণ গণিতবিদদের কিছু কাজ করতে হবে:
গাণিতিক সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে চিন্তা করার, বিশ্লেষণ করার যে ক্ষমতা বিকশিত হয়েছে, সেই ক্ষমতাকে আশেপাশের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে প্রয়োগ করা শুরু করতে হবে। 
বই পড়ে যা-ই শিখছ – তাকে বাস্তব জীবনে কিভাবে প্রয়োগ করা যায় – ভাবতে হবে। 
আমার লেখা পড়লে দেখবে – জ্ঞান (Knowledge) কে আমি চারপাশের জগতে, জীবনের প্রত্যেকটা ক্ষেত্রে প্রয়োগ করি। জীবনে চলি – জ্ঞানের উপর ভিত্তি করে – Mathematics, Engineering, Economics, এমনকি Politics! Knowledge based Life – বলতে পারো! 
আর দেরি না – জ্ঞান ভিত্তিক জীবন (Knowledge based Life) শুরু হোক আজ থেকে!
 
ফিরে আসি গণিত অলিম্পিয়াডে।
Dreams & Aspirations
Mathematical Olympiad for Primary School students!
আমরা লক্ষ্য করেছি, গণিত অলিম্পিয়াডের অনুষ্ঠানগুলোতে অনেক ভাল ভাল কথা হয়। আলোকিত মানুষ হওয়ার, দেশকে ভালবাসার অনুপ্রেরণা পায় ছেলেমেয়েরা। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা দেশের গুণী মানুষদের কাছ থেকে দেখার সুযোগ পায়, প্রশ্ন করতে পারে, কথা বলতে পারে এবং এমনকি চাইলে অটোগ্রাফও নিতে পারে!


দুটা চমৎকার ব্যাপারের একটা হল

  • “গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো” থিম – অনেকগুলো ছেলেমেয়ে নিজের জীবন নিয়ে দেশ নিয়ে বড় বড় স্বপ্ন দেখছে এবং তার চেয়েও বড় কথা স্বপ্নগুলোকে বিশ্বাস করছে [14]। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী দেশের শিশুকিশোর গণিতবিদদের কাছে যে ৩টি স্বপ্নের কথা বলেছিলেন তাদের মাঝে ছিল ২০২২ সালের মধ্যে একজন বাংলাদেশী গনিতবিদের ফিল্ডস মেডল জয় এবং ২০৩০ সালের মধ্যে একজন বাংলাদেশী বিজ্ঞানীর নোবেল পুরষ্কার জয়। আমাদের ক্ষুদে গণিতবিদরাও এই স্বপ্নগুলো বাস্তবায়নে নিজেদের তৈরি করছে। 
  • আরেকটা হল একেবারে ক্লাস থ্রি – ফোরের ছেলেমেয়েরা ড. জাফর ইকবালের ভাষায় “পেন্সিল কামড়ে” অঙ্ক করতে আসে!

 

Admission in World class Universities

আমরা লক্ষ্য করেছি, বাংলা মাধ্যমের বেশ কিছু ছেলেমেয়ে বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেল এ পড়ার সুযোগ পেয়েছে। মুন পড়ছে Harvard University তে [1], নাজিয়া MIT তে [2] (তা নাহলে “MIghTy” শব্দটা এভাবে লেখা আমরা কোত্থেকে শিখতাম!), ইশফাক Stanford University তে [3], তানভির Caltech এ [4] (আমাদের শ্রদ্ধেয় প্রফেসর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এই বিশ্ববিদ্যালয়ে Post-Doctoral Researcher হিসেবে কর্মরত ছিলেন) [5], সামিন Cambridge University তে [6]।

আগে অ্যামেরিকা, ইউরোপ, এশিয়া বা অস্ট্রেলিয়ার গ্রাজুয়েট স্কুলগুলোতে আমরা এমএস বা পিএইচডি করতে যেতাম। ইংরেজি মাধ্যমের অবস্থাসম্পন্ন ছেলেমেয়েরা পড়তে পারত আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেলে। কিন্তু “বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়তে যাওয়াটা নতুন!

“বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়ার পথ দেখানোর কৃতিত্বের একক দাবিদার বাংলাদেশ গণিত দলের কোচ ড. মাহবুব মজুমদার  [7]; যিনি MIT থেকে Electrical Engineering এ আন্ডারগ্রাড, Stanford University থেকে Civil Engineering এ মাস্টার্স এবং Cambridge University থেকে Theoretical Physics এ PhD করে Imperial College এ [8] Post Doctoral করছিলেন। ২০০৫ সালে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের সাথে সম্পৃক্ত হন এবং স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে দেশে থেকে যান। 

১৯০৫ এ আইনস্টাইনের “Miracle Year” [10] স্মরণে ২০০৫ সালের বাংলাদেশ জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াডে আইনস্টাইন এবং পদার্থবিজ্ঞানের উপর একটা প্রশ্ন উত্তর পর্ব ছিল। সেখানে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলাম। তাই গণিত ক্যাম্পে ড. মাহবুব মজুমদার আগ্রহের সাথে পদার্থবিজ্ঞান নিয়ে আলোচনা করতেন। মেক্সিকোয় যাওয়ার আগে প্রেস কনফারেন্সে তিনি স্ট্রিং থিউরির [11] একটা পেপার নিয়ে হাজির!   

Success at IMO
আরেকটা ব্যাপার লক্ষ্য করার মত। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে আমাদের সাফল্যের মাত্রা দ্রুত বাড়ছে [15] [16]। আমাদের কিশোর – তরুণ গণিতবিদরা ২০০৬ সালে প্রথমবারের মত অনারেবাল মেনশান, ২০০৯ সালে প্রথমবারের মত ব্রোঞ্জ মেডেল, ২০১২ সালে প্রথমবারের মত সিলভার মেডেল জয় করে এনেছে। আমরা আশা করছি, এই ধারা অব্যাহত রেখে বাংলাদেশ গণিত দল ২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড থেকে গোল্ড মেডেল নিয়ে ফিরবে! গোল্ড মেডেল জয়ী সেই গণিতবিদ হতে পারো তুমিই!

Participation in APMO

আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পাশাপাশি আমাদের ক্ষুদে গণিতবিদরা এশিয়ান-প্যাসিফিক ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াডে (এপিএমও) অংশগ্রহণ করছে এবং পদক জয় করে আনছে [16]।

Books on Mathematics, Math Olympiad for University students and the start of a new ‘Culture’

আমি শিরোনামে “সংস্কৃতি” শব্দটির উল্লেখ করেছি। এর সবচেয়ে বড় কারণ অবশ্যই বাংলাদেশের ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের গণিত তথা মেধার চর্চা। কিন্তু এই মেধা চর্চার ঢেউ এসে লেগেছে আমাদের সংস্কৃতির নানা অঙ্গনে, নানা অংশে। গণিত চর্চার জন্য প্রকাশিত হচ্ছে বই [13]। একুশের বই মেলায় গণিতের বইয়ের স্টলে ভিড় জমাচ্ছে ছেলেমেয়েরা। বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক পর্যায়ে নিয়মিত গণিত অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হচ্ছে [17]।

Science Olympiads

গণিত অলিম্পিয়াড সূচনা এবং সাফল্যের পর বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ে অলিম্পিয়াড শুরু হয়েছে।

  • পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াড (Physics Olympiad)
  • রসায়ন অলিম্পিয়াড (Chemistry Olympiad)
  • জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াড (Biology Olympiad)
  • প্রাণরসায়ন অলিম্পিয়াড (Biochemistry Olympiad)
  • ইনফরমেটিক্স অলিম্পিয়াড (Informatics Olympiad) 
    • কম্পিউটার প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা। আমাদের স্কুল কলেজের ছেলেমেয়েরা এখন আন্তর্জাতিক প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় মেডেল জয় করে আনছে! ভাবা যায়!  


Volunteers
গণিত অলিম্পিয়াডের এই সংস্কৃতি সম্ভব হয়েছে কিছু তরুণ – তরুণীর স্বেচ্ছা কর্মোদ্যোগে। আমরা তাদের “মুভারস” (MOVERS – Math Olympiad Volunteers) বলে জানি। একটা শুভ উদ্যোগে দেশের তরুণ তরুণীদের উৎসাহী অংশগ্রহণ আমাদের প্রাণশক্তিতে ভরপুর তরুণ প্রজন্মকে সংজ্ঞায়িত করে।


নাগরিক শক্তি গণিত অলিম্পিয়াডের এই সংস্কৃতিকে দেশে আরও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেবে।



– ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী: তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা; উপাচার্য, ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক; সভাপতি, বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।

তরুণ প্রজন্ম এখন নেতৃত্ব নিতে সক্ষম
– ডঃ মুহম্মদ জাফর ইকবাল, বিভাগীয় প্রধান, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

ভর্তি, মান ও দক্ষ জনশক্তি
– ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ: অধ্যাপক, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ও ফেলো, বাংলাদেশ একাডেমি অব সায়েন্সেস।



তোমাদের জন্য লেখা





আরও কিছু লেখা




বাংলাদেশে বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড




রেফরেন্স

  1. Harvard University
  2. MIT
  3. Stanford University
  4. California Institute Of Technology
  5. Dr. Muhammed Zafar Iqbal
  6. Cambridge University
  7. Dr. Mahbub Majumdar
  8. Imperial College
  9. A painful funny story
  10. Einstein’s Miracle Year
  11. String Theory
  12. এমআইটির পথে…
  13. গণিতের জাদু বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
  14. গণিত শেখো স্বপ্ন দেখো: জাতীয় গণিত উৎসব বিশেষ সংখ্যা: ১৪ ও ১৫ ফেব্রুয়ারি, ঢাকা
  15. আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড: এবার তিনটি ব্রোঞ্জ পেল বাংলাদেশ
  16. এপিএমওতে বাংলাদেশের দুটি ব্রোঞ্জ পদক
  17. খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক গণিত অলিম্পিয়াড

আজকের উপলব্ধিতে বাংলাদেশ [১৩.১১.১৪]

মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার

 

 

রাজনীতি – দেশজুড়ে 


 
International: Myanmar (Burma)

সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্য পরিকল্পনা তৈরি করতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গণতন্ত্রমুখী সংস্কারের বিষয়ে মিয়ানমার পেছন দিকে হাঁটছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার এ রকম সতর্কবার্তার পাশাপাশি ওই আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির এক শীর্ষ কর্মকর্তা।

রোহিঙ্গাদের পক্ষে বান কি মুনের আহ্বান: 
জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন রোহিঙ্গাদের অধিকারের প্রতি সম্মান দেখাতে মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। 

এইচআরডব্লিউয়ের তাগিদ: 
হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে, মিয়ানমার যাতে সংস্কারের প্রতিশ্রুতি পূরণ করে, সে জন্য দাতা দেশ ও সংস্থাগুলোকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে কাজ করতে হবে। 

International: India

Other News

#StopDrugTrafficking

Bangladesh Cricket Team

“সবজি উৎপাদন বৃদ্ধির হারের দিক থেকে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে তৃতীয়। “

স্মৃতিতে হুমায়ুন আহমেদ … প্রিয় কিছু বই

কিছুদিন আগে ভাবছিলাম – নাগরিক শক্তি যেদিন আত্নপ্রকাশ করবে সেদিন দুজন মানুষের জন্য কষ্ট হবে – প্রয়াত বিচারপতি হাবিবুর রহমান আর লেখক ড. হুমায়ূন আহমেদ। বেঁচে থাকলে দুজন নিশ্চয় অসম্ভব খুশি হতেন!

প্রয়াত বিচারপতি হাবিবুর রহমান আর লেখক ড. হুমায়ূন আহমেদ দুজনের জন্য অনেক অনেক শ্রদ্ধা এবং ভালবাসা।

প্রয়াত লেখক ড. হুমায়ূন আহমেদের অনবদ্য সৃষ্টিগুলোর মাঝে অন্যতম

  • তীক্ষ্ণ পর্যবেক্ষণ ক্ষমতাসম্পন্ন Psychologist মিসির আলি (ড. হুমায়ূন আহমেদ একটি বই – সম্ভবত “আমিই মিসির আলী” – তে উল্লেখ করেছিলেন প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমানকে তাঁর মিসির আলী মনে হয়!),
  • অলৌকিক ক্ষমতাসম্পন্ন হিমু এবং
  • পৃথিবীর শুদ্ধতম মানুষ (“রাজপুত্রের মত দেখতে”, “দেবশিশু”, “পরীক্ষায় ফাস্ট ছাড়া কখনও সেকেন্ড হয়নি”, ফর্সা থেকে শুভ্র নাম) শুভ্র

The Daily Star সম্পাদক মাহফুজ আনাম আর “প্রথম আলো” সম্পাদক মতিউর রহমান স্মৃতিচারণ করে বলেন, যখন বেঁচেছিলেন কী করতেন – আমরা দেখেছি!


হুমায়ূন আহমেদের লেখা প্রিয় কিছু বই:

  • [2] হলুদ হিমু কালো রাব [2006]
  • [3] হিমুর মধ্যদুপুর  
  • [4] হিমুর নীল জোছনা 
  • [5] এই শুভ্র! এই 
  • [6] শুভ্র গেছে বনে
  • [7] রূপা
  • [8] হিমু এবং একটি রাশিয়ান পরী [2011]  (“তার নাম মারিয়া শারাপোভা (Maria Yuryevna Sharapova)। একটি রাশান পরী। হিমু(!)র পরীরা একদিন বাংলাদেশে আসবে। ও তাদের একজন।”)

Vanessa Marano

Lorde

প্রয়াত লেখক ড. হুমায়ূন আহমেদ ২০১২ সালে ক্যান্সার চিকিৎসার মাঝে যখন দেশে এসেছিলেন, আমাকে দেখতে চিটাগং এসেছিলেন – নিজের অসুস্থতার মাঝেও!

উপরের বইগুলোর মত কিছু ফিল্ম:

  • [1] Son of God (Jesus)
  • [2] 3 Idiots [Release Date: December 25, 2009] 

উপরের বইগুলোর মত কিছু বিদেশী বই:

  • [1] The Alchemist – Paulo Coelho (King of Salem; Shepherd boy)
  • [2] Harry Potter (Book 1-7) – J K Rowling (Harry Potter, the chosen one who shall defeat evil lord Voldemort)
  • [3] Twilight – Stephenie Meyer (Edward Cullen)
  • [4] Five Point Someone: What not to do at IIT – Chetan Bhagat

এমন আরও কিছু বই:

  • [3] এনিম্যান – মুহম্মদ জাফর ইকবাল (বইমেলা ২০১৪) (তিষা, জন)

Links

 

Notes On Gates Foundation

1.
The idea for Gates Foundation first came while Bill Gates was visiting South Africa and he found out that there wasn’t adequate “electricity” supply in South Africa to run the Windows programs that Microsoft built.
So the Information Technology innovations that Microsoft developed couldn’t solve a lot of common problems that people face.
There had to be a way.
Thus came “Gates Foundation”.
 
 
As is consistent with Bill Gates’ background, when it got started – Gates Foundation was about finding Scientific / Technologicalsolutions to problems.
 
But Gates has always been fascinated about Economics. If I am not mistaken – at some point in his life Gates wished he could do research on Economics consecutively for 10 years.
[His other dreams included:
  • becoming a Chess GrandMaster;
  • doing research in BioChemistry – if Microsoft neverhappened (a huge fan of Richard Dawkins and his Selfish Genes! Maybe Gates wished he could find a few of the Selfless Genes he inherited in his DNA or in others’ DNA!);
  • make IBM and Microsoft work together]
Creative Capitalismborn out of that interest in Economics.
 
But Government (& Policy)and Social Change are new additions [1] [2] – or should I only mention Government.
Melinda Gates is more familiar with the concept of Social Changes.
As Melinda said in one of her interviews – Bill is more concerned with Technologyand Data (Bill is proud of the Graphs that depict the continuous decline in Diseases and rise in indexes that show people’s well being!)
while she is more into how to make people bring about changes in their lives, how to make people use the technologies 
with the ultimate goal of bringing about intended changes.
 
 
2.
P { margin-bottom: 0.08in; }

You feel so relievedwhen you truly believe that life doesn’t end when you die – your consciousness lives on.
Read books / watch documentaries on “Near Death Experiences” (NDE),
books on “alternate states of consciousness” :
  • Lucid dreaming
  • Out of body experiences
  • Hallucinations – Steve Jobs had lots of those I guess!
  • Sleep is an alternate state of consciousness.
You’ll soon come to the conclusion that,
life after death (near death experiences) is just an “Alternate state of consciousness”– an extreme form of “alternate state of consciousness” – never the less.
 
 
I see “the spiritual” as an “extension of science”.
I have built “logical edifice” for the spiritual world – just as scientists have built the “logical edifice” of science.
 
 
3.
How do you convince people to Philanthropy or doing things for other?
Ensure they try to “imagine” and “feel” the lives of people, the hardships they go through – for whom you want them to contribute.
When you just “read” – “100 people died of Ebola” – you do not feel anything– you don’t feel the urge to work for them.
But when you “read” the story of how a particular poor girldied of Ebola – how unfortunate she was – you feel it – you have “empathy” – you feel that you have to do something for those people.
When you “see”it for yourself – it works even better.
 
Everyone has “empathy” inside him / her.
A great novel or movie can make the toughest guy cry – It’s the “feeling” factorin action – the “empathy” – you just have to make sure – 
he is watching the movie with full attention, imagining himself as the Protagonist and “feeling” everything that is going on.
Now, if imaginary characters in a movie can make you cry, then a real story of a poor girl – well, needless to say.
This has another lesson for us.
When you look at people around you, usually you focus on the differences – differences in toughness, differences in opinions, differences in values, differences in what drives and motivates them. 
But inside, everyone is the samesame feelings, same emotions, same “governing rules” that shape their behavior and character (the subject matter of Psychology and Neuroscience). 
Most importantly, if you try – you can change any person – just reprogram his / her emotions and habits and change the perspective from which he / she views the world.
Summary: 
Next time you try to convince people to philanthropy – do not show “Data”, rather show pictures of how a particular person is suffering.
Exception: 
A scientist / Engineer like Bill Gates would always think how his work could have an impact – and to convince someone like him – Data and Technological possibilities would be more fruitful – but even the best Engineer would be motivated if he “feels” what his work means.
 
This is related to what I was thinking when I read about Larry Page a few days back.
It seems that Page’s working hour is full of scheduled meetings. 
He was used to working on intellectually challenging problems – and I am sure he loved it. 
Does he know how to find happiness in his current work? Or does it sometimes seem as stressful work?
I know this – because I know that most scientists do not know how to “enjoy” Management work. “Even stupid people can do this!” – they think. “There is nothing gratifying.”
So how does someone like Larry Page enjoy his role as a “Manager”?
It’s easy. 
Every now and then Page has to take some time off and “feel”the immense impact of his work – “feel”how his work – his “scheduled meetings” – is changing the lives of millions of people. And maybe he has to go back to his teen age days – his dreams at that time – and “feel” whether he has managed to surpass his dreams he had as a teen-ager and if that is the case “feel” really really happy!
And I am sure – Larry Page’s life would be different! 
Remember, you are in full control of your own happiness and satisfaction in life. 
[10/26/14]

 

References
“TEN years ago the Bill & Melinda Gates Foundation had identified 14 “grand challenges” in the field—from “preparing vaccines that do not require refrigeration” to “developing a genetic strategy to deplete or incapacitate a disease-transmitting insect population”—and had invited suggestions from the world’s scientists for specific projects of a sort that might not otherwise get funded, which might meet these goals.

Mr and Mrs Gates used this week’s meeting to announce a new set of challenges, this time spreading the net wider than the strictly science-based suggestions the programme has encouraged until now.”


“… this time the foundation is not going it alone. All sorts of partners, from America’s foreign-aid agency to the governments of Brazil, Canada, India and South Africa, are being recruited. …. public health depends on educating people and persuading them to change their behaviour, as well as on having the right medicines, as the example of HIV and AIDS eloquently shows. That sort of approach requires social change as well as appropriate technology.”



It’s great to see

  • Government & Policy and
  • Social Change

getting into the equation besides Scientific, Medical and Technological solutions and Economics.

  1.  
    On Philanthropy 2.0

     

আমি রাজনীতিতে কিভাবে – প্রশ্নটা নিশ্চয় অনেকের মনে! – ১

প্রফেসর ড. ইউনূস আর Microsoft Founder Bill Gates – দুজনই পৃথিবীর মানুষের জীবনের উন্নয়ন নিয়ে কাজ করেন (Grameen [1] এবং Gates Foundation [2] র মাধ্যমে)। মানুষের জীবনের উন্নয়ন নিয়ে কাজ করায় সফলতার বিচারে পৃথিবীর সবচেয়ে বিখ্যাতদের দুজন।
এই দুজনের স্বপ্নের অংশ হতে পারাটা অনেক বড় ব্যাপার!
প্রফেসর ড. ইউনূস আর Microsoft Founder Bill Gates – আমাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেন, প্ল্যান করেন আমিও মানুষের জন্য কাজ করবো। অন্যরকম একটা ব্যাপার!
 
আমি রাজনীতিতে কিভাবে  প্রশ্নটা নিশ্চয় অনেকের মনে!
প্রফেসর ড. ইউনূস আমাকে ছোটবেলা থেকে চিনতেন (আমাদের relative হন)।
খবর রাখতেন। 2005-এ International Mathematical Olympiad participate করেছিলাম খুশি হয়েছিলেন।
আমি রাজনীতিতে আসবো এমন একটা প্ল্যান প্রফেসর ড. ইউনূসের সবসময় ছিল।
 
২০১১’র শেষ দিকে America’Catholic Church’র ফাদার’রা আমাকে “Discover” করে। 
 
আমার সম্পর্কে জানতে America থেকে প্রফেসর ড. ইউনূসের সাথে যোগাযোগ করা হয়।
ব্যাপারটা অদ্ভুত না!
আমাকে চিনতেনও প্রফেসর ড. ইউনূস, ওরা যোগাযোগ করলোও উনার সাথে!
 
এরপর প্রফেসর ড. ইউনূস ২০১২’র প্রথম দিকেই বাংলাদেশে রাজনীতিবিদদের কাছে, নাগরিক সমাজের কাছে আমাকে পরিচয় করিয়ে দেন।
সৃষ্টিকর্তার কি অদ্ভুত প্ল্যান!
Social Media র মাধ্যমে ঠিক একই সময়ে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের কাছেও আমি পরিচিত হয়ে উঠি। It wasn’t pre-planned – sort of happenstance!
রাজনীতিতে আমার এভাবেই শুরু।
 
 
মজার ব্যাপার হল আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দুইজনই আমাকে ঘিরে প্ল্যান করেছিলেন ২০১২ তেই!
অবশ্য যথাক্রমে আওয়ামী লীগ এবং জাতীয় পার্টির মাঝে!
সাবেক রাষ্ট্রপতি জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ২০১৩ সালের শেষদিকে বলেছিলেন, “আমি এমন একজনকে তৈরি করে যেতে পারিনি যে আমার পর জাতীয় পার্টির দায়িত্ব নেবে!
নাগরিক শক্তির মাধ্যমে ইনশাল্লাহ সবার স্বপ্নের প্ল্যানের বাস্তব রূপ দেখা যাবে।
 
মানুষ সারা জীবনের স্বপ্ন, ১০ বছর, ২০ বছর, ৩০ কিংবা ৪০ বছরের সাধনার মাধ্যমে নিজের দল গড়ে তোলেন।
আমাদের দেশের বেশ কয়েকটা রাজনৈতিক দলের প্রধান নিজেদের ১০, ২০, ৩০ বছরের সাধনায়, নিজেদের হাতে গড়া দলের উরধে উঠে – “নাগরিক শক্তি”র অংশ হতে সাগ্রহে রাজি হয়েছেন।
পুরো ব্যাপারটা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না চুপচাপ অনুভব করতে হয়।

[ছোটবেলার একটা ঘটনা বলি। জাতীয় পার্টি সম্পর্কিত।

আমি যখন একদম ছোট্ট – ছোট্ট মানে একেবারে পিচ্চি – কয়েকমাস বয়স (!) আমার প্রয়াত নানা একদিন আমাকে নিয়ে টিভিতে জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ভাষণ দেখছিলেন। জেনারেল এরশাদ তখন বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট।
তিনি হঠাৎ মুনাজাত ধরে বললেন, আল্লাহ্‌, আমার নাতনিকে এরশাদের মত বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট করে দাও!
আম্মুর পরীক্ষা পড়ছিলেন।
আমার নানী ডেকে নিয়ে এলেন দেখো, তোমার বাবা তাহসিনের জন্য কিভাবে দোয়া করছে!]
 
[আরেকটা মজার ব্যাপার বলি। এবার আওয়ামী লীগ!
২০১৩ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব যখন জানলো, আমি নিজের দল করবো  প্রথমে ব্যাপারটাকে সহজভাবে নেয়নি।
সহজভাবে না নেওয়ার সুবাদে (!) আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব আমার যে International পরিচিতি আছে (Diplomatic) – প্রথম জেনেছিল এবং ফলশ্রুতিতে প্রক্রিয়া (!)টি দীর্ঘমেয়াদী হয়নি!
অন্য দশজনের মত ইউনিভার্সিটিতে যায়, সবার সাথে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকেট কিনে এমন কারও বাইরে পরিচিতি থাকতে পারে ভাবা যায় না! আমাদের দেশে তো না!]
 
 
সৃষ্টিকর্তা এমন ব্যবস্থা করেছেন  আমাকে সবাই মনে রেখে দেন!
গণিত অলিম্পিয়াডের সময় ২০০৫ সালে প্রথম আলোআর অন্যান্য পত্রিকায় আমার ছবি, আমাকে নিয়ে লেখা ছাপিয়েছিল – আমাকে মনে রেখে দিয়েছিলেন প্রয়াত লেখক ড. হুমায়ূন আহমেদ।
মৃত্যুর আগে ২০১২ তে দেশে এসেছিলেন। আমাকে দেখতে চিটাগং চলে এসেছিলেন।
লেখক ড. হুমায়ূন আহমেদ বেঁচে থাকলে আজকে সবকিছু দেখে অনেক খুশি হতেন!
কে বলতে পারে – হয়তবা যোগ দিতেন রাজনীতিতে!
[শাহবাগ গণজাগরণ মঞ্চের সমাবেশে প্রফেসর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল]

 

References

  1. Grameen Foundation 
  2. Gates Foundation  

Surprised ধীরে ধীরে হওয়া-ই ভাল!

#StoriesOfMyLife

প্রিন্সেসএকটা ব্যাপার কি জানো সবকিছু একসাথে দেখে ফেলার চাইতে এক একটা বড় surprise দেখা ভালো!
প্রথমে অনেকে ধরে নিয়েছিল আমি তরুণদের নিয়ে একটা দল করছি!
তারপর বোঝা গেল, Civil Society-র নাগরিকরা থাকবেন।
দলের সংগঠনের সাথে কারা আছেন, থাকবেন নাম দেয়া শুরু করার পর দেখা গেল অনেকেই আছেন।- নাগরিক সমাজের প্রায় সবাই, রাজনীতিবিদরা।
পাশাপাশি, মানুষ আইডল বলে consider করে এমন অনেকে থাকবেন।
(অনেকের চোখ কপালে – “রা সরাসরি রাজনীতিতে!“)
তারপর দেখা গেল আমি Internationally পরিচিত!
আমাদের Movement কত বড়, কতটা significant – এটা ধীরে ধীরে ফুটে উঠছে!
একসাথে সব দেখলে এক একটা ব্যাপারের Significance বোঝা যায় না!
এখন তো সব বাকি!
সব আমার হাতে – ধীরে ধীরে জানা হবে!
Surprised ধীরে ধীরে হওয়া-ই ভালো!

– (08/21/14)

আমি AIDS, Cancer, Parkinson’s, Alzheimer’s, Autism – এসব Diseases and Disorders-র Cure discover করবো। 
ওগুলো হবে আরও বড় Surprise!
Surprised ধীরে ধীরে হওয়া-ই ভালো!
– (09/03/14) 

How Bill Gates Relates To My College Major

#StoriesOfMyLife

Princess,
Bill Gates আমাকে কিভাবে চেনেন – জানো?
আমি দেশে থাকতে লিখতাম না – rich হলে আমিও Gates Foundation এর মত কিছু করবো?

Father’রা তখন Gates এর কাছে আমার কথা বলেছে।

 
Gates আরেকজন যিনি আমাকে অনেক বেশি পছন্দ করে ফেলেছেন!
অনেক অনেক বেশি!


2.

I Just remembered an incident from my life.
 
Back in 2005, we (Me and my parents) were deciding on which Major to pursue at College.
 
Things are different in Bangladesh.
One has to declare one’s Major before the first day at College and there is no turning back.
Students Of Public Universities (in Bangladesh) do not have the slightest conception of what it means to “change College Major at some later point in College curriculum”. Some of the Private Universities provide the opportunity of switching Majors.
For most Universities, the only way to change Major is to drop out and take admission at a different University.
 
It was December 2005.
I wanted to major in “Computer Science and Engineering”.
 
My parents were still considering options.
 
Microsoft Chairman Bill Gates happened to be visiting Bangladesh in December 2005.
He was (and still is) the richest man in the World and he met the Prime Minister (of Bangladesh) during his stay in Bangladesh!
So my parents reasoned, if we let Tahsin major in “Computer Science and Engineering”, someday he would become a great personality like Bill Gates!
This was the strongest point – that convinced my Dad (who is of the same age as Bill Gates) to let me major in “Computer Science and Engineering”.
 

3. 


তোমাকে বলেছিলাম না – Bill Gates আমাকে অনেক বেশি পছন্দ করেন?

কতটা জানো?

মাঝখানে কয়েক বছর Microsoft এ ছিলেন না – পুরো সময় Gates Foundation কে দিয়েছিলেন।

2014 এ আবার Microsoft এ ফিরে এসেছেন – Technical Advisor হিসেবে – one-third সময় এখন ওখানে [1]

এতটা পছন্দ!!

(10/1/14)

References

Becoming A Great Leader By Truly Understanding The People You Wish To Lead

#OnLeadership

  • “Word of mouth”
  • “Shared Dream”
  • “বাংলাদেশের মানুষ রাজনীতি নিয়ে গল্প করতে পছন্দ করে কেন?
  • আমি অন্যের চেয়ে এগিয়ে
  • বিশ্বাস করা
  • স্বপ্নের দিকে এক একটা পদক্ষেপ ফেলে এগিয়ে যাওয়ার মাঝে আনন্দ
  • বাংলাদেশের মানুষ কেন Politics নিয়ে কথা বলতে পছন্দ করে
  • মানুষ আবেগ দ্বারা তাড়িত (Emotion Driven)
  • Happiness যেদিকে আমরা নিজের অজান্তেই automatically ওদিকে drawn হই

সবশেষে Greek দের মত আমিও বলব, “Know thyself”, নিজেকে জানো।

To become a great Leader, you have to start understanding people – what drives them, where their happiness lies, what their dreams and aspirations are made of.
And to understand people – you have to start with yourself.
Remember what the Greek Philosophers said – “Know thyself”.
Try to understand the real you – what drives you, where your happiness lies, what your dreams and aspirations are made of.
And once you begin to understand yourself, you will begin to see others in terms of the mirror that you discovered – while you were searching your own soul.
Put yourself in others’ shoes. Try to view the world from their perspectives.
 
মানুষের Dreams, Motivations dissect করলে আমরা কি দেখি তার কিছু কিছু আমরা আজকে দেখবো।
 
  • “Word of mouth”
নাগরিক শক্তি নিয়ে আমার সবসময়ই পরিকল্পনা ছিল নেতাদের বক্তব্যের মাধ্যমে না, জনগণের ভালবাসার মাধ্যমে ছড়াবে। যারা আমাদের Views পছন্দ করবেন তারাই বাকি সবার মাঝে নাগরিক শক্তিকে ছড়িয়ে দেবেন। (তুমি কাছের কারও recommendation শুনেই বেশি নিশ্চিত হবে।)
Marketing এর ভাষায় যেটাকে বলে “Word of mouth” [5]. টিভিতে শত শত অ্যাড দেখানো হয় কোনটা গ্রহণ করবে? এর চেয়ে কোন প্রোডাক্ট সম্পর্কে পরিবারের বা বন্ধুদের কারও recommendation শুনলেই তুমি বেশি convinced হবে। 

এভাবে মানুষের “মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়া”কে বলে “Word of Mouth”.

একইভাবে, দুই একজন নেতার বক্তব্য শোনার চেয়ে জনগণ নিজেরাই যদি আমাদের view ছড়িয়ে দেয় ওটাই বেশি কার্যকর।

নাগরিক শক্তির ক্ষেত্রে হয়েছেও এটাই।
জনগণই ছড়িয়ে দিয়েছে। সবাই ব্লগটিকে, লেখাগুলোকে দেখিয়ে দিয়েছে। সবাই “Shared Dream” ধারণ করে নিজেরাই ছড়িয়ে দেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছে।
 
  • “Shared Dream”
“Shared Dream” অনেক বিশাল একটা ব্যাপার।
“Shared Dream” অনেক কিছু করতে পারে লক্ষ মানুষ, কোটি মানুষ যখন একই স্বপ্ন ধারণ করে।
 
আমাদের দেশ স্বাধীন হয়েছিল কিভাবে?
আমরা সবাই একটা “Shared Dream” ধারণ করেছিলাম – “স্বাধীন বাংলাদেশএর “Shared Dream”.
নাগরিক শক্তি কে ঘিরেও আমাদের সবার “Shared Dream”.
 
 
“Word of mouth” এ ফিরে আসি।
আমি জানি, বাংলাদেশে রাজনীতিতে “Word of mouth” অনেক কার্যকর হবে। কারণ, বাংলাদেশের মানুষ রাজনীতি নিয়ে গল্প করতে পছন্দ করে। কোনভাবে যদি নাগরিক শক্তি নিয়ে পরিকল্পনা, সারা দেশে আমাদের কাজগুলো ছড়িয়ে দেওয়া যায় সবাই এটা নিয়েই আলোচনা করবে। সাথে নাগরিক শক্তিও ছড়িয়ে পড়বে।
 
  • বাংলাদেশের মানুষ রাজনীতি নিয়ে গল্প করতে পছন্দ করে কেন?
“Word of mouth”কার্যকর কারণ বাংলাদেশের মানুষ রাজনীতি নিয়ে গল্প করতে পছন্দ করে। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ রাজনীতি নিয়ে গল্প করতে পছন্দ করে কেন?
এর উত্তর দিতে মানুষের একেবারে ভেতরের মানুষটিকে বুঝতে হবে।
 
 
  • আমি অন্যের চেয়ে এগিয়ে
প্রত্যেক মানুষআমি কোন না কোনভাবে অন্যের চেয়ে এগিয়ে” – বিশ্বাস করতেপছন্দ করে এবং প্রত্যেকেই চায় অন্যরাও তাই ভাবুক।
[আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ব্যাপারটাকে কদিন আগে ব্যক্ত করেছেন এভাবে – “শেখ হাসিনা ছাড়া আওয়ামী লীগের সব নেতাকে কেনা যায়“!”
ভাগ্যিস কোন নেতাকে কত দামে কেনা যায় তা বলেননি!]
 
  • বিশ্বাস করা
আমি বিশ্বাস করাশব্দ দুটো ব্যবহার করেছি।
বিশ্বাস করাব্যাপারটা কিন্তু আলাদা। তুমি একটা তথ্য জানোআর একটা তথ্য বিশ্বাস করদুটো আলাদা। বিশ্বাস করতে তোমাকে ওটা দেখতে হয় (হতে পারে মনের চোখে) এবং feel করতে হয়। একটা সত্যকে যখন তুমি feel কর তখন ওটা বিশ্বাস হল। 
তুমিই বল, “আমি অন্যদের চেয়ে আলাদা” – এই তথ্য শতবার আওড়ানোর চাইতে “feel” করতে পারলে, অনুভব করতে পারলে (“আমি সত্যিই অন্যদের চাইতে আলাদা!”) অনেক বেশি ভালো লাগবে।
 
আমি কোন না কোন ক্ষেত্রে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে” – এটা সবাই প্রতিষ্ঠিত করতে চায়।
আমরা বলি, বিজ্ঞানীরা রাত জেগে গবেষণা করেন। কিভাবে পারেন?
এক একটা Scientific realization, এক একটা গাণিতিক সমস্যার সমাধান আমি সত্যিই অন্যদের চাইতে আলাদা! আমি অসাধারণ!” অনুভূতিটা দেয়।
  • স্বপ্নের দিকে এক একটা পদক্ষেপ ফেলে এগিয়ে যাওয়ার মাঝে আনন্দ
Paulo Coelho র একটা উক্তি – “It’s the possibility of having a dream come true that makes life interesting.” [1]
তুমি একটা স্বপ্নকে ধারণ কর। যেই তুমি দেখলে একটা ঘটনা ঘটার ফলে বা তোমার একটা পদক্ষেপের মাধ্যমে তুমি স্বপ্নের দিকে আরেকটু এগিয়েছ তোমার ভালো লাগবে (dream true হওয়ার possibility – happiness এনে দিয়েছে।)
ধর তুমি একটা রাজনৈতিক দলের সদস্য। তুমি যেই দেখবে তোমার দলে আরেকজন যোগ দিয়েছে তুমি happy feel করবে. Dream true হওয়ার possibility টা যে বেড়ে গেলো!
Mihaly Csikszentmihalyi [2] তাঁর বই Flow: The Psychology Of Optimal Experience [3]  তে ব্যাপারটা তুলে ধরেছেন। এখানে “Flow” [4]হল একটা লক্ষ্যকে স্বপ্ন হিসেবে ধরে ধীরে ধীরে এগিয়ে যাওয়া। Mihaly Csikszentmihalyiদেখিয়েছেন এটাই হল মানুষের সবচেয়ে happy state. 
  • বাংলাদেশের মানুষ কেন Politics নিয়ে কথা বলতে পছন্দ করে
বাংলাদেশের মানুষ Politics নিয়ে কথা বলতে পছন্দ করে এটা ব্যাখ্যা করছিলাম।
এই যে মানুষ Politics নিয়ে গল্প করতে পছন্দ করে ভাল লাগাটা আসে কোত্থেকে?
 
  • কয়েকজন মিলে যখন Politics নিয়ে গল্প করে, আড্ডা দেয় সেই আড্ডায় প্রত্যেকের লক্ষ্য থাকে নতুন কোন তথ্য যা অন্যরা জানে না তা উপস্থাপন করে নিজেকে আমি অন্যের চেয়ে এগিয়ে প্রতিষ্ঠিত করতে। এটা যে করতে পারে তার ভালো লাগে।
  • নিজের দলের প্রতি feelings এবং প্রতিপক্ষ দলের প্রতি রাগ / ঘৃণা তো আছেই। কয়েকজন মিলে নিজ দলের প্রশংসা আর প্রতিপক্ষ দলের দুর্বলতা এবং Negative ব্যাপার নিয়ে আলোচনা করতে পারলে দারুণ লাগে!
  • আরেকটা ব্যাপার হল Community বা brotherhood এর feelings. মানুষ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চায়। কাজেই কয়েকজন মিলে যদি নিজেদের পছন্দের দলের প্রশংসা করা যায় আর প্রতিপক্ষ দলের দুর্বলতাগুলো নিয়ে গল্প করা যায় তাহলে প্রত্যেকের ভালো লাগে। এক ধরণের Community বা brotherhood এর feelings হয়।
 
 
  • মানুষ আবেগ দ্বারা তাড়িত (Emotion Driven)
মানুষ কিন্তু আবেগ দ্বারা তাড়িত (Emotion Driven). সমাজের মাঝে থেকে – Happiness যেদিকে তাড়না দেয় সে সেদিকে যায় এবং Pain যে দিক থেকে দূরে থাকতে বলে দূরে থাকে।
Unless one is aware of one’s feeling এবং নিজেকে জোর করে অন্য কিছু করার চেষ্টা করায়।
 
 
  • Happiness যেদিকে আমরা নিজের অজান্তেই automatically ওদিকে drawn হই
মানুষ আবেগ দ্বারা তাড়িত (Emotion Driven) – ব্যাপারটার একটা উদাহরণ দেই।
তুমি কিন্তু তোমার দলের অন্য সাপোর্টারদের সাথে গল্প করতেই পছন্দ করবে। তোমার Subconscious Mind জানে, ওদের সাথে মিলে নিজ দলের প্রশংসা আর প্রতিপক্ষ দলের দুর্বলতা নিয়ে গল্প করতে তোমার ভালো লাগবে। নিজের অজান্তেই তুমি ওদের দিকে drawn হবে। (Happiness যেদিকে আমরা নিজের অজান্তেই automatically ওদিকে drawn হই।)
 
 
সবশেষে Greek দের মত আমিও বলব, “Know thyself”, নিজেকে জানো।
References
  1. The Alchemist Paperback – April 25, 2006 by Paulo Coelho  
  2. Mihaly Csikszentmihalyi 
  3. Flow: The Psychology of Optimal Experience 
  4. Flow (psychology)  
  5. Word of mouth 

Charismatic Qualities

Charismatic Qualities

  • Good looks.
  • Higher social status embodied in Attitude.

Subconsciously, people are drawn to a person whose Attitude puts him above others. Attitude can be exemplified in, say, how a person speaks or walks or deals with situations (Personality; Aristocracy). When a person speaks with elegance, people subconsciously think: this person is above others (Rank or Status in Society).

  • Spontaneous; Genuine.
  • Intelligence; Smarts; Creativity; Depth (the opposite being ‘Lightness’).
  • Confidence; Courage; Boldness; Toughness.
  • Calm, Cool and Collected under pressure; Highly developed stress handling capacity (Leadership quality).
  • Spiritual Blessings.

Each Concept, Person, Category of object has Collective Unconscious Knowledge’ as well as Collective Unconscious Emotion’ associated with it. This is what Carl Jung termed as ‘Collective Unconscious’, though Jung missed out on the ‘Emotion’ part of ‘Collective Unconscious’.

(Collective Unconscious, a term coined by Carl Jung, refers to structures of the Unconscious mind which are shared among beings of the same Species.)

Imagine, each person having an invisible scale of ‘Collective Unconscious Emotion’ associated with him or her, which determine how people generally feel when thinking of that particular person.

Those who are spiritually blessed, have high degree of Positive ‘Collective Unconscious Emotion’ associated with them. Whenever we think of them, we feel good in our ‘hearts’: “I feel so good when I think of him!”

So, naturally, blessed persons become popular. And when people feel good about a certain person, their Positive Emotion adds up in the ‘Collective Unconscious Emotion’ scale associated with the person. This in turn makes the person more likable.

As people feel attached to them, Spiritually blessed persons become successful Leaders.

  • Kindness; Caring; Emotion; Empathy.
  • Innocence; Honesty.

We do not usually consider innocence, honesty, kindness as ‘Charismatic qualities’. Maybe, we are yet to meet the kindest, most innocent and honest person. Because, when we do meet someone with these qualities, we feel like we can do anything for him!

Kindness, Innocence, Honesty dissolve our Hearts!

  • Speaking, Presentation, Writing: Communication Skills.
  • Sense of humor.
  • Popularity.

If we look closely, getting drawn to a person who is ‘popular’, appears to be a general human trait; can be termed as ‘Social Approval’ or ‘Social Vote’: “Everyone says he’s awesome, so he must be awesome!”

Our evaluation of People, Places and Things are shaped, to a large extent, by Society – what others think, how they evaluate. Very few of us are Independent Thinkers – willing to think for ourselves. For most, it’s like: “Everyone says he’s awesome, so he must be awesome!” or “Everyone says Surface is cool, so Surface must be cool!”

  • Distinctiveness; Mystery.

Mystery gives rise to ‘speculations’: “How does he do all these? … I mean, there must be something special about him!”

References

বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতি

“মধুর সমস্যায় পড়েছেন বৃষ্টি শিকদার ও সৌরভ দাশ। হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি, কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি, ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি), ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (ক্যালটেক), স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি, ডিউক ইউনিভার্সিটিসহ বিশ্বের নামীদামি ১৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন সবাইকে। বেছে নিতে পারবেন মাত্র একটি। কোনটি বেছে নেবেন এই দুই মেধাবী? [12]”


কিভাবে সম্ভব হয়েছে এটা ?
 

সম্ভব হয়েছে বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াড সংস্কৃতি সূচনার মাধ্যমে। 
 
সেই গল্পই বলছি আজকে।
 
শুনতে থাকুন! 

বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াডের সংস্কৃতির সূচনার পর বেশকিছু ব্যাপার আমরা লক্ষ্য করছি।

আমরা লক্ষ্য করছি, দেশের অনেক ছেলেমেয়ে দিনের একটা বড় অংশ আগ্রহ নিয়ে গাণিতিক সমস্যা সমাধানে  ব্যয় করে।

স্কুল কলেজে আমরা গণিত বলতে Exercise করি – কিছু নির্দিষ্ট ধাপ বা কম্পিউটার বিজ্ঞানের ভাষায় অ্যালগরিদম মেনে চলি মাত্র। কিন্তু গণিত অলিম্পিয়াডের সমস্যাগুলো সমাধানে ধাপগুলো বা অ্যালগরিদমটা নিজেকে দাঁড় করাতে হয়। অন্যকথায়, গণিত সৃষ্টি করতে হয়।

উদাহরণ দেই।

দুটা সংখ্যা গুণ করতে আমরা পুরোপুরি না বুঝে নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম মেনে চলি – প্রথমে দুটি সংখ্যার সবচেয়ে ডানের অঙ্ক দুটিকে গুণ করি, তারপর হাতে রাখি, ইত্যাদি।
কিন্তু গণিত অলিম্পিয়াডের সমস্যাগুলো সমাধানে এই ধাপ বা নিয়মগুলো – কোন ধাপের পর কোন ধাপ – ভেবে বের করতে হয় – অর্থাৎ গণিত সৃষ্টি করতে হয়।

আমরা বলি, স্কুল কলেজে তোমরা Exercise কর, আর আমরা গণিত অলিম্পিয়াডে Problem Solving করি। তাই, এখনও যারা Problem Solving কর না, আশা করি, তোমরাও দ্রুত আমাদের দলে যোগ দেবে!

যারা Problem Solving করে তাদের অনেক ভাবতে হয়। ভাবতে গিয়ে তাদের “নিউরনে অনুরনন” হয়, তারা অনেক ভালভাবে চিন্তা করতে, বিশ্লেষণ করতে শেখে। গণিত অলিম্পিয়াড সূচনার পর একটা প্রজন্ম গড়ে উঠছে যাদের গড় IQ আগের প্রজন্মগুলোর তুলনায় বেশি। নতুন প্রজন্মের এই ছেলেমেয়েরা অনেক ভালভাবে চিন্তা করতে পারে। দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দৈনিক এ নিজের ছবি দেখা, বিশ্ব প্রতিযোগিতায় নিজ দেশকে Represent করা – অনেক বড় Inspiration। 

এই মেধাবী ছেলেমেয়েগুলো যখন দেশ ও সমাজের দায়িত্ব নেবে, তখন আমরা নতুন একটা দেশ গড়ে তুলবো। সেই লক্ষ্যে প্রস্তুতির জন্য আমাদের কিশোর তরুণ গণিতবিদদের একটা ছোট্ট কাজ করতে হবে। গাণিতিক সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে চিন্তা করার, বিশ্লেষণ করার যে ক্ষমতা বিকশিত হয়েছে, সেই ক্ষমতাকে আশেপাশের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে প্রয়োগ করা শুরু করতে হবে।  

আমরা লক্ষ্য করেছি, গণিত অলিম্পিয়াডের অনুষ্ঠানগুলোতে অনেক ভাল ভাল কথা হয়। আলোকিত মানুষ হওয়ার, দেশকে ভালবাসার অনুপ্রেরণা পায় ছেলেমেয়েরা। ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা দেশের গুণী মানুষদের কাছ থেকে দেখার সুযোগ পায়, প্রশ্ন করতে পারে, কথা বলতে পারে, চাইলে অটোগ্রাফও নিতে পারে!


দুটা চমৎকার ব্যাপারের

  • একটা হল “গণিত শেখো, স্বপ্ন দেখো” থিম – অনেকগুলো ছেলেমেয়ে নিজের জীবন নিয়ে, দেশ নিয়ে বড় বড় স্বপ্ন দেখছে এবং তার চেয়েও বড় কথা – স্বপ্নগুলোকে বিশ্বাস করছে [14]। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী দেশের শিশুকিশোর গণিতবিদদের কাছে যে ৩টি স্বপ্নের কথা বলেছিলেন তাদের মাঝে ছিল ২০২২ সালের মধ্যে একজন বাংলাদেশী গনিতবিদের ফিল্ডস মেডল জয় এবং ২০৩০ সালের মধ্যে একজন বাংলাদেশী বিজ্ঞানীর নোবেল পুরষ্কার জয়। আমাদের ক্ষুদে গণিতবিদরা স্বপ্নগুলো বাস্তবায়নে নিজেদের তৈরি করছে। 
  • আরেকটা হল একেবারে ক্লাস থ্রি – ফোরের ছেলেমেয়েরা, ড. ইকবালের ভাষায়, “পেন্সিল কামড়ে” অঙ্ক করতে আসে!



আমরা লক্ষ্য করেছি, বাংলা মাধ্যমের বেশ কিছু ছেলেমেয়ে বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেল এ পড়ার সুযোগ পেয়েছে। মুন পড়ছে Harvard University তে [1], নাজিয়া MIT [2] (তা নাহলে “MIghTy” শব্দটা এভাবে লেখা আমরা কোত্থেকে শিখতাম!), ইশফাক Stanford University [3], তানভির Caltech [4] (আমাদের শ্রদ্ধেয় প্রফেসর ড. ইকবাল এই বিশ্ববিদ্যালয়ে Post-Doctoral Researcher হিসেবে কর্মরত ছিলেন) [5], সামিন Cambridge University [6]।

আগে আম্যারিকা, ইউরোপ, এশিয়া বা অস্ট্রেলিয়ার গ্রাজুয়েট স্কুলগুলোতে আমরা এমএস বা পিএইচডি করতে যেতাম। ইংরেজি মাধ্যমের অবস্থাসম্পন্ন ছেলেমেয়েরা পড়ত আন্ডারগ্রাজুয়েট লেভেলে। কিন্তু “বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়তে যাওয়াটা নতুন!

“বাংলা মাধ্যম” থেকে “স্কলারশিপ নিয়ে” “আন্ডার গ্রাজুয়েট” লেভেলে “বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে” পড়ার পথ দেখানোর কৃতিত্বের দাবিদার বাংলাদেশ গণিত দলের কোচ ড. মাহবুব মজুমদার  [7]; যিনি নিজে MIT থেকে Electrical Engineering এ আন্ডারগ্রাড, Stanford University থেকে Civil Engineering এ মাস্টার্স এবং Cambridge University থেকে Theoretical Physics এ PhD করে Imperial College এ [8] Post Doctoral করছিলেন। ২০০৫ সালে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডের সাথে সম্পৃক্ত হন এবং স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে দেশে থেকে যান। বিদেশী ও ইঞ্জিনিয়ারিং আন্ডারগ্রাড ডিগ্রি এবং আরও কিছু কারণ দেখিয়ে তাকে Dhaka University Physics Department এ যোগ দিতে দেওয়া হয়নি [9]। তিনি স্বপ্ন দেখেন বাংলাদেশে একটা বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষণাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার। আমরা তার পাশে থাকবো।

১৯০৫ এ আইনস্টাইনের “Miracle Year” [10] স্মরণে ২০০৫ সালের বাংলাদেশ জাতীয় গণিত অলিম্পিয়াডে আইনস্টাইন এবং পদার্থবিজ্ঞানের উপর একটা প্রশ্ন উত্তর পর্ব ছিল। সেখানে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলাম। গণিত ক্যাম্পে ড. মাহবুবের সাথে পদার্থবিজ্ঞান নিয়ে আলোচনা হত। মেক্সিকোতে যাওয়ার আগে প্রেস কনফারেন্সে দেখি তিনি স্ট্রিং থিউরি (String Theory) র [11] একটা পেপার নিয়ে হাজির!   

আরেকটা ব্যাপার লক্ষ্য করার মত। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে (International Mathematical Olympiad) আমাদের সাফল্যের মাত্রা দ্রুত বাড়ছে [15] [16]। আমাদের কিশোর – তরুণ গণিতবিদরা ২০০৬ সালে অনারেবাল মেনশান, ২০০৯ সালে ব্রোঞ্জ মেডেল, ২০১২ সালে সিলভার মেডেল জয় করে এনেছে। আমরা আশা করছি, এই ধারা অব্যাহত রেখে বাংলাদেশ গণিত দল আগামীতে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড থেকে গোল্ড মেডেল নিয়ে ফিরবে! গোল্ড মেডেল জয়ী সেই গণিতবিদ হতে পারো তুমিই!

আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের পাশাপাশি আমাদের ক্ষুদে গণিতবিদরা এশিয়ান-প্যাসিফিক ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াডে (APMO) অংশগ্রহণ করছে এবং পদক জয় করে আনছে [16]।

শিরোনামে আমি “সংস্কৃতি” শব্দটির উল্লেখ করেছি। এর সবচেয়ে বড় কারণ অবশ্যই বাংলাদেশের ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের গণিত তথা মেধার চর্চা। কিন্তু মেধা চর্চার এই ঢেউ এসে লেগেছে আমাদের সংস্কৃতির নানা অঙ্গনে, নানা অংশে। গণিত চর্চার জন্য প্রকাশিত হচ্ছে বই [13]। একুশের বই মেলায় গণিতের বইয়ের স্টলে ভিড় জমাচ্ছে ছেলেমেয়েরা। বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক পর্যায়ে নিয়মিত অনুষ্ঠিত হচ্ছে গণিত অলিম্পিয়াড [17]।

গণিত অলিম্পিয়াড সূচনা এবং সাফল্যের পর বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ে অলিম্পিয়াড শুরু হয়েছে।

  • পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াড 
  • রসায়ন অলিম্পিয়াড
  • জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াড 
  • প্রাণরসায়ন অলিম্পিয়াড
  • ইনফরমেটিক্স অলিম্পিয়াড 
    • কম্পিউটার প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা। আমাদের স্কুল কলেজের ছেলেমেয়েরা এখন আন্তর্জাতিক প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় মেডেল জয় করে আনছে!   



গণিত অলিম্পিয়াডের এই সংস্কৃতি সম্ভব হয়েছে কিছু তরুণ – তরুণীর স্বেচ্ছা কর্মোদ্যোগে। আমরা তাদের “মুভারস” (MOVERS – Math Olympiad Volunteers) বলে জানি। তাদের নেতৃত্বে আছেন দেশের বহু উদ্যোগের পেছনের মানুষটি – মুনির হাসান। একটা শুভ উদ্যোগে দেশের তরুণদের উৎসাহী অংশগ্রহণ আমাদের প্রাণশক্তিতে ভরপুর তরুণ প্রজন্মকে সংজ্ঞায়িত করে।


– ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী: তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা; উপাচার্য, ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক; সভাপতি, বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।

তরুণ প্রজন্ম এখন নেতৃত্ব নিতে সক্ষম
– ডঃ মুহম্মদ জাফর ইকবাল, বিভাগীয় প্রধান, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

ভর্তি, মান ও দক্ষ জনশক্তি
– ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ: অধ্যাপক, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ও ফেলো, বাংলাদেশ একাডেমি অব সায়েন্সেস।



তোমাদের জন্য লেখা





আরও কিছু লেখা



বাংলাদেশে বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড




রেফরেন্স

  1. Harvard University
  2. MIT
  3. Stanford University
  4. California Institute Of Technology
  5. Dr. Muhammed Zafar Iqbal
  6. Cambridge University
  7. Dr. Mahbub Majumdar
  8. Imperial College
  9. A painful funny story
  10. Einstein’s Miracle Year
  11. String Theory
  12. এমআইটির পথে…
  13. গণিতের জাদু বইয়ের মোড়ক উন্মোচন
  14. গণিত শেখো স্বপ্ন দেখো: জাতীয় গণিত উৎসব বিশেষ সংখ্যা: ১৪ ও ১৫ ফেব্রুয়ারি, ঢাকা
  15. আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড: এবার তিনটি ব্রোঞ্জ পেল বাংলাদেশ
  16. এপিএমওতে বাংলাদেশের দুটি ব্রোঞ্জ পদক
  17. খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক গণিত অলিম্পিয়াড

Looking Back And Connecting The Dots

Sometimes, it seems amazing when you look back at time and try to connect the dots

I came back to America last November (2011) with a newly found interest in Biology and BusinessFor me, one of the best things about living in America at that time was fast Internet connection. When you have fast internet connection, you do stuffs that you wouldn’t do otherwise. For me, it was downloading books – thousands of them!If I find a subject area or topic interesting, I usually try to learn as much as I can from books and the web. Then while learning about the topic, whenever I come across a new topic that I find interesting, I start following the same procedure

for the new topic of interest (recursively; if you prefer Computer Science terminologies!) – serendipity in action! 

I have always been fascinated by the prospects of improving health and brain power. Previously, my idea was to invent new technologies (e.g., stem cells, engineered organs etc.) for better health and more brain power. Books and ideas (e.g., human body version 2.0) of Ray Kurzweil and others have always inspired me. 

My interest in Biology led me to books – which helped me discover that both health and brain power can be improved dramatically by natural means. Reading those books, I became aware of the benefits that a sound health can bring into your life. I incorporated a lot of health practices to my life. A lot actually – 

  • aerobic exercises and strength training 
  • mindfulness and deep breathing 
  • lots of blueberries and strawberries and nuts and yogurt 
  • and a whole lot of other changes in my diet plus supplements 


My quantifiable success – I lost about 40 pounds in a span of 6-9 months (from 192/194 to around 150)! 

My interest in Business, besides showing me ways to handle social problems in more elegant ways, led me to an advice: “Isolation is dangerous”. So I made myself a lot more social than I was.

Then, being social and conversing with others (time period: December 2011 – March 2012), I found out that I could actually think a lot better than I thought I did and I was amazed.

I was amazed at how much I had managed to learn by myself. I have never had the opportunity of learning from very good teachers or very smart peers (excluding a few days during Math Olympiad back in 2005). I had no one to guide me. I learned to guide myself.

I was inspired.

So when I came back to Bangladesh in March 2012, my inspired self returned to unsocial life spending time on nerdy stuffs!

Now, I am eagerly waiting to find out where my previous experiences take me next. 



Life is never this simple. I have left out a lot of details. But this is surely an outline.


(Written sometime in May-June 2012; enhancements later)

পৃথিবীতে এমন মানুষও আছে যার কপালের Sign বলে দেয় – সে কে!

[04.11.14]  [১১.০৪.১৪]
“কপাল” নিয়ে মজার কিছু কথা আমরা ভাষায় ব্যবহার করি!

“কপালের লিখন, না যায় খণ্ডন।”

‘ওর “কপাল ভাল”! যেখানে হাত দেয়, সেখানেই সাক্সেসফুল!’ 

‘আমাকে দিয়ে কিছু হবে না। “পোড়া কপাল”!’


কপালে মানুষের ভাগ্য লেখা থাকে – এটা কেউ বিশ্বাস করে না।

“কথার কথা” বা প্রতীকী অর্থে আমরা ব্যবহার করি।

কিন্তু মজার ব্যাপার হল: পৃথিবীতে এমন মানুষও আছে যার কপালের Sign বলে দেয় – সে কে!

কপালের Sign – ওটা Physical Reality র না, “Aura”। চাইলে Sign টা দেখতে পাওয়া যায় – কিছু Practice করতে হয় শুধু! 

তার মানে এই যে আমরা “কপালে লেখা” (প্রবাদ বাক্যটা তো অনেক আগের) বলি – এর মাঝে গভীর কোন সত্য আছে অনেক অনেক কাল আগের মানুষরা জানতেন!

একটি গদ্যকার্টুন (!), পতাকা দিবস এবং আমাদের রাজনীতি

১.
ছোটবেলায় (২০০২/০৩ হবে, যখন তাহসিন কাঁধে ব্যাগ নিয়ে স্কুলে যেত) রম্য ম্যাগাজিন আলপিনে একটা গল্প পড়েছিলাম!

গল্পটা মোটামুটি এরকম।
একটা ছেলেকে স্কুলে টিচার হোমওয়ার্ক দিয়েছে – “রাজনীতি কি” শিখে আসতে।সে বাসায় ফিরে বাবাকে জিজ্ঞেস করল, বাবা, রাজনীতি কি?

বাবা ভেবে বললেন, উদাহরণ দিয়ে বোঝাই। আমাদের বাসায় আমি টাকা রোজগার করে আনি। আমি হচ্ছি “পুঁজিপতি” শ্রেণী। তোমার মায়ের কথামত সবকিছু চলে। তোমার মা হচ্ছে “সরকার”। তুমি আমাদের কথামত চল। তুমি হচ্ছ “জনগণ”। আমাদের বাসায় যে ছেলেটা কাজ করে ও হচ্ছে “শ্রমিক শ্রেণী”। আর তোমার ছোট ভাই হচ্ছে “ভবিষ্যৎ প্রজন্ম”

তুমি সবার মাঝে সম্পর্কগুলো বোঝার চেষ্টা কর। তাহলেই “রাজনীতি কি” বুঝতে পারবে।

ছেলেটা এতটুকু জেনে দুপুরে ঘুমাতে গেলো।

হঠাত ছোট ভাইয়ের কান্না শুনে ঘুম ভেঙে গেলো।

ঘুম থেকে উঠে দেখল, ছোট ভাইটা বিছানায় বাথরুম করে ফেলেছে। কাজেই সে মা কে ডাকতে গেলো।

দেখা গেলো, মা নাক ডেকে ঘুমাচ্ছেন। বাবা নেই।

এবার সে বাবাকে ডাকতে গেলো।

অনেক খুঁজে দেখা গেলো, বাবা রেগে কাজের ছেলেটাকে মারছেন।

ছেলেটা আর কি করবে। নিজের রুমে ফিরে এলো।

বিকেলে নাস্তার টেবিলে আবার বাবা ছেলের দেখা।

এবার ছেলে বলল, বাবা, “রাজনীতি কি” আমি বোধহয় বুঝতে শুরু করেছি।

বাবা বললেন, কি বুঝলে বল।

ছেলে বলল, যখন “পুঁজিপতি শ্রেণী” “শ্রমিক শ্রেণী”র উপর অত্যাচার চালায়, “সরকার” তখন নাক ডেকে ঘুমায়। “জনগণ” সবকিছু দেখেও না দেখার ভান করে। আর আমাদের “ভবিষ্যৎ প্রজন্ম” আছে খুব খারাপ একটা জায়গায়। এই হচ্ছে রাজনীতি।

আমি রাজনীতির এই গল্পটা সুযোগ পেলেই সবাইকে বলতাম।

যা বলা হত না তা হল, আমাদের দেশের রাজনীতির অবস্থা আরও খারাপ – সরকার সরকারি দায়িত্ব পালনের মাঝে নিজেদের সীমাবদ্ধ না রেখে একইসাথে পুঁজিপতি শ্রেণীর ভূমিকা নিয়ে শ্রমিক শ্রেণীর উপর অত্যাচার চালাচ্ছে। দুর্নীতিতে সর্বোচ্চ স্থান নিয়ে আমাদের দেশের খেটে খাওয়া মানুষের মাথা নিচু করেছে।

জনগণ এতদিন “সবকিছু দেখেও না দেখার ভান” করছিল।


এভাবে আর কতদিন?
২.



আজ ২৩ মার্চ। পতাকা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে সারা বাংলাদেশ জুড়ে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়েছিল।

মুক্তিযুদ্ধের সময়কার স্বাধীন বাংলা সংগ্রাম পরিষদের অবিসংবাদিত নেতা নুরে আলম সিদ্দিকী বঙ্গবন্ধুর হাতে পতাকা তুলে দিয়েছিলেন।

তিনি বলেছেন, “বঙ্গবন্ধু মানুষকে ভালবাসা দিয়ে সম্মান দিয়ে কাছে টানতেন কিন্তু (বর্তমান নেতৃত্ব) জানে কেমন করে প্রদীপ্ত প্রতিভাকে দমিয়ে রাখা যায়।

বঞ্চিত মানুষের বিজয় হবেই – কেউ রুখতে পারবে না।”

 

বাংলাদেশের বঞ্চিত মানুষ অবশেষে জেগে উঠেছে। আমরা এবার বিজয় দেখার অপেক্ষায়।

সম্ভাবনা যখন স্বপ্নকে ছাড়িয়ে

#StoriesOfMyLife পড়ার সময় Date বিবেচনায় নেওয়া উচিত – আমি কিন্তু ধীরে ধীরে বেড়ে উঠছি!

[03.23.14] তারিখের চিন্তা ভাবনাগুলো কেমন ছিল?

সম্ভাবনা (Possibilities) যখন স্বপ্ন (Dream) কে ছাড়িয়ে [03.23.14]

আমি সবসময়ই অনেক অনেক বেশি উচ্চাকাঙ্ক্ষী (Ambitious)। আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন সবসময় ছিল। 

 
কিন্তু এখন ভাবলে মনে হয়, সম্ভাবনাগুলো (Possibilities) স্বপ্নকে (Dreams) ছাড়িয়ে অনেক অনেক দূর গেছে
1.
চিটাগং কলেজে যখন পড়তাম, যখন বিজ্ঞান-গনিত চর্চা শুরু করি, ব্রেইনের ক্ষমতা – Intelligence – Creativity বাড়ানো যায় – ব্যাপারটা প্রথম যখন বুঝতে পারি – তখন অনেক স্বপ্ন দেখতাম:
বিজ্ঞান প্রযুক্তিতে নতুন অনেক কিছু করবো, এলিয়েন (Alien) টাইপ বুদ্ধিমত্তা হবে আমার (Other Worldly Intelligence – এত বেশি High IQ আর এত বেশি creative – পৃথিবীর  কারও সাথে তুলনা হয় না) – এই ধরণের!

কিন্তু এখন মনে হয়, স্বপ্নগুলোকে ছাড়িয়ে যাওয়া সম্ভব

স্বপ্নগুলো যেন অনেক অনেক বেশি আলোকিত হয়ে, অনেক অনেক বেশি তেজ নিয়ে হাতছানি দিয়ে ডাকছে।

কলেজে পড়ার সময় আমার স্বপ্ন ছিল Einstein, Newton দের পর্যায়ে পৌঁছা বা তাদেরও ছাড়িয়ে যাওয়া। তবে আমার কাজের Breadth হবে অনেক ব্যাপক। Physics এর Ultimate Laws, Artificial Intelligence এ বড় breakthrough, Neuroscience এ deeper understanding – এমন কিছু কাজ।

Einstein, Newton পর্যায়ের কেউ হওয়া বা তাদেরও ছাড়িয়ে যাওয়া – অতটুকু ভাবা যায়।

কিন্তু আমি এখন যে পর্যায়ে পৌঁছেছি – Einstein, Newton আর Contemporary Leading Scientists দের কাজগুলো শিশুর মত মনে হয়।

এতটা আমার স্বপ্ন-কল্পনার বাইরে ছিল। এই ধরণের Ultra পর্যায়ে পৌঁছাবো – কখনও ভাবিনি।

2.  

দেশ নিয়েও স্বপ্ন দেখেছি!

ইউনিভার্সিটিতে যখন পড়তাম তখন স্বপ্ন ছিল – বুদ্ধিবৃত্তিক ক্ষেত্রে কোন একটা বড় সাফল্য দেখাবো – তারপর বাংলাদেশ সরকার আমাকে উপদেষ্টা ধরণের কিছু করবে!

গণিত অলিম্পিয়াডে ছিলাম। বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মকে গড়ে তুলবো, নেতৃত্ব দেবো – এমন একটা ইচ্ছা ছিল।

কিন্তু এত এতগুলো মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে যেতে পারবো, Political একটা ক্ষেত্র তৈরি হবে, আর তার মাধ্যমে আমি দেশের জন্য অনেক অনেক কাজ করতে পারবো – আমার ইউনিভার্সিটিতে পড়ার সময়কার ভাবনাগুলোর চাইতে অনেক বেশি কিছু!

এখানেও সম্ভাবনাগুলো স্বপ্নকে ছাড়িয়ে অনেক দূর গেছে।

 
3.
পৃথিবীর সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী দেশটির কাছে এত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবো, বিভিন্ন দেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা আমাকে এত দ্রুত জানবেন – এসব স্বপ্ন ছাড়ানো বলব নাকি রূপকথা বলবো?  
 
 
আমি যাতে সবার প্রত্যাশা পূরণ করতে পারি – সৃষ্টিকর্তা আমাকে সেই ক্ষমতা দিন। 

TahsinVersion2 or Tahsin Version 2.0: How? (2013)

“We are like newborn children,
Our power is the power to grow.”
– Rabindranath Tagore

The idea Tahsinversion2 is from Human body version 2.0 in “The Singularity Is Near: When Humans Transcend Biology” [1] by Ray Kurzweil. Tahsinversion2 indicates improvement in all aspects of life (if not exponential, at least linear with a high constant factor!). Tahsin version 2.0 or Tahsinversion2 is the next stable version of Tahsin!

When I was in High School (11th Grade), I found out that I could improve my brainpower through problem solving and deep thinking and following few other principles.

It was an amazing realization! I could grow myself and become anyone I wanted if only I tried hard enough.

Besides, I have always been a voracious reader of Self Management books. I learned tons of ways of improving myself in different spheres of my life.

My deep appreciation of human psyche, deep knowledge in Psychology, Neuroscience, Cognitive Science, Mathematical Problem Solving and Artificial Intelligence guides me.

In 2011-12, I found out that by changing lifestyles, I could have better health and get younger.

Last year (2013), when I thought about continuous self improvement in every possible direction, I compiled a list of areas worth improving.
People change. So do I. But this list (compiled in 2013) is obviously a starting point.

Some of you might find some of the areas in your lives worth improving. Give it a shot!

Self management

  • Set short term goals and accomplish them. (Write down problems, topics related to your goals so that you think of them when you wake up and in your free time and able to keep focus all day.) Work backwards from the goal / goals to your current position. Identify problems. Plan. Try to control impulses, change habits (brain state control, Mindfulness, Emotional Intelligence). Keep scores. Try to gradually get more done in less time.
  • Use feedback to your advantage. Keep scores. Go through your day and find out how you could improve it.
  • Learn time management. Clock your activities. Try to complete tasks in lesser time. Create distraction free environment and time.
  • Practice focused persistence. How do you maintain the brain state that made you think of being persistent on a particular task? Remember and write down the factors and their emotional values that made you think of being persistent. One way is to form habits.
  • Confidence – Faith {“I can do anything” attitude} {Only a strong mind has complete faith / is supremely confident and a strong mind is a capable mind.}
  • Creative visualization {“It’s the possibility of having a dream come true [or the possibility of a better life than what it is now] that makes life interesting.” Using thoughts, images, imagined situations [one single thought/image works best] (Lucid dreaming).} Think-feel all the “meta” skills you have and get excited! {motivation, law of attraction, praying}
  • “The happiness advantage” {The happier you are, the more motivated and energetic you are, the better your brain works.}
  • Inspiration
  • Self-control {brain state control, Mindfulness, Emotional Intelligence}
  • Associating positive emotions/feelings with the task at hand. + Curiosity).
  • Identify the habits that are holding you back, need to be changed and change them.
  • Use mind mapping software. (XMind, FreeMind, mindmeister)
  • Always check if you feel happy, optimistic, focused, motivated, and energetic (Use Mindfulness, Emotional Intelligence). Do you feel doubtful, shy, nervous, lacking in confidence, any blockage to thinking? Make yourself happy, focused, motivated, and energetic. Don’t do what you feel you ought to do (notice if you are building lists of reasons for doing unnecessary things). Rather do what you should do, what should happen.

 

Individual growth

  • Analyze (taking everything into consideration, asking how, why) & actively learn from everything you read, everything you see around you and all your experiences. Try to explain everything in terms of general principles / simpler constructs. Discover patterns wherever you look, whatever you think. Solve math problems, model things around you with mathematics / models {model thinking} / science.
  • Try to find creative solutions for everyday problems (better way of doing things) (Feynman) (learn from “design of everyday things”). (New / improved tech / scripts-software / apps / devices / machines, shortcuts)
  • Whenever you find it hard to think, you are doing yourself some real good. Cross your limits. Become a better you.
  • Solve Mathematical, Algorithmic, Scientific, Engineering problems, puzzles.
  • Work-study-think 90+ hours a week.
  • Courses on Udacity, Coursera, EdX.
  • Learning Math, Engineering, Science: Wikipedia [Why Wikipedia? Image – Diagram (I learn Engineering and Science mostly from Diagrams and Images) Knowledge Ontology. Use Hyperlinks for Just-in-Time (JIT) learning.]
  • Language proficiency goals: English. Bangla. Spanish. Hindi. Arabic. Hebrew.
  • Know everything there is to know about America.
  • Read biographies. Learn history. (Are there patterns? Large time scale cause-effect relationships? Plan by higher power?)
  • Practice speed reading.
  • Consider taking part in trivia quiz contests/shows, US memory championship, US puzzle championship.
  • Read / think everywhere – all the time.
  • Learn more about education and learning. (Experiment with tutoring)

 


Social Life

  • Improve your ability of real time social cue and psychology processing. Try to understand people and society intimately. Find collaborators (online and real world).
  • Identify social problems. Devise solutions. (Study social entrepreneurship, social business, Organization / Motivation.)
  • Become a true “inverse-paranoid”. Try to see the positive in everything. Sincerely believe that whatever happens, happens for some good reason (at least in the long run) according to God’s plans. Don’t get lost in the forest, but climb higher and take a view of the forest and figure out how the forest might change with time as a result of different actions and interactions.
  • To understand others put yourself in others’ shoes. Try to view the situation from others’ perspective. Don’t micro-manage – think in long term. Think several steps ahead.
  • Learn from your own and other people’s mistakes. Make every mistake an opportunity for learning.
  • How do you build a magnetic, charismatic and authoritative (with necessary humility) personality? (Study Emotional Intelligence, Leadership, Body Language. Try dealing with people with different personalities and backgrounds differently.)
  • Tweet, Blog (Get feedback.) Later: Ebook – App, Book, Linkedin.

 


Spiritual Life

  • Rely on no one other than God / Spirit of God. Always keep the possible nature of ultimate reality in mind even while you are living your day to day life. (Practical reality <> Ultimate reality) (Science, Engineering, Social Entrepreneurship <> Dark sides of society)
  • Spend more time praying (and meditating {practice mindfulness; imagine-feel-senses-observe-reason-learn-create}) (Creative visualization; Law of attraction; Imagine & feel; Pray for others; Gratitude {Imagine-feel how life could have been if you didn’t have some of the things you have. Now, feel happy and express gratitude.}; Think about God-ultimate reality).
  • Pray and work on: increasing intelligence, knowledge, wisdom, creativity; increasing strength, courage, toughness, stability; purifying heart/soul. Pray for others. Express gratitude. Ask for guidance.
  • If you eagerly accept life after death, you have no fear, no worry, no doubts, nothing to lose. (You say, “If I am ready to sacrifice my life, then why do I bother about this tiny stuff?”)
  • As long as you are sincere in completing your duties & responsibilities, you have no fear of death. After life could be even better.
  • Express gratitude to God for all the blessings while praying.

 


Leadership Personality

    • রাষ্ট্রনায়োকোচিত Attitude (Attitude that is expected from the leader of a Nation). জনগণের পাশে থেকে জনগণকে নেতৃত্ব দেবো। 

 

  • তোমাকে কত মানুষ পছন্দ করে, তুমি কত মানুষের আশা, স্বপ্ন, প্রত্যাশা ধারণ করছ – এটা সবসময় মাথায় রাখবে।
  • Be the smartest – lead from the front.
  • Strength, Courage, Toughness; Ready to sacrifice life; no doubts, no fear, no worry, nothing to lose.
  • Authority
  • Responsibility
  • Humility & Empathy
  • Deep thought, bold action
  • Body Language

 

 

A sense of authority and a sense of empathy. From authority and empathy comes responsibility.

Daily routine

  • Every morning energise yourself by creatively visualizing your enormous potential across different sectors. Remind yourself over and over again throughout the day.
  • Practice mindfulness.

 

 

Intellectual Life

  • Remind yourself – if you find something hard to think, feel that you are stressing your brain, you are doing yourself some real good. Ways to stretch the limits of your mind:
    • Trying to understand a system
    • Trying to solve problems
  • Learn everything completely (no 50% or 70%, always 100%) so that you understand it completely in terms of what you already know. Don’t limit yourself to Engineering, understand the Science.
  • Check your motivation level at regular time intervals. Need a boost?
 
Intellectual Life
 

Goals Set By Others

[November / December 2013]
Be the defining character of our time. (US Catholic Church)

Take Artificial Intelligence to the next level. (US Catholic Church)

Physical-Digital Computing pioneer. (Sergey Brin)

Grow yourself to be the smartest Economist in the world. (Dr. Muhammad Yunus)




Reference